দল নিয়ে ভাবছে দক্ষিণ আফ্রিকাও

আহসান শামীমঃ প্রোটিয়াদের বিপক্ষে পূর্নাঙ্গ সিরিজ খেলতে দক্ষিন আফ্রিকায় অবস্থান করছে বাংলাদেশ দল। প্রথমে স্থানীয় দলের বিপক্ষে একমাত্র  প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে ২৮ সেপ্টেম্বর শুরু টেষ্ট লড়াই। লড়াই শুরুর আগে  বাংলাদেশকে বিপজ্জনক হিসেবে উল্লেখ করেছেন প্রোটিয়া তারকা ডিন এলগার। তিনি বলেন, নিজেদের দিনে বাংলাদেশ যে কোন দলের জন্যই বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। এলগার মতে, সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ আর কোন অবহেলা করার দল নয়। এখন অষ্ট্রেলিয়া ইংল্যান্ডের মত দলকেও হেলায় হারাচ্ছে তারা। তাই বাংলাদেশের বিপক্ষে সর্বোচ্চটাই দিতে চান এই প্রোটিয়া তারকা।

এদিকে খোদ দক্ষিন আফ্রিকা দল গঠনে পেসারদের নিয়ে চিন্তিত। লম্বা সময় দলের বাইরে থাকা ডেল স্টেইনের বাংলাদেশ সিরিজ দিয়েই দলে ফিরতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ইনজুরির ঝুঁকি মাথায় রেখে বাংলাদেশের বিপক্ষে না খেলার সিদ্ধান্তে নেন ৪১৭ টেস্ট উইকেটের মালিক স্টেইন।ইংল্যান্ড সিরিজে ইনজুরিতে পরা ভারনন ফিলান্ডারও স্টেইনকে অনুসরন করে বাংলাদেশের বিপক্ষে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। দারুন ফর্মে থাকা ফিলান্ডারের পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার শেষ পর্যায়ে আছেন। সামনে ভারত সফরের আগে এই দুই ফ্রন্ট লাইন পেসারকে নিয়ে ঝুঁকি নিতে চাইছে না দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডও।

দুই অভিজ্ঞ বোলারের অনুপস্থিতিতে বাড়তি দায়িত্ব নিতে হবে অভিজ্ঞ মরনে মরকেল ও তরুন কাগিসো রাবাদাকে।অবশ্য যে কোন কন্ডিশনেই কাগিসো রাবাদা ভয়ঙ্কর বোলার। তারপরও ফিলান্ডারের অভাব ভালোভাবে টের পাবে  দক্ষিণ আফ্রিকা বলে মনে করা হচ্ছে। সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন অলরাউন্ডার জিপি ডুমিনির টেষ্ট ক্রিকেট থেকে হঠাৎ অবসরের সিদ্ধান্ত। যদিও ইংল্যান্ডে অভিষিক্ত ডুনিয়া অলিভিয়ার ও ক্রিস মরিস বল হাতে বেশ সুনাম কুড়িয়েছিলেন।

পেস বোলিং নিয়ে চিন্তায় থাকলেও স্পিনারদের মধ্যে বাঁহাতি স্পিনার কেশব মহারাজের জায়গা প্রায় পাকা। পেস বোলিং বিভাগ ভারী করতে দলে নতুন মুখ ডাকতে পারে নির্বাচকরা। চূড়ান্ত দল গঠনে দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশ ও বাংলাদেশ একাদশের মধ্যকার তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে চোখ থাকবে দেশটার ক্রিকেট কর্তাদের।

বাংলাদেশ দক্ষিন আফ্রিকা সিরিজে আইসিসি নতুন কিছু নিয়ম চালু করতে যাচ্ছে। এই নতুন নিয়ম নিয়েই চিন্তিত বাংলাদেশ অধিনায়ক মুশফিক। নতুন নিয়ম অনুযায়ী, এখন থেকে ব্যাটসম্যানরা যে ব্যাট দিয়ে খেলবে তার পুরুত্ব হবে ৬৭ মিলিমটার। সাথে ব্যাটের প্রান্তগুলোর নির্ধারিত মাপ হবে ৪০ মিলিমাটার। ফিল্ড আম্পায়াররা বিশেষ এক ছাঁচের মাধ্যমে ব্যাটের পুরুত্ব মাপবেন। মুশফিকের শঙ্কার কারনটা সেখানেই। মুশফিক জানান,’ নতুন নিয়মগুলো জানি। অবশ্য যে কয়টা ব্যাট দিয়ে খেলছি ওগুলো ঠিক হবে কিনা কে জানে। এটাই একটা চ্যালেঞ্জের বিষয়।’