ধবলধোলাই

আহসান শামীমঃ ধবলধোলাই দিয়ে শুরু আর ধবলধোলাই দিয়েই সফর শেষ করল টিম বাংলাদেশ। সিরিজ হারের হাট্রিক। টেষ্ট, ওয়ান ডে, টি টুয়েন্টি -মুশফিক, মাশরাফি আর সাকিব মাথা নিচু করেই দক্ষিন আফ্রিকা থেকে ফিরেছেন। পেছনে রেখে আসছেন লজ্জার রেকর্ড।মুশফিকের আঙ্গুল টিম ম্যানেজমেন্টের দিকে। মাশরাফির চোখে ভয়াবহ বিপদ সংকেত ক্রিকেট বাংলাদেশের জন্য আর সাকিবের বলেছেন, টেস্টের বড় ব্যবধানের হারের ভাইরাস ছড়িয়েছে ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি সিরিজে।লড়াইয়ের চেতনার অভাব পোড়াচ্ছে সাকিবকে।

তিন ধরণের ফর্মেটে তিন অধিনায়কত্বের প্রথার শুরু ইংলিশদের হাত ধরে। এরপর পাকিস্তান । পরে ভারত সহ অন্যান্য দল শুরু করলেও সবাই আবার ফিরে এসেছে তিন অধিনায়কত্ব থেকে। যখন সবাই শেষ করলো তখন সাকিবের হাত ধরে বাংলাদেশ ক্রিকেটে দক্ষিন আফ্রিকার বিপক্ষে টি টুয়েন্টি সিরিজে পরিত্যোক্ত সেই প্রথার অভিষেক হলো।

ছয় বছর পর অধিনায়কত্বে ফিরে ,আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ৯৮  ম্যাচ খেলে ৪০ ম্যাচে হারের স্বাদ পেয়েছিলেন শহীদ আফ্রিদি। বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব ৬০ ম্যাচ খেলেই ছুঁয়েছেন তাকে।টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশের বোলিং পারফর্মেন্স খুব একটা গর্ব করার মত না। গত দুই বছরে মিতব্যয়ী বোলিংয়ের ক্ষেত্রে আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ডের পেছনে বাংলাদেশের অবস্থান।মিতব্যয়ী বোলিংয়ের ক্ষেত্রে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছে ভারত ও পাকিস্তান দল। গত দুই মৌসুমে ছোট ফরম্যাটের ক্রিকেটে ওভার প্রতি মাত্র ৭.১৮ রান খরচা করেছে কোহলির ভারত।ওভার প্রতি মাত্র ৭.২৯ রান খরচা করেছে দ্বিতীয় স্থানে থাকা পাকিস্তানিরা। এর পরেই নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের অবস্থান। আফগানিস্তান, আয়ারল্যান্ডের পর সপ্তম অবস্থানে আছে বাংলাদেশ।

রোববার দক্ষিন আফ্রিকার বিপক্ষে ডেভিড মিলারের, ৯ ছক্কা ৭ চারে মাত্র ৩৬ বলে ১০১ রানে অপরাজিত বিশ্বরেকর্ডে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ২২৪ রানের পাহাড়সম সংগ্রহ দাঁড়া করায় প্রোটিয়ারা।জবাবে ১৪৪ রানে করতেই ১০ উইকেটের পতন বাংলাদেশের। কোচ হাতুড়াসিংহের পছন্দের খেলোয়াড় পেসার তাসকিন পুরো সিরিজে পেয়েছেন মাত্র ২ উইকেট।

নাকানিচুবানির দক্ষিন আফ্রিকার সফরে বাংলাদেশের একমাত্র আবিষ্কার অলরাউন্ডার পেসার সালাউদ্দিন। যদিও রোববার শেষ টি টুয়েন্টিতে তাঁর শেষ ওভারের পাঁচ বলে মিলার হাঁকিয়েছেন পাঁচ ছক্কা।

ছবিঃ গুগল