বারো বছর পর ‘নিত্য পুরাণ’

১০ ও ১১ নভেম্বর শুক্র ও শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় শিল্পকলা একাডেমিতে আসছে দেশ নাটকের অন্যতম প্রযোজনা ‘নিত্যপুরাণ’। ‘নিত্যপুরাণ’ নাটকের প্রধান চরিত্র ‘একলব্য’ হয়ে অভিনয় করতেন অকাল প্রয়াত দিলীপ চক্রবর্তী। ২০১২ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর না ফেরার দেশে চলে যান দিলীপ চক্রবর্তী। মূলত তার অনুপস্থিতির কারণেই শেষ পাঁচ বছর নাটকটি মঞ্চায়ন করা সম্ভব হয়নি। তাই এক যুগ পর আবার মঞ্চে নতুন আবহে মঞ্চায়িত হচ্ছে বলে জানান নির্দেশক নাট্যজন মাসুম রেজা। সে সঙ্গে নাটকটির ‘একলব্য’সহ পুরনো চরিত্রগুলোতে বেশিরভাগ নতুন মুখ নিয়ে মঞ্চে হাজির হচ্ছে দলটি। কেবল ‘দ্রৌপদী’ চরিত্রে এবারও অভিনয় করছেন বন্যা মির্জা।

তবে একলব্য চরিত্রে এবার কে অভিনয় করছেন সে প্রসঙ্গে মাসুম রেজা বলেন, ‘এ নামটি আমি আনুষ্ঠানিকভাবে শুক্রবার (১০ নভেম্বর) শো শুরুর আগে সবার সামনে বলতে চাই। আমাদের নতুন দিলীপ চক্রবর্তীকে পরিচয় করিয়ে দিতে চাই।’

‘নিত্যপুরাণ’র রচয়িতা-নির্দেশক মাসুম রেজা আরও বলেন, ‘প্রথমত এ নাটকটি একটা সময় অনেক জনপ্রিয় ছিল। এমন অনেক দর্শক আছেন যারা ২০ থেকে ৩০ বারও আমাদের শো দেখেছেন। সেই মানুষগুলোই আমাকে তাগিদ দিয়ে আসছিলেন এত বছর। এরপর ২০১২ সালে দিলীপ যখন মারা গেল তখন আমরা ভেবে নিয়েছি- এ নাটক আর মঞ্চে তোলা কখনও সম্ভব নয়। কারণ ওর মতো শক্তিমান অভিনেতা কিংবা একলব্য চরিত্রে অভিনয় করার মতো মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। যাইহোক এসব দ্বিধাদ্বন্দ্ব নিয়ে দিলীপের শেষ মৃত্যুবার্ষিকীতে আমরা মনে শক্তি যোগাই। সিদ্ধান্ত নিই, তাকে স্মরণ করে হলেও নাটকটি ফের মঞ্চে আনা প্রয়োজন।’

প্রসঙ্গত, টানা ৮৬টি প্রদর্শনীর পর ‘নিত্যপুরাণ’ এর মঞ্চায়ন স্থগিত করা হয়। ২০০১ সালের ১৪ জানুয়ারি রাজধানীর বেইলি রোডের মহিলা সমিতি মঞ্চে নাটকটির প্রথম প্রদর্শনী হয়। ২০০৫ সালে ৮৬তম মঞ্চায়নের পরে আর মঞ্চস্থ হয়নি নাটকটি।

বিনোদন ডেস্ক

ছবি: গুগল