টালিগঞ্জের রাজকুমারী রিতিকা সেন

 

কলকাতার বাঙ্গুরে জন্ম আর বেড়ে ওঠা রিতিকা সেন আজকের টালিগঞ্জের জনপ্রিয় মুখ । সারল্য ,হাসি আর অভিনয় দিয়ে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই জয় করে নিয়েছে অসংখ্য ভক্তের হৃদয় । ইতিমধ্যেই করে ফেলেছেন রাজ চক্রবর্তী ও অপর্ণা সেনের মতো পরিচালকের সাথে ।আরশিনগরের মতো ভিন্ন ধারার চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে প্রমাণ করেছে যে সব ধরনের চরিত্রে অভিনয়ের যোগ্যতা তার রয়েছে ।তাই টালিগঞ্জের চলচিত্র অঙ্গনে রাজকুমারী নামেই সবার কাছে পরিচিত ।
শুরু থেকে আজকের রিতিকার অজানা কথা জানতে আলাপচারিতায় বসেছিলাম ওর বাড়িতে ।
ছোট ভাইয়ের সাথে খুনসুটি করতে করতে, মায়ের কোল ঘেঁষে বসে বলে চললো…..আমি বাংলাদেশের কোন সংবাদ মাধ্যমে এই প্রথমবার সাক্ষাৎকার দিচ্ছি। আর তাই খুব ভালো লাগছে । তবে সবচেয়ে ভালো লাগছে যে প্রাণের বাংলার প্রথম সংখ্যায় দিতে পারছি জেনে ।অভিনন্দন প্রাণের বাংলা।
প্রাণের বাংলা।: তোমার প্রথম চলচ্চিত্রে কাজ করার অভিজ্ঞতা কেমন ছিল ?
রিতিকা : খুব ছোটবেলা থেকেই অভিনয় করছি তো প্রথম চলচ্চিত্রে কাজের অভিজ্ঞতা তাই একটা ভালো মনে নেই । তবে হ্যাঁ অভিনয় আমার চিরকালের প্যাশন ।খুব উপভোগ করি নেশা বলতে পারো।
প্রাণের বাংলা।: চলচ্চিত্রে আসাটা কি হঠাৎ করেই না ছোটবেলার স্বপ্ন ?
রিতিকা : হ্যাঁ হঠাৎ কিছু না বুঝে । বলতে পারো পুরো ব্যাপারটা বুঝে উঠার আগেই জানি না কখন কেমন করে অভিনয়ই জীবন হয়ে গেল ।
প্রাণের বাংলাঃ প্রথম মুক্তি পাওয়া চলচিত্র ১০০% লাভ এর ছোট কোমল আজ অভিনয় করছে প্রধান নায়িকার                            চরিত্রে সে হিসেবে নিজের অনুভুতি কেমন?
রিতিকাঃ ১০০% লাভ আমার প্রথম মুভি নয়। অনেক পরে এটা করেছি। ছোট চরিত্র হলেও এটাতে অনেক কিছুই শিখেছি যা পরবর্তীতে আমাকে অনেক বেশি কাজে সহযোগিতা করেছে। বলতে পারো খুবই ভালো অভিজ্ঞতা। হ্যাঁ পার্থক্য শুধু একটু বেশি কাজ।আর অবশ্যই অনেক বেশি সেই কাজে মনোনিবেশ দরকার হয়। প্রধান চরিত্র মানে মুভি হিট করার জন্য অনেক বেশি সেই চাপ নেবার দরকার হয়। অনেক বেশি সেই চাপ নেবার জন্য মানসিকভাবে তৈরি হতে হয়। একটা মুভির গান, অভিনয়ের জায়গা, প্রমোশন আর সব শেষে চরিত্রের দীর্ঘতা, উপস্থাপন সবকিছুই নির্ভর করে প্রধান চরিত্রের উপর।
প্রাণের বাংলাঃ নতুন কোন কাজ কিএখন চলছে?
রিতিকাঃ নতুন মুভির কাজ চলছে। খুব তাড়াতাড়ি জানতে পারবে। এখন কিছু বলছিনা। ( হেসে নিয়ে আবার ) সিক্রেট, সিক্রেট পরে বলবো।
Ritika Senপ্রাণের বাংলাঃ ‘বরবাদ’এ প্রধান চরিত্রে প্রথম ।তার অভিজ্ঞতা কেমন?…….
রিতিকাঃ মাসুম বলে ২০১৩ সালে একটা মুভিতে কাজ করেছি কিন্তু ‘বরবাদ’ আমাকে ক্যারিয়ারে সফলতা দিয়েছে। প্রধান চরিত্রে এটা তৃতীয় মুভি। রিতিকা হিসেবে ‘বরবাদ-‘ এর সফলতা দিয়ে আমি ভক্ত হৃদয় জয় করতে পেরেছি অনেক বেশি।
প্রাণের বাংলাঃ রিতিকা সেনের দৃষ্টিতে কোন ধরনের মুভির গ্রহণ যোগ্যতা বেশি ……
সামাজিক, রোমান্টিক, বিকল্প ধারা ……..
রিতিকা সেনঃ আমি নিজেকে যে চরিত্রে ( সেটা ছোট বড় ব্যাপার নয় ) অভিনয়ের চ্যালেঞ্জ দিয়ে প্রমান করতে পারবো সেই মুভিই আমার কাছে গ্রহণযোগ্য।
প্রাণের বাংলাঃ কোন ধরনের মুভি বেশি করতে চাও?
রিতিকাঃ যে মুভি আমার কাছে খুব চ্যালেঞ্জিং মনে হবে আর অভিজ্ঞতা বাড়াবে। আর বিভিন্ন পরিচালকের সাথে কাজ করতে চাই ভবিষ্যতে।

প্রাণের বাংলাঃ শুটিং করার সময়কার কোন মজার অভিজ্ঞতা…….
রিতিকাঃ অনেক কিছুই মনে পড়ছে শুটিং এর স্মরনীয় মজার ঘটনা। কোনটা রেখে কোনটা বলি বুঝতে পারছিনা। তবে হ্যাঁ শ্যুট এ পুরো ইউনিট অনেক মজা করি।

প্রাণের বাংলাঃ জীবনের স্মরনীয় ঘটনা …..
রিতিকাঃ ভাইয়ের জন্ম আমার জীবনের স্মরনীয় ঘটনা। আজো ওর জন্মের দিনটা ভাবলে আমার পৃথিবীর রং বদলে যায়।
প্রাণের বাংলাঃ অভিনয়ে আসার পেছনে কার অনুপ্রেরনা রয়েছে?
রিতিকাঃ ( সহাস্যে ) মা আমায় অনুপ্রানিত করেছে আর আজো করছেন ভালো অভিনয় আর অভিনেত্রী হতে।বাবা কোন ধরনের সহযোগিতা করেন না অভিনয়ের বিষয়ে ।
প্রাণের বাংলাঃ অভিনয়টাই কি পেশা হবে জীবনের ….
রিতিকাঃ (আগেই বলেছি যদিও) অভিনয়টাই এখন আমার স্বপ্নে ও রক্তে মিশে গিয়েছে, প্যাশন, প্যাশন ( বলে থেমে ) আরশি নগরে অভিনয়ের পর আরো ভালো কিছু করার নেশোয় পেয়েছে ….
প্রাণের বাংলাঃ অভিনয় ছাড়া কি পছন্দ গানশোনা, রান্না, বই পড়া ….
রিতিকাঃ সময় পেলে গান শুনতে, মুভি দেখতে আর বই পড়তে খুব পছন্দ করি।বরাবরই আমি খুব শান্ত প্রকৃতির ।
প্রাণের বাংলাঃ ভবিষ্যতে কোন কোন পরিচালকের সাথে কাজ করার ইচ্ছে রয়েছে আর মুভির ধরনটা কেমন পছন্দের………………
রিতিকাঃ সব পরিচালকের সাথে কাজ করতে চাই তিনি যদি নতুন ও হন, সমস্যা নেই। আর ওই যে একই, যেখানে কাজ করলে আমায় অভিনয়ের প্রমান করতে পারবো।
প্রাণের বাংলাঃ সেটা যদি বাংলাদেশের কোন চলচ্চিত্র হয়?
রিতিকাঃ সুযোগ পেলে অবশ্যই করবো, বাংলাদেশে আমার অসংখ্য ভক্ত রয়েছে। অনেকে টুইটারে জানতে চায় …….।
প্রাণের বাংলাঃ মিডিয়াতে আদর্শ কে?
রিতিকাঃ সবার থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। ভালো অভিনেত্রী হতে গেলে প্রতিটা মানুষকে তার কাজের সম্মান দিতে হয়।
প্রাণের বাংলাঃ আর বলিউড, অনেকেই তো করছেন বাংলার….. বলিউডে কাজ করলে তোমার বিপরীতে কাকে পছন্দ?…..

রিতিকাঃ আপাতত বাংলায়। পরে সুযোগ পেলে অবশ্যই করবো। অতদূর এখনো ভাবিনি।
প্রাণের বাংলা : অভিনেত্রী হবার পর খুব কম সময়ে দর্শকের কাছ থেকে অনেক ভালোবাসা পেয়েছো অভিনয় ক্ষমতা দিয়ে। এতে জীবনের পরিবর্তন তো এসেছেই। এটা কিভাবে উপভোগ করো।
রিতিকা : গ্ল্যামারাস জীবনের জন্যে পরিবর্তনটা খুব ছোট থেকেই রয়েছে বিন্তু’ বরবাদ’ এর পর আমুল পরিবর্তন এসেছে জীবনে, দর্শক, ভালোবাসা আরো বেড়েছে। সবাই ভালোটা চায়, আমি ও চাই ভালো কাজ করতে কিস্তু কখনো ভাবিনি

 

শিলা চৌধুরী 

কলকাতা প্রতিনিধি

ছবিঃ অনির্বাণ চক্রবর্তী