শুভ জন্মদিন ভিঞ্চি…

 

বাবলু ভট্টাচার্য :“লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি”- মানব সভ্যতার ইতিহাসে অবিস্মরণীয় একটি নাম। যুগের পর যুগ ধরে অজস্র মানুষের মনে কৌতূহল ও বিস্ময় জাগানো এই মানুষটি আসলেই তুলনাহীন। তিনি একাধারে চিত্রশিল্পী, ভাস্কর, স্থপতি, সংগীতজ্ঞ, বৈজ্ঞানিক, প্রকৌশলী, উদ্ভাবক এবং আরও অনেক অনেক দক্ষতার অধিকারী একজন বিস্ময়কর মানুষ, ইটালিয়ান রেনেসার অন্যতম পথিকৃত। তার অজস্র অমর চিত্রকর্মের মাঝে “মোনালিসা” পৃথিবী শ্রেষ্ঠ।

ধারণা করা হয়, যেকোনো শতাব্দীর যেকোনো চিত্রকর্মের মাঝে “মোনালিসা” হচ্ছে সব থেকে বেশি আলোচ্য ও আলোড়ন সৃষ্টিকারী। লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি ছিলেন তার যুগের থেকেও আধুনিক, তার উদ্ভাবনী চিন্তাশক্তি এখনও মানুষের কাছে রহস্যময়। লিওনার্দোর ব্যাক্তিগত নোটবুকগুলো পৃথিবীর ইতিহাসে আলোড়ন সৃষ্টিকারী উপাদানগুলোর মাঝে অন্যতম, যার ভেতরে রয়েছে এই মেধাবী মানুষটির অজস্র কাজের প্রমাণ ও উদাহরণ।

“লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি”- মানব সভ্যতার ইতিহাসে এক অতিমানবীয় চরিত্র হিসেবে স্থান করে নিয়েছে, যার মেধার সমতুল্য পাওয়া কষ্টকর। কিন্তু আসলেই কি লিওনার্দোর সবগুলো কাজ তার একক চিন্তাশক্তির ফসল নাকি তিনি অসংখ্য মানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টাকে আরও ব্যাপক বিশ্লেষণের মাধ্যমে তুলে এনেছেন শক্তিশালী করে? দেখা যাক একটু গভীরে গিয়ে। লিওনার্দো এর যে উদ্ভাবনগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে সব থেকে বেশি তার পেছনের ইতিহাস নিয়ে একটু নাড়াচাড়া করা যাক।pranerbanglaa222

লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির ব্যাক্তিগত নোটবুকগুলো গবেষনার জন্য উন্মুক্ত হয় ১৯ শতকের শেষের দিকে। জার্মান বিশেষজ্ঞ Jean Paul Richter সর্বপ্রথম এই নোটবুকগুলো থেকে লিওনার্দোর কাজ অনুবাদ করে প্রকাশ করেন। এর আগে সমগ্র পৃথিবীর কাছে লিওনার্দোর নোটবুকগুলো ছিলো অজানা ও চোখের আড়ালে। Richter একক প্রচেষ্টায় এই বিস্ময়কর কাজগুলো পৃথিবীর সামনে তুলে ধরেন। এর পর থেকেই শুরু হয় এই উপাদনগুলো নিয়ে গবেষণা।

“ইটালিয়ান রেনেসা”, ১৩ শতকের শেষ থেকে ১৬ শতক পর্যন্ত এই সময়টি ছিলো পৃথিবীর ইতিহাসে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অধ্যায়। এই সময়ে ইউরোপের বিশেষ করে ইটালির জ্ঞান-বিজ্ঞান এর প্রত্যেকটি শাখা চরম উন্নতি সাধন করে। আধুনিক সমাজ ব্যবস্থার দিকে ধাবিত এই সময়টিতে, অসংখ্য মেধাবী মানুষের অসাধারণ কাজগুলো ইউরোপের এমনকি পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ কাজগুলোর মাঝে অন্যতম। বিজ্ঞান এবং শিল্প উভয়ই উন্নতির শিখরে অবস্থান করছিলো। “সিয়েনা” ছিলো এই বৈপ্লবিক উন্নতির কেন্দ্রবিন্দু। এই মেধাবী মানুষগুলোর মাঝে লিওনার্দো ছিলেন একজন।

১৫ শতকের শেষের দিকে বিখ্যাত ব্যাক্তি Ludovico Sforza তাদের পারিবারিক শহর মিলান এর দুর্গ দখল করেন। তিনি ছিলেন জ্ঞানচর্চার অন্যতম সেরা পৃষ্টপোষক। তিনি সেই সময়ের বিখ্যাত অনেক বৈজ্ঞানিক-চিত্রশিল্পী-দার্শনিক-স্থপতিকে নিজের দুর্গে আমন্ত্রণ জানান। তারই আমন্ত্রণে সারা দিয়ে লিওনার্দো ১৪৮২ সালে দুর্গে আসেন। তিনি প্রায় ১৭ বছর একটানা এখানে ছিলেন। এই সময়টাতে বিজ্ঞান এবং গণিতের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গবেষণা করেন লিওনার্দো। ১৪৯৬ সালে এই দুর্গে আসেন বিখ্যাত গণিতজ্ঞ Luca Pacioli। তিনি Rhombicuboctahedron এর উপরে কাজের জন্য স্মরণীয়। তিনি এবং লিওনার্দো মিলে এই সময়টিতে গণিতের বিভিন্ন জটিল বিষয়ে গবেষণা করেন, Luca Pacioli একাধারে লিওনার্দো এর গণিত শিক্ষক এর ভূমিকা পালন করেন। লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি সর্বপ্রথম Luca Pacioli এর “আর্কিমিডিয়ান সলিড” সংক্রান্ত কাজ “De divina proportione” বইয়ে প্রকাশ করেন। এই বইতেই “গোল্ডেন রেশিও” নিয়ে আলোচনা করা হয়। যখন ১৪৯৯ সালে ফ্রান্স ইটালি আক্রমন করে তখন দুজনেই দুর্গ ত্যাগ করেন, পরবর্তী সময়েও এই দুজনের মাঝে যোগাযোগ বজায় থাকে। লিওনার্দো, Luca Pacioli এর কাজের উপর যথেষ্ট দক্ষতা লাভ করেন তার ছাত্র হিসেবে।

লিওনার্দো তার কৈশোরে বিখ্যাত চিত্রশিল্পী Andrea del Verrocchio এর কাছে শিক্ষা লাভ করেন। সে সময় থেকেই চিত্রশিল্পী হিসেবে দক্ষতার পরিচয় দেন লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি। পরবর্তিতে তার অজস্র অমর চিত্রকর্ম এরই প্রমাণ বহন করে। তবে তার অসংখ্য কাজের মধ্যে আলোচনায় শীর্ষ স্থান দখল করে রাখে “মোনালিসা”। এই চিত্রকর্মটি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা কিংবা কৌতূহল-রহস্যের শেষ নেই। যেই পদ্ধতিতে লিওনার্দো এই অমর চিত্রকর্মটি তৈরী করেন সেটি ইটালিয়ান রেনেসার চারটি প্রধান পদ্ধতির একটি Sfumato। এই পদ্ধতিতে লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির সমতুল্য কাজ নেই বললেই চলে, অসাধারণ দক্ষতায় Sfumato পদ্ধতিতে তৈরী করা চিত্রকর্মগুলোর আসল গঠন পদ্ধতি এখনও সঠিক ভাবে খুঁজে পাওয়া সম্ভব হয়নি।

সময়ের সাথে সাথে লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি এর অসংখ্য কাজ নিয়ে গবেষণা হয়েছে অনেক। একজন অতিমানবীয় মেধার অধিকারী হিসেবে তাকে সবসময়েই শ্রদ্ধা করা হয়ে থাকে। একই সাথে এতো দক্ষতার অধিকারী একজন মানুষ আসলেই বিরল। তার উদ্ভাবনী চিন্তাশক্তি তাকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছে তার সময়ের থেকেও বহু বহু বছর আগে। পৃথিবীর ইতিহাসে সবথেকে শক্তিশালী চরিত্রগুলোর মাঝে তিনি অবশ্যই অবিস্মরণীয়।
লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি ১৪৫২ সালের আজকের দিনে (১৫ এপ্রিল) ফ্লোরেন্সে জন্মগ্রহণ করেন।