মৃদুলের ফোর ডি…

pranerbanglaA14dmমোস্তাফিজুর রহমান মৃদুল। ছেলেবেলা থেকেই  সৃস্টিশীল কাজের দিকেই তার নেশা। আর তাই চারুকলাতেই নাম লেখালেন। ২০০৭ সালে যখন চারুকলার ছাত্র  তখন থেকেই  ভাবনা নিজের পছন্দের কিছু করা। ব্যাগের প্রতি দুর্বলতা তার বরাবর। তাই ব্যাগ নিয়েই গবেষণার শুরু। সেখান থেকেই তার আজকের ব্যবসা প্রতিস্ঠান ‘ফোর ডি’। চামড়া, পাট ও ক্যনভাস দিয়ে তৈরী রকমারী এই ব্যাগ ইতিমধ্যে ঢাকা এবং ঢাকার বাইরেও বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।আজিজ সুপার মার্কেটে  ছোট পরিসরে শুরু করলেও এখন এর ডালপালা ছড়িয়েছে। বেইলে রোডেও রয়েছে এখন‘ ফোর ডি ’এর দ্বিতীয় শাখা। ফ্যাক্টরীর পরিসরও বেড়েছে। এখন ওখানে কাজ করছে প্রায় বিশ থেকে পঁচিশ জন কর্মচারি। প্রতি মাসে তারা বাজারে আনছে ৪/৫ টা নতুন ডিজাইনের ব্যাগ। সব ধরণের  মানুষের কথা মাথায় রেখেই বিভিন্ন ধরনের ব্যাগ তেরী হয় এখানে।  দেশের বাইরে সামান্য কিছু  ব্যাগ গেলেও এখন সে মাত্রাটা বাড়ানোর পরিকল্পনা আছে ‘ ফোর ডি’র।paranerbanglaA14d11

নিজের প্রতিস্ঠান সর্ম্পকে বলতে গিয়ে মৃদুল বলেন্‌,‘ আমি আমার  বাংলাদেশকে নিজের মধ্যে ধারণ করি বলেই চাই বিদেশে নিজের দেশের দেশীয় সামগ্রীর তৈরী ব্যাগ উপস্থাপন করতে। শুরুও করেছি।আমি চামড়া, পাট, ক্যানভাস নিয়ে কাজ করছি। এ মেট্রিয়াল গুলো আমাদের দেশেই পাওয়া য়ায়। বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে বিদেশী ফেব্রিকস ব্যবহার করি, তবে খুব কম।?’

ব্যবসার পাশাপাশি মৃদুল ইন্ডিপেন্ডন্ট ইউনিভার্সিটিতে পার্টটাইম শিক্ষকতা করেন। তাছাড়াও তার রয়েছে ইন্টোরিয়োর ফার্ম। মৃদুলের বলেন, ‘বাংলাদেশে চাকুরির ক্ষেত্রে দেখা যায় পড়াশোনার সঙ্গে চাকুরীর কোন সম্পর্ক নেই। ইংরেজী সাহিত্যে পড়েও অনেকে ব্যাংকে চাকুরি করে।’ এ বিষয়টা তার কাছে কেমন যেন মনে হয়। বলেন,‘ এ ক্ষেত্রে  পড়াশোনাটাতো তার কাজের সাহায্য করছে না। আমি সিরামিকসে পড়াশোনা করেছি। সব সময নকশা করে আনন্দ পাই। সেই বিষয়টাকেই পেশা হিসেবে নিয়েছি।আমার কাজের মধ্যেই আমি নিজের মেধার বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে পারছি।এতে মেধার ওপর নির্ভরতাও বাড়ছে। আমার নকশা করা পণ্যের চাহিদারই উপরই এর প্রতিফলন ঘটে। আমি আমার পেশা নিয়ে খুবই সন্তুস্ট।’

আগামীতে নিজের প্রতিস্ঠান নিয়ে কি ভাছেন জানতে চাইলে বলেন,‘আসলে  এখনও তেমন ভাবে কিছুই ভাবি নাই। আমি আমার কাজকে ভালোবাসি এখন পর্যন্ত  কাজই করে যাচ্ছি। তবে আমাদের এমন একটা দেশ যেখানে কাজ করার  অনেক সুযোগ এবং মাধ্যম আছে।কাজের ক্ষেত্রে  অনেস্ট থাকলে এবং নিস্ঠার সঙ্গে কাজ করলে  সাফল্য আপনার আসবেই।’

pranerbanglaA14daa