চাকরীর পূর্ব প্রস্তুতি

বর্তমান সময় হচ্ছে প্রতিযোগিতার বাজার । আর আমাদের দেশে এই প্রতিযোগিতা টা একটু বেশী । ভালো চাকরীর  প্রত্যাশা সবাই করে । আজ আমরা কথা বলবো চাকরীর পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে । চাকরীর পূর্ব প্রস্তুতি বলতে সবার আগে চলে আসে সিভি , রেজুমে বা বায়োডাটা তৈরির কাজ। বর্তমানে বায়োডাটা শব্দটির পরিবর্তে আরও দুটি শব্দ ব্যবহার করা হয়। একটি রেজুমে (Resume) আরেকটি সিভি (CV) অর্থাৎ কারিকুলাম ভিটা (Curriculum Vitae)। সিভির পরিবর্তে রেজুমে শব্দটি প্রয়োগ করা হলেও কারিকুলাম ভিটা কিন্তু প্রায়োগিক অর্থে রেজুমে বা সিভি নয়।CV

# বায়োডাটা (Bio-Data) : বায়ো-ডাটা হচ্ছে জীবন বৃত্তান্তর সংক্ষিপ্ত রূপ।  একটি বায়ো-ডাটার প্রধান ফোকাস থাকে জন্ম, লিঙ্গ, জাতি, জাতীয়তা, বাসভবন, সামরিক অবস্থা, এবং অন্যান্য ব্যক্তিগত বিবরণী। আমাদের দেশে এখন সাধারণত বায়ো-ডাটা বিবাহ সম্পর্কিত কাজে ব্যাবহার করা হয়।

# রেজুমে (Resume) : রেজুমে হচ্ছে ফরমাল ভাবে লেখা নতুন চাকরির জন্য  শিক্ষা, দক্ষতা ও কর্মসংস্থানের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ। একটি রেজুমেতে  প্রোফাইলের সব বিস্তারিত থাকে না ।  শুধুমাত্র কিছু নির্দিষ্ট দক্ষতা প্রকাশের লক্ষ্য রেজুমে তৈরি করা হয়।  এটা সাধারণত ১ থেকে সর্বোচ্চ ২  পৃষ্ঠা দীর্ঘ হতে পারে।

# কারিকুলাম ভিটা (Curriculum Vitae) : একটি সিভিতে দক্ষতা, পূর্বের সব কাজ এবং অনুষ্ঠিত অবস্থানের, ডিগ্রী, পেশাদারী অ্যাফিলিয়েশানের অর্জন কালানুক্রমিকভাবে তালিকাবদ্ধ করা থাকে । একটি সিভি সাধারণ নির্দিষ্ট পদের জন্য প্রার্থীর যোগ্যতা বা প্রতিভা তুলে ধরার জন্য ব্যবহার করা হয়।

# কাভার লেটার (Cover Letter) : আপনাকে কোন পদের জন্য বিবেচনা করা হবে, এটা এইচ.আর.কে চিঠি মাধ্যমে জানানো হচ্ছে কাভার লেটার । এটা লেখার উদ্দেশ্য হচ্ছে আপনার কিছু অভিজ্ঞতা বা দক্ষতা হাইলাইট করা এবং সম্ভাব্য নিয়োগকর্তার সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে দেখা করার সুযোগ অনুরোধ করা।