পেস্ট নিয়ে পাল্টাপাল্টি

টুথপেস্ট মহা ঝামেলা বাঁধিয়েছে। আসলে অরগানিক এই টুথপেস্টের কোনো দোষ নেই সে হয়তো দাঁত পরিস্কারের কাজে খুবই ভালো। কিন্তু সংকট তৈরী করেছে পেস্টের বিজ্ঞাপন। ইংল্যান্ডে বিওসিএ নামে এক কোম্পানী এই নতুন টুথপেস্ট বাজারে এনেছে।সিঙ্গে মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে পেস্টের বিজ্ঞাপন।সেখানে ক্রেতাদের পেস্ট কেনায় আকূল করতে কোম্পানী এক নগ্ন নারীর ছবি ব্যবহার করেছে যার হাতে ধরা সেই পেস্টের টিউব। আর এতেই হিতে বিপরীত হয়েছে। অকারণ আশ্লীলতা ছড়ানোর অভিযোগ উঠেছে ক্রেতাদের পক্ষ থেকে। তারা বলছেন, ইংল্যান্ডের টাইমস পত্রিকার ম্যাগাজিনে সম্প্রতি ছাপা হওয়া পেস্টের এই আপত্তিকর বিজ্ঞাপনে খামোখাই নারীর উন্মোচীত শরীর ব্যবহার করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপনে একটি মেয়েকে দেখা গেছে শুধু হাই হিল জুতা পড়ে চেয়ারে বসে আছে। কিন্তু পেস্ট কোম্পানী তাদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ মানতে নারাজ। তারা ব্যাখ্যা দিচ্ছে গোটা ব্যাপারটাই শালীনতার মধ্যে আছে কারণ বিজ্ঞাপনের মডেল সম্পূর্ণ নগ্ন নয়। তারা এমন কথাও বলেছে বিজ্ঞাপনে তারা ভেষজ উপাদানের কমনীয়তা বোঝাতে নারীর শরীরকে ব্যবহার করেছে। অবশ্য সে দেশের বিজ্ঞাপনের মান নিয়ন্ত্রণ কমিটি পেস্ট কোম্পানীর ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট হতে পারেনি। তারা এই বিজ্ঞাপন প্রকাশে ‘না’ জানিয়ে দিয়েছে।

পেস্ট কোম্পানী অবশ্য তাদের বিজ্ঞাপন ছাড় করানোর জন্য দেনদরবার চালিয়েই যাচ্ছে। তারা বোঝাতে চাচ্ছে নারী মডেলের ছবি তারা ব্যবহার করেছে ঠিকই কিন্তু সেখানে যৌনতা ছড়ানো মূখ্য বিষয় ছিলো না।তারা চেয়েছিলেন একধরণের নিবিড়তা, কমনীয়তা প্রকাশ করতে যেটা পেস্টের সঙ্গে মিলে যায়। কোম্পানীর পক্ষে এসে দাঁড়িয়েছে টাইমস পত্রিকাও। তারাও বলছে, বিজ্ঞাপনটি অতটা অশ্লীল নয় যতটা অভিযোগ করা হচ্ছে। কিন্তু মান নিয়ন্ত্রকরা বলছেন, ছবিতে মডেলের মুখ না দেখিয়ে দর্শককে তার শরীর দেখতে বাধ্য করা হচ্ছে। এখানে টুথপেস্ট হারিয়ে গেছে। অতএব বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ। আর কখনোই বিজ্ঞাপনটি এভাবে প্রকাশ করা যাবে না।

রিয়াজ হোসেন

তথ্যসূত্রঃ হাফিংটন পোস্ট

ছবিঃ ইন্ডিপেন্ডেন্ট