প্রেম ভাঙ্গছে কেন?

ভালোবাসা কোথায় ঘুমায়, কোথায় খায়, কোথায় বা কাঁদে মুখ গুঁজে? অনেক অনেক দিন আগে হলে বলা যেত ভালোবাসা বুকের বাঁ দিকে ঘুমায়, নদীর পাশে শুয়ে থাকে। পথের পাশে দাঁড়িয়ে অভিমানে কাঁদে। এখন ভালোবাসার এতো রকম বাহানা কেউ কি মেনে নেবে? রকেটের মতো দ্রুতগামী সময় এখন। অস্থির সময়, অস্থির মনের ঘরও। প্রেমের বদল যেন অনেকটা বাসা বদলের নোটিশ দেয়ার মতো। এক মাসে নোটিশ পড়লে অন্য মাসে ভাড়াটে বদল। কিন্তু তারপরেও ভালোবাসা বুকের গভীরে এসে ঘর তৈরী করে। আবার সে ঘর ভাঙ্গেও। তরুণ বয়সের প্রেম ঝাঁঝালো রোদে ঘুরিয়ে মারে রাস্তাঘাটে। কারও জন্য সময় কাটে অস্থিরতায়। সে  যন্ত্রণার কোন নাম নেই। তারপর? তারপর সে প্রেম ভেঙ্গেও যায়।
মনের ডাক্তাররা বলেন, প্রেম বলে আসলে তো কিছু নেই। সবই মস্তিষ্কের খেলা। ডাক্তাররা বলেন, প্রেমে পড়ার অনুভূতি কোকেইন নেয়ার পর মস্তিষ্কের অনুভূতির সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে। তাহলে প্রেম ভেঙ্গে যাওয়ার অনুভূতি কেমন? মনের ঘরের জানালা-কপাট কি ঝড়ের আগাম ইঙ্গিত বুঝিয়ে দেয়? ভালোবাসার মানুষটির একটু একটু করে সরে যাওয়ার দাগ মনের নরম জমিনের ওপর থেকে যায়? আসুন দেখি মনোবিজ্ঞানীরা কী বলেন?ha ha ha 066

# বুঝতে চেষ্টা করুন সামনে কফির কাপ নিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকা মানুষটি কি আপনার অনুভূতির সঠিক মূল্য করছেন? নাকি দিনের পর দিন সাজানো কথার পাহাড় তৈরী করছে খামোখাই। এরকম অন্যমনষ্কতা টের পেলে সঙ্গীকে ভালোভাবে বোঝার চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে খোলামেলা কথা বলুন।

# কখনো লক্ষ্য করেছেন কি আপনার পাশে হেঁটে যাওয়া মানুষটি আজকাল শুধুই আপনার পোশাক আর সৌন্দর্যের প্রশংসা করছে? এরকম ঘটতে থাকলে আপনার সাবধান হওয়ার সময় এসেছে।

# কাছের বনধুরা অনেক সময় ভালোবাসার শত্রু হয়ে দেখা দেয়। দুজনের রিলেশনের বাইরে অন্য অনেক মানুষের কথা ঢুকে পড়লে ভুল বোঝাবুঝির সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়। বনধুদের মাঝে কেউ হয়তো আপনাদের সর্ম্পকের ভুলগুলো চিহ্নিত করতে চাইছে আপনাকে ভালোবেসে। কিন্তু আপনি কি বুকে হাত রেখে বলতে পারেন তাদের মধ্যে ঈর্ষার শিকার হয়নি কেউ?

# একটা বিষয় খেয়াল রাখতে হবে,ভুল বোঝাবুঝির ভয়ে বনধুদের সরিয়ে দিলেও সংকট কাটবে না।বুঝে শুনে সত্যিকার দু একজন বনধুকে সবসময় কাছে রাখতে হবে। সঠিক বনধু ছাড়া কিন্তু ভালোবাসা পথ চলতে পারে না।

# নিজের কথা, নিজের পছন্দগুলো জোর গলায় বলতে শিখতে হবে। সাবালক হতে হবে আপনাকে।ভালোবাসা যেমন সব দিয়ে দেয়ার দাবি রাখে, তেমনি নিজের জায়গাটুকুও শক্ত করে চিহ্নিত করে দিতে হয়। কথা বলতে হবে খোলামেলা ভাবে ভালোবাসার মানুষের সঙ্গে।

# তারুণ্যের ভালোবাসায় অনেক উল্টোপাল্টা হাওয়ার খেলা থাকে। আপনার জীবনেও তাই আছে। তরুণ বয়সের প্রেম লম্বা রেসের ঘোড়া নয় কখনোই। কমিটমেন্ট শব্দটা অনেক সময় দীর্ঘ পথ অতিক্রম করতে পারে না। ভাবতে হবে আপনাকে। বুঝতে হবে, কী চান আপনি? সিনেমা হলে ঘনিষ্টভাবে পাশের সিটে বসে থাকা মানুষটার হাত সারা জীবনের জন্য আঁকড়ে ধরতে চান না ভেসে যেতে চান বর্তমানের আনন্দের স্রোতে।

# ভালোবাসায় ধাক্কা আসেই। একটা সময়ে টের পেলেন, শুধু অভ্যাসে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন প্রেমের মৃতদেহ। কি করবেন? সব সময় মনে রাখতে হবে, দৃঢ়তার সঙ্গে সর্ম্পকে চুকিয়ে দেয়াটা বুদ্ধিমানের কাজ। তাতে মনের যন্ত্রণা কম হয়। সঙ্গী অজুহাত হিসেবে হয়তো অনেক যুক্তি দাঁড় করাতে চাইবে। কিন্তু মনে রাখতে হবে, একবার সেই মৃতদেহ টেনে নিয়ে যাবার অনুভূতি তৈরী হলে আর সে সর্ম্পকে ফিরে যাওয়া উচিত নয়। ডার্লিং বিদায় বলতে পারটাও আজকাল প্রেমের সর্ম্পকে গুরুত্বপূর্ণ ।

শামীম জাহিদ