হাতুড়াসিংহে শ্রীলঙ্কা দলের দায়িত্ব নিচ্ছেন

আহসান শামীমঃ গেল ৫ নভেম্বর সদ্য পদত্যাগ করা জাতীয় দলের হেড কোচ হাতুড়াসিংহের ঢাকা আসার কথা ছিল। আসেননি তিনি। কবে আসবেন সেটাও এখন অনিশ্চিত। বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান শনিবারও সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে জানান দুই একদিনের মধ্যেই চলে আসবেন হাতুড়াসিংহ।

আর ঢাকায় আসার পর তাঁকে শ্রীলঙ্কা সিরিজ পর্যন্ত থাকার অনুরোধ করবে বিসিবি বলে অভিহিত করেন এই বিসিবি কর্মকর্তা। আকরামের ভাষ্য অনুসারে দুই একদিনের মধ্যে হাতুড়াসিংহের ঢাকায় এসে বিসিবির সাথে আলোচনা করার কথা। সেখানেই তাকে পদত্যাগ পত্র প্রত্যাহার করে থেকে যাবার অনুরাধ করার কথা বিসিবির ।আর  সেটা না হলে অগত্যা শ্রীলঙ্কা সিরিজ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করতে অনুরোধ করবে।

অবশ্য বিসিবির এমন আশা অনেকটাই নিরাশায় পরিনত হতে যাচ্ছে। মৌখিকভাবে শ্রীলঙ্কার কোচ হতে সম্মতি দিয়েছেন হাথুরুসিংহে। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের (এসএলসি) এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ক্রিকবাজ ও ক্রিকইনফো জানিয়েছে, আগামী সপ্তাহে চুক্তিপত্রে সই করবেন তিনি।এতে করে  হাতুড়াসিংহ শ্রীলঙ্কায় তার মিশন শুরুই করবেন বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে।ঢাকায় আসার কোন সৌজন্যতা আপাতত তাঁর মধ্য নেই বলা যায়।

দক্ষিন আফ্রিকা সফরের এর মাঝেই তিনি ইমেইল বার্তায় বাংলাদেশের হেড কোচের দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ পত্র বিসিবির সভাপতি বরাবর পাঠান।আর তারপর থেকে তিনি তাঁর ওয়েব সাইট থেকে বাংলাদেশ দল ও তাঁর ছবি মুছে ফেলেন।পদত্যাগ পত্র পাঠিয়েই তিনি বিসিবির সাথে যোগাযোগও বন্ধ করে দেন।কিছুদিন আগে আগে তাঁর সঙ্গে বিসিবির কর্তাব্যাক্তিদের যোগাযোগ হলে তিনি বিসিবি‘র সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে রাজী হন। কথা দেন ১৫ নভেম্বরের মধ্যে ঢাকায় ফিরবেন। শেষ পর্যন্ত তিনি তাঁর কথার বরখেলাপ করলেন।জানুয়ারিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হোম সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ।আর সেখানেই মোকাবিলা হবে হাতুড়াসিংহের সাথে বাংলাদেশের।

হাতুড়া ছাড়া বাংলাদেশের আপৎকালীন কোচ হতে পারেন সুজন ।বিসিবির ইচ্ছা উপমহাদেশের কাউকে টাইগারদের জন্য কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়ার। উপমহাদেশের বাইরে আর একজন সফল ও হাই প্রোফাইল কোচের দিকেও চোখ পড়েছে বিসিবির। তিনি অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার। জিম্বাবুয়ের সাবেক অধিনায়ক ও জিম্বাবুইয়ান ক্রিকেট ইতিহাসের সফলতম ব্যাটসম্যান।বোর্ডের নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশ জাতীয় দলের পরবর্তী হেড কোচের সম্ভাব্য তালিকায় অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের নাম আছে। বোর্ড তার সাথে যোগাযোগের চেষ্টাও করছে।

অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের কোচিংয়েই ২০১০ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে বিশ্ব টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয় ইংল্যান্ড। এছাড়া অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার কোচ থাকাকালীন, ২০১১ সালে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে অনুষ্ঠিত অ্যাসেজে অজিদের ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ হারায় ইংলিশরা।যদি  সমালোচকদের মতে, অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারেরও নাকি হাথুরুসিংহের মত খবরদারি ও নজরদারির প্রবণতা আছে। এ জিম্বাবুইয়ান নানারকম প্রস্তাব ও দাবি দাওয়া দিয়েই ইংল্যান্ডের প্রধান কোচের দায়িত্ব নিয়েছিলেন।

ছবিঃ গুগল