লাল সালাম কমরেড অনীশ লোধ

শীলা চৌধুরী

ফেইসবুক এর গরম আড্ডা চালাতে পারেন প্রাণের বাংলার পাতায়। আমারা তো চাই আপনারা সকাল সন্ধ্যা তুমুল তর্কে ভরিয়ে তুলুন আমাদের ফেইসবুক বিভাগ । আমারা এই বিভাগে ফেইসবুক এ প্রকাশিত বিভিন্ন আলোচিত পোস্ট শেয়ার করবো । আপানারাও সরাসরি লিখতে পারেন এই বিভাগে। প্রকাশ করতে পারেন আপনাদের তীব্র প্রতিক্রিয়া।

৬ অক্টোবর বিকেলে অনীশ এসে ডাকাডাকি শুরু করে দিয়েছে…!
কাকিমা চলো এখ্খুনি..ঋষি অরবিন্দ স্কুলের সামনে ক্ষুদিরাম বসুর ভাস্কর্যের সামনে ! আমরা সাজাবো ?
জানতে চাইলাম – বাবা কি সাজাবো , কিসের উদ্দেশ্যে ? অনীশ চেঁচিয়ে উঠলো. …এম্মা তুমি জানো নাহ..!!!
কাল কমুনিষ্ট পার্টির বিপ্লবের একশো বছর পূর্তি গো..!
হেসে বল্লাম …নাতো বাবা…জানিনা তো !!!

আনীশ…হ্যাঁ, অনীশ লোধ…দশম শ্রেণির ছাত্র, পিতৃহীন। মা অন্যের বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করে দুই সন্তানকে মানুষ করতেছেন ।অনীশ নিজে ভোর ছয় টায় ডায়মন্ড প্লাজা শপিং মলে প্রতিদিন এগারোটা গাড়ি সাফসুতরো করে মাসে এক হাজার টাকা রোজগার করে নিজের পড়ালেখার খরচ চালায় ।খুব ভালো ফুটবল খেলোয়াড়. ..কলকাতার যেখানেই ইষ্টবেঙ্গলের খেলা হবে সেই মাঠেই পৌঁছে যাবে ।প্রিয় দল হেরে গেলে চোখ মুছতে মুছতে ঘরে ফিরবে…?
সেই অনীশ নাকি পাড়ায় যতবার কমিউনিস্ট পার্টির কোন সভা বা কর্মসূচী থাকে তাতে ছোট্টবেলা থেকেই সেখানে শুধু উপস্থিতই থাকে না পতাকা লাগানো, পোষ্টার লাগানো, থেকে সব ধরনের কাজেই থাকবে ।আমি এই পাড়ায় এসেছি দশ মাস হলো । তাই অনীশের পার্টির কাজে সেই ছোট্ট বেলা থেকেই এমন নির্লোভ আন্তরিক ভালোবাসার কথা পাড়ায় খোদ বিজেপি, তৃণমূলের লোকের মুখেও প্রশংসিত জানতে পারি ।তার কাছে কমিউনিস্ট পার্টি মানে হলো
” খেটে খাওয়া গরিব মেহনতি মানুষের পার্টি ”
ব্যাস্ ….এর বাইরে সে বুঝে ও না কিছু, বুঝতে চায় ও না সে এই মুহূর্তে. .।
আমি নতজানু এই ছোট্ট মাথার ছোট্ট কমরেড অনীশ লোধের কাছে….।
কুর্নিশ এই মেহনতি ছোট্ট কমরেড অনীশ লোধ কে।
গতকাল স্কুলের পরে মাঠে ফুটবল না খেলতে গিয়ে বিকেল থেকে আমাদের সঙ্গে রাতের মায়ের খাবার খেতে যাবার ডাক উপেক্ষা করে কাজ করে গিয়েছে মধ্যরাত পর্যন্ত ।
আজ সকাল আটটায় স্কুল ব্যাগ কাঁধে করে এসে নীচ থেকে গলা ফাটিয়ে ডেকে যাচ্ছিল. ..
কাকিমা চলো. ..ন’ টায় পার্টির পতাকা উত্তোলন করবো তাড়াতাড়ি চলো….
….পতাকা উত্তোলন শেষে অনীশ আশেপাশে কাত হয়ে যাওয়া লাল পতাকা গুলোকে পরম আদরে সোজা করে দিয়ে শক্ত করে বেঁধে দিয়ে এসে একগাল প্রশান্তির হাসি হেসে সবাইকে বল্লো. …কমরেডগন ,
এবার স্কুলে যেতে হবে আমাকে……..”

লাল সালাম কমরেড অনীশ লোধ ।
আগামীর বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক এই অনীশদের হাত ধরেই. …

ছবি: লেখক