অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের না

আহসান শামীমঃ চন্ডিকা হাথুরাসিংহের আচমকা বিদায়ে একরকম খালিই পরে আছে বাংলাদেশের কোচের পদ। অন্তর্বর্তীকালীন কোচ হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজনকে।এদিকে বিসিবিও ব্যাস্ত নতুন কোচের সন্ধানে।জানা গেছে ইতিমধ্যে কয়েকজন অভিজ্ঞ কোচের সাথেও কথা বলেছে তারা। প্রথম পছন্দের ছিলেন জিম্বাবুয়ের  সাবেক অধিনায়ক এবং বর্তমানে ইংল্যান্ড কোচের দায়িত্ব পালন করা অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার ।অবশ্য  বিসিবির প্রস্তাব এরই মাঝে ফিরিয়েও দিয়েছেন এই জিম্বাবুইয়ান।

দায়িত্ব থেকে পদত্যাগের পর হাতুড়াসিংহের সঙ্গে শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ডের চুক্তি নিয়ে আইনী সমস্যার কথা জানিয়েছেন সেখানকার আইনজীবীরা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ছাড়পত্র ছাড়া শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে তিনি চুক্তি করতে পারছেন না। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন পরিস্কার জানিয়েছেন চুক্তির বিধি মেনেই সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতির চিঠি আর ব্যাক্তিগত ফোন কোনটাতেই কাবু হননি তিনি।  বিসিবি বোর্ড সদস্যরা চুক্তির শর্ত মেনেই তাকে ছাড়পত্র দেওয়ার পক্ষে।ডিসেম্বর মাসে বোর্ডের সভা হওয়ার কথা । সূত্র মতে হাতুড়াসিংহকে ছাড়পত্র পেতে ১৫ জানুয়ারী পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। গুনতে হতে পারে জরিমানাও।

এদিকে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বাংলাদেশ দলের পারফর্মেন্সের রিপোর্ট এখনো হাতে পায়নি বিসিবি। দায়িত্ব ছেড়ে দিলেও দ্রুত বিসিবির হাতে রিপোর্ট জমা দেবেন হাথুরাসিংহ। এমন খবর জানিয়েছেন নিজামউদ্দিন চৌধুরী।

বাংলাদেশে হাথুরাসিংহের বাংলাদেশের মাসিক বেতন ছিল ২১ লাখ ৭৩ হাজার টাকা, যা ডলারে হিসাব করলে ২৫ হাজার ৮০০ ডলার। বছরে তার আয় ছিল দুই কোটি ৬০ লাভ টাকা।এখন তিনি তিন গুন পারিশ্রমিকের বিনিময় শ্রীলংকার কোচ হচ্ছেন। লঙ্কান দলের কোচের পারিশ্রমিকের ইতিহাস গড়বেন তিনি। এর আগে এত বেতনে চাকরি দেওয়ার নজির নেই লঙ্কানদের।সেই সঙ্গে বিসিবির কাছে জরিমানার টাকাও গুনতে হবে শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ডের।কোচের পারিশ্রমিক হিসাবে বাংলাদেশে যে অর্থ হাতুড়াসিংহ পেতেন তা ছিল বিশ্বের চতুর্থ পারিশ্রমিক প্রাপ্ত কোচ।আর এখন শ্রীলংকার সাথে যে অঙ্কের চুক্তি হতে যাচ্ছে তাতে তিনি ভারতের কোচের পর সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক প্রাপ্ত কোচ হতে যাচ্ছেন।

এদিকে এন্ডি ফ্লাওয়ার জানিয়েছেন ইংল্যান্ডের কোচ হিসেবেই আপাতত সন্তুষ্ট রয়েছেন তিনি। বিসিবির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেও তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ব্যক্ত করেছেন ফ্লাওয়ার। এখনই টাইগারদের কোচ হওয়ার উপযুক্ত সময় আসেনি বলে মনে করেন এই সাবেক অধিনায়ক ও ইংল্যান্ডের কোচ।

বিসিবি সূত্র জানান অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের না বলার পর এই উপমহাদেশের কেউ হতে পারেন টাইগাদের পরবর্তী কোচ । নতুন কোচ সন্ধানে বিসিবি খুবই গোপনীয়তা রক্ষা করায় নতুন কোন নাম জানা বেশ দুষ্কর।অন্যদিকে, আলোচিত সমালোচিত কোচ চণ্ডিকা হাথুড়াসিংহ না থাকলেও বাকি কোচিং স্টাফে ভরসা রাখছে বিসিবি।যদিও তার সময়ে কোচিং স্টাফদের মধ্যে বেশিরভাগই হাথুড়াসিংহের সুপারিশে চাকরি পেয়েছেন। বর্তমানে বাংলাদেশ দলের ফিটনেস ট্রেনার ও কন্ডিশনিং কোচের দায়িত্ব পালন করছেন লঙ্কান মারিও ভিল্লাভারায়ান।শ্রীলংকান বংশোদ্ভুত ৩৭ বছর বয়সী অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক থিহান চন্দ্রমোহন আছেন ফিজিওর দায়িত্বে। মাঝখানে এক বছর ব্যাটিং কোচ পদে ছিলেন আরেক লঙ্কান থিলান সামারাবিরা। রুয়ান কালপাগে, এই লঙ্কান স্পিন বোলিং কোচও বিসিবির চাকরি করেছিলেন।প্রধান কোচ পদে হাথুরাসিংহ না থাকলে বর্তমান কোচিং স্টাফদের কেউ চলে গেলেও ভিন্ন পরিকল্পনা করে রেখেছে বিসিবি। বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন জানিয়েছেন, ‘এখন আমাদের যে টিম ম্যানেজমেন্ট আছে তারমধ্যে শুধুমাত্র একজন শ্রীলঙ্কান সরাসরি চন্ডিকার সুপারিশে এসেছেন। অন্য সবাইকে কিন্তু বোর্ড যোগাযোগ করে এনেছে। এটা নিয়ে খুব একটা অসুবিধা হবে না। যদি কোন অসুবিধা হয় তবে বিষয়টা আমরা সামলাবো।’

ছবিঃ গুগল