প্রাণের সংযুক্তি

নান্দনিক

সাহিত্য

নির্বাচিত

খেলার জগৎ

প্রাণের কথা

বর্ষা চলছে। আকাশের মুখে বাঁধা মেঘের রুমাল। ঝরছে বৃষ্টি দিনমান। পানিবন্দী মানুষ, বাজারে নিত্যপণ্যের দাম আকাশ ছুঁই ছুঁই, গ্রামগঞ্জ তলিয়ে গেছে বন্যায়। কষ্টের শেষ নেই মানুষের। কিন্তু ভোরবেলা ঘুম ভেঙ্গে বৃষ্টির শব্দ বাঙালীর মনকে খানিকটা উন্মনা যে করেই তাতে কোন সন্দেহ নেই। কালিদাসের বিরহী মেঘের কাল কবে ফুরিয়ে গেছে, সংকট আর জীবনযুদ্ধের মাঠে কবিতার কালও লোপাট প্রায়। কিন্তু তারপরেই বর্ষা কেমন এক মন খারাপের চাদর বিছিয়ে বসে যেন সবার মনে। কত কথা ফিরে আসে, কত পিছু ফেলে আসা স্মৃতি বৃষ্টির হাওয়ায় তরঙ্গ তোলে মনের গহীনে। হয়তো কয়েক মুহূর্তের জন্য আমাদের দুঃখ-কষ্টের জীবনের বিরাম মেলে।আমাদের মন অন্য ভাবনার মাঝে নিজেকে বিস্তারিত করে।

প্রাণের বাংলার পাঠকদের বর্ষার প্রীতি ও শুভেচ্ছা। আপনারা ভালো থাকবেন। থাকবেন প্রাণের বাংলার সঙ্গে।

এবার নতুন একটি বিষয় সংযোজিত হলো পত্রিকায়। লেখার সঙ্গে বাম দিকের কোণে দেখা মিলবে একটি বেলের ছবি। বেলের ওপর ক্লিক করে আপনারা মোবাইল ফোন অথবা পিসিতে নিয়মিত পেতে পারেন প্রাণের বাংলার সব আপডেট।

sign

শেষ সংযুক্তি

এই সংখ্যায় যা থাকছে

মুক্তমত

আমাদের সমাজে মেয়েরা কি নিরাপদ?

কিছু শিখি

Allot (এ্যালট) – বরাদ্দ করা
Astral (এ্যাস্ট্রাল) – তারকাসন্ধীয়
Aggression (এ্যাগরেশন) – জবর দখল।
Armour (আর্মার) – বর্ম
Author (অথার) – গ্রন্থকার

ক্যামেরার চোখে

খাঁচার ভেতর অচিন পাখি? না, খাঁচার পাখিকে অচিন বলে কী হবে! আকাশের পাখিও তো আমাদের অচেনা। আসলে জীবনের দুটো প্রান্তই আসলে মানুষের কাছে গোটা জীবন অচেনাই থেকে যায়। জীবনকে আমরা সারা জীবন চিনতে পারলাম না বলেই তো এতো জটিলতা। এই মানব জনম কেন এতো কন্কময় কে জানে!
খাঁচার ভেতর অচিন পাখি? না, খাঁচার পাখিকে অচিন বলে কী হবে! আকাশের পাখিও তো আমাদের অচেনা। আসলে জীবনের দুটো প্রান্তই আসলে মানুষের কাছে গোটা জীবন অচেনাই থেকে যায়। জীবনকে আমরা সারা জীবন চিনতে পারলাম না বলেই তো এতো জটিলতা। এই মানব জনম কেন এতো কন্কময় কে জানে!