প্রাণের সংযুক্তি

নান্দনিক

সাহিত্য

নির্বাচিত

সর্বজয়া

খেলার জগৎ

প্রাণের কথা

বাংলা ক্যালেন্ডার জানাচ্ছে আশ্বিন মাস ফুরিয়ে এলো। তার মানে হেমন্ত কাল শেষ। এবার শীতের অপেক্ষা।তারপর একটা ঋতু পেড়িয়ে আরেকটা নতুন ছকের মধ্যে ঢুকে পড়া।আমাদের জীবন তো এখন চলছে রুটিনের মতো করেই। সকালবেলা কাজের তাগিদে ঘরছাড়া হয়ে সেই সন্ধ্যাকালে ঘরে ফেরা। আবার আরেকটি দিনের জন্য নিজেকে তৈরী করা। তবুও এই সময়টা এলে শীতের জন্য অপেক্ষা করতে ভালো লাগে। ভোরবেলা ঘুম থেকে উঠে টের পাওয়া যায় উত্তর থেকে আসছে হালকা ঠান্ডা হাওয়া। বিকেলগুলো ছড়িয়ে দেয় কেমন উদাসী গৈরিক আলো। সন্ধ্যার আকাশে অসংখ্য চেনা-অচেনা তারা। কেন জানি মনে হয় সুসময়ের ঘ্রাণ পাই। আমাদের জীবনে অনেক সংকট, অনেক জটিলতার মাঝেও হঠাৎ করেই মন ভালো হয়ে যাওয়ার পুলক অনুভব করি।

মানুষ আসলে এভাবেই বেঁচে থাকে। আলোহীন পথ ধরে হেঁটে যেতে যেতে ভাবে আলোর কথা। এই ভাবনাটাই আমাদের বাঁচিয়ে রাখে।

সবাই ভালো থাকুন। সুস্থ থাকুন। প্রাণের বাংলার সঙ্গে থাকুন।

sign

শেষ সংযুক্তি

এই সংখ্যায় যা থাকছে

ক্যামেরার চোখে

খাঁচার ভেতর অচিন পাখি? না, খাঁচার পাখিকে অচিন বলে কী হবে! আকাশের পাখিও তো আমাদের অচেনা। আসলে জীবনের দুটো প্রান্তই আসলে মানুষের কাছে গোটা জীবন অচেনাই থেকে যায়। জীবনকে আমরা সারা জীবন চিনতে পারলাম না বলেই তো এতো জটিলতা। এই মানব জনম কেন এতো কন্কময় কে জানে!
খাঁচার ভেতর অচিন পাখি? না, খাঁচার পাখিকে অচিন বলে কী হবে! আকাশের পাখিও তো আমাদের অচেনা। আসলে জীবনের দুটো প্রান্তই আসলে মানুষের কাছে গোটা জীবন অচেনাই থেকে যায়। জীবনকে আমরা সারা জীবন চিনতে পারলাম না বলেই তো এতো জটিলতা। এই মানব জনম কেন এতো কন্কময় কে জানে!