গরমে চাই শরবত…

তেঁতুলের শরবত

তেঁতুলের শরবত

 তেঁতুলের শরবত

উপকরণ: তেঁতুল, বিট-লবন, চিনি, কাচামরিচ কুচি, ধনিয়া পাতা কুচি, শুকনা মরিচের গুড়া ও ঠান্ডা পানি।

প্রণালী: প্রথমে তেঁতুল থেকে বিচি আলাদা করে একটি পাত্রে তেতুল গুলে নিন। গোলানো তেঁতুলের সাথে পরিমানমতো ঠান্ডা পানি মিশান। এবার তেঁতুলের সাথে একে একে পরিমানমতো চিনি, বিট-লবন, টেলে রাখা শুকনা মরিচের গুড়া, কাঁচা মরিচ কুচি ও ধনিয়া পাতা কুচি দিন এবং নেড়ে ১০ মিনিট রাখুন। এবার তেঁতুলের মিশ্রনটি অন্য একটি পাত্রে ছাকনি দিয়ে ছেকে নিন। হয়ে গেলো সুস্বাদু তেঁতুলের শরবত। গ্লাসে ঢেলে বরফ কুচি , কাঁচামরিচ ও পুদিনা পাতা কুচি দিয়ে পরিবেশন করুন।     

দইয়ের শরবত

দইয়ের শরবত

দইয়ের শরবত

উপকরনঃ টক / মিষ্টি দই ৫০০ গ্রাম, গুড়ো দুধ ১ কাপ, চিনি পরিমাণমত, বাদামকুচি ৮/১০টি , বরফ কুঁচি৩/৪ টুকরা, পানি পরিমাণমত, পুদিনা পাতা সাজানোর জন্য ।

প্রণালী : প্রথমে একটি বাটিতে গুড়ো দুধ, চিনি ও পরিমাণ মতো পানি দিয়ে প্রায় ১০ মিনিট গলিয়ে রাখতে হবে। তারপর ব্লেন্ডারে একে একে মিষ্টি / টক দই, আগে থেকে গলানো দুধ ও চিনি, পানি, বাদাম কুচি দিয়ে কিছুক্ষণ ব্লেন্ড করে শেষে বরফ কুঁচি দিয়ে আরেকবার ব্লেন্ড করে নিতে হবে। তৈরি হয়ে গেল মজাদার মিষ্টি / টক দই এর ঠান্ডা শরবত । পুদিনা পাতা দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন (কেউ বরফ না খেতে চাইলে বরফ ছাড়াও এই লাচ্ছি তৈরি করা যেতে পারে)।

                                                                      

pranerbanglaA1H11

বেলের শরবত

বেলের শরবত

উপকরনঃ বেল- ১টা, দুধ- আধা কাপ,পানি- ৪ কাপ,চিনি- পরিমাণ মতো।
প্রণালী: প্রথমে বেল ফাটিয়ে নিতে হবে।চামচ দিয়ে চেঁছে সব বেলকাই বের করে নিতে হবে । সামান্য পানি যোগে হাত দিয়ে মাখিয়ে নরম করে নিন । চাবা গুলো এভাবে বের করে ফেলে দিন। এখানে লক্ষ রাখবেন বেলের বিচি যেন না থেতলে যায়। বিচি থেতে গেলে কিছুটা তিতা ভাব এসে যাবে। তাই ব্যাপারটা মোলায়েম করেই করুন।এবার ঠান্ডা পানি যোগ করুন কিংবা নর্মাল পানি দিয়ে ফ্রীজে কিছু সময়ের জন্য রেখে দিন। এই পর্যায়ে তরল দুধ যোগ করতে পারেন । এবার চিনি দিয়ে মিশিয়ে ভালো করে মিশিয়ে পরিবেশন করুন।

চিড়া ও মুড়ি যুগলবন্দী শরবত

চিড়া ও মুড়ি যুগলবন্দী শরবত

 চিড়া ও মুড়ি যুগলবন্দী শরবত                                                                         
উপকরনঃ চিড়া ১ কাপ , মুড়ি ১ কাপ , তরল দুধ ১ কাপ , পানি ১ কাপ , লবণ ১ চিমটি, লেবুর রস ১/২ চা চামচ , চিনি স্বাদ মতো ।
প্রণালী: চিড়া ও মুড়ি ভালো করে পানি দিয়ে ধুয়ে ভিজিয়ে রাখতে হবে ৫-১০ মিনিট । এবার সব উপকরণ একসাথে মিশিয়ে নিলেই শরবত তৈরি ।
এই গ্রীষ্মে সুস্থ ও সতেজ থাকার ক্ষেত্রে একটি উপাদেয় পানীয়
১। চিড়ায় আঁশের পরিমাণ অনেক কম থাকে যা ডায়রিয়া, ক্রন’স ডিজিজ, আলসারেটিভ কোলাইটিস, অন্ত্রের প্রদাহ এবং ডাইভারটিকুলাইসিস রোগ প্রতিরোধে চিড়া খাওয়ার উপকারিতা অনেক।
২। চিড়ায় পটাসিয়াম এবং সোডিয়ামের পরিমাণ কম থাকার জন্য কিডনি রোগীদের ক্ষেত্রে চিড়া খাওয়ার উপকারিতা অনেক।
৩। মুড়িতে ২৪ ক্যালরি, ০.৯১ গ্রাম ফ্যাট, ৪০.১৮ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট ও ১.৮২ গ্রাম প্রোটিন থাকে।
উপকারিতা
» বেলে আছে ভিটামিন সি । ভিটামিন সি গ্রীষ্মকালীন বহু রোগ বালাইকে দূরে রাখে।
» বেল পেট ঠাণ্ডা রাখে। গরমের সময় পরিশ্রম করার পর বেলের সরবত খেলে ক্লান্তি ভাব দূর হয় ।
» নিয়মিত বেল খেলে কোলন ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা কমে যায় ।
» টক দই শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে | তাই গ্রীষ্মকালে টক দই খেলে ভালো ।
» ডায়বেটিস, হার্টের অসুখ এর রোগীরা নিয়মিত টক দই খেলে এসব অসুখ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন ।
» দইয়ের ব্যাকটেরিয়া হজমে সহায়ক| তাই এটি পাকস্থলীর ও জ্বালাপোড়া কমাতে বা হজমের সমস্যা কমাতে সাহায্য করে|।
» পুরনো তেঁতুল খেলে কাশি সারে।পাকা তেতুল খেলে কাশি সারে ।
» তেঁতুল দেহে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে রাখতে সাহায্য করে ।
» তেঁতুলে খাদ্যশক্তির পরিমান নারিকেল ও খেজুর ছাড়া সব ফলের চেয়ে বেশি।
অসিত কর্মকার  সুজন