ধর্ষক যে-ই হোক উপযুক্ত শাস্তি চাই

শাহানা হুদা

কোন কিছুতে নূন্যতম মন:সংযোগ করতে পারছিনা । বারবার ছোট্ নয়নতারার মুখটি চোখের সামনে ভেসে উঠছে । ভয়ে কুঁকড়ে উঠছি বাচ্চাটার নিরাপদ বেড়ে ওঠার কথা ভেবে । যখনই কোন শিশুকে দেখি নিপীড়িত হতে তখনই আমার চারপাশের শিশুগুলোর মুখ ভেসে ওঠে । আমাদের ঘরের শিশুরই যদি নিরাপত্তা না থাকে, তাকে যদি পরিবারের ও পরিবারের বাইরের লোকদের দ্বারা যৌন নিপীড়ণের শিকার হতে হয়, তাহলে রাস্তায় দাঁড়িয়ে যে বাচ্চাটি ফুল বিক্রি করছে, সেই বাচ্চাটি যে কতটা ভয়াবহ অবস্থার মধ্যে আছে, তা সহজেই অনুমেয় ।

বগুড়ার ঘটনাটার রেশ থাকতে থাকতেই বাড্ডার ছোট্ট মেয়েটির খবর কানে এল । আামি ভাবতে পারছিনা কতটা অধম ও বিকৃত হলে এমন কাজ করতে পারে কোন ব্যক্তি । অবশ্য কেনইবা ভাবতে পারছিনা । পরপর এরকম ঘটনা ঘটে যাচ্ছে । শিশু থেকে বুড়ি কেউ বাদ যাচ্ছেনা ।

রাজনৈতিক পরিচয়ে অনেক অপরাধ করে মাস্তান সন্ত্রাসীরা । টেন্ডারবাজি, চর দখল, নদী দখল, হল দখল, হুমকি-ধামকি, হত্যা, গুম এরকম আারো অনেককিছু । এবার দেখছি ধর্ষণ । পরিবারের নারী সদস্যেদের সহায়তায় রাজনৈতিক পরিচয়ে ধর্ষণ । শুধু তা করেই ক্ষান্ত হয়নি, মাথা ন্যাড়া করে গ্রাম ছাড়া করার হুমকি দিয়েছে । আওয়ামীলীগের উচিৎ নিজেদের দলের স্বার্থই এসব অপরাধীকে শাস্তির আওতায় আনা ।

অবস্থা দিনে দিনে এতটাই ভয়াবহ হয়ে উঠছে যে নারীদের নিজেই নিজেকে বাঁচানোর অস্ত্র হাতে তুলে নিতে হবে । কায়দা শিখতে হবে এসব বর্বর দুর্বত্তকে ঘায়েল করার । ঘরকন্যার বদলে বা পাশাপাশি আত্মরক্ষার তালিম নিতে হবে । লজ্জাবতী নারী হয়ে থাকার দিন শেষ । যে আমাকে আঘাত করবে, আমিও তাকে আঘাত করবো । আর শিশুকেও সচেতন করে তুলতে হবে, তার চারপাশ সম্পর্কএ, তার চেনা মানুষ সম্পর্কএ ।

ধর্ষণ করাটা অন্য যেকোন অপরাধের চেয়েও জঘন্য ও বড় অপরাধ । কাজেই শাস্তিটাও সেরকম হওয়া উচিৎ । মিনতি করি সবার কাছে ধর্ষক যেই হোক, তাকে প্রতিহত করুন, বয়কট করুন ।

ছবি: গুগল