রানীর জন্মদিনের কেক বানালেন বাংলাদেশী নাদিয়া

ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ এই সপ্তাহে পা দিলেন ৯০ বছর বয়সে । আমাদের সবার মত তিনিও তার জন্মদিন উযাপন করেন কেক কেটে । আর এই বছর মহা রানীর জন্য কেক তৈরির দায়িত্ব পরে নাদিয়া হোসেন এর উপর । ইতিমধ্যে আমরা জেনে গেছি কে এই নাদিয়া হোসেন? queensbday
নাদিয়া হোসেন হচ্ছেন জনপ্রিয় টিভি শো “দা গ্রেট ব্রিটিশ বেক অফ” এর সাম্প্রতিকতম সময়ের বিজয়ী । নাদিয়ার পিতা মাতার আদি নিবাস সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলায়। ধর্মভীরু নাদিয়ার জন্ম ও বেড়ে ওঠা ব্রিটেনে। লন্ডন থেকে চল্লিশ মাইল দূরবর্তী শহর লুটনে কেটেছে নাদিয়ার শৈশব ও কৈশোর। বর্তমানে স্বামী সন্তান নিয়ে উত্তর ইংল্যান্ডের লীডসে বসবাস করলেও অধিকাংশ সময়ই থাকেন লুটনে। লুটনের স্থানীয় একটি হাইস্কুলে অধ্যয়নকালীন সময় থেকেই তিনি কেক ও নানা ধরনের পিঠা জাতীয় খাদ্যদ্রব্য তৈরি করতেন। মার্শাল নামে তার একজন স্কুল শিক্ষক নিজ বাড়িতে ট্রাডিশনাল ব্রিটিশ কেক, পেস্ট্রি ও পুডিং তৈরিতে নাদিয়াকে উৎসাহিত করেন। বাড়িতে এসে নাদিয়া শিক্ষকের শেখানো পদ্ধতিতে এসব তৈরি করতেন। ধীরে ধীরে এলাকায় পেস্ট্রিশেপ হিসেবে পরিচিতি পেতে থাকেন তিনি। এরই এক পর্যায়ে বিবিসিতে প্রচারিত ‘গ্রেট ব্রিটিশ বেক অব’ অনুষ্ঠানে নাম লেখান নাদিয়া। এরপর আর তাকে পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। তিনি জানান, রান্নাটা মূলত তিনি শিখেছেন স্কুলেই আর বাকিটা রান্নার বই আর ইউটিউবের ভিডিও থেকে।

একদিন নাদিয়ার কাছে একটা ই-মেইলের আসে তাতে নাদিয়া হোসেন এর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিলো যে তিনি রানীর জন্মদিনের কেকটি বানাতে পারবেন কিনা। প্রথমে নাদিয়া মনে করেছিলেন, কেউ তার সাথে মজা করছে। কিন্তু পরে একটা টেলিফোনে তাকে এই খবরটি নিশ্চিত করা হয়। খবরটি পাওয়ার পর উত্তেজিত হয়ে পড়েন তিনি। নাদিয়া বলেন, “আমার কাছে অপশন ছিলো। আমি না ও বলতে পারতাম। কিন্তু রানীকে তো আর আমি না বলতে পারি না।  নিজের ছেলেমেয়েদেরকে তিনি যখন খবরটি জানান তখন তারাও খুব খুশি হয়। ছেলেরা তাকে খবরটি গোপন রাখতে বলেছিলো।  এই কেক বানানোর দায়িত্ব পেয়ে নাদিয়া নিজেকে অনেক সম্মানিত মনে করছেন । ব্রিটেনের বিভিন্ন পত্রিকায় এই খবরটি ফলাও করে প্রচারিত হয়েছে।  একত্রিশ বছর বয়সী নাদিয়া জানান, তিনি ইন্টারনেটে গুগল সার্চ করে দেখেছেন আগের বছরগুলাতে রানী ঠিক কি ধরনের কেক দিয়ে তার জন্মদিন পালন করেছেন এরপর তিনি রাণীর জন্য কমলার ঘ্রাণসমৃদ্ধ এক ধরনের কেক বানালেন। ২১ এপ্রিল কেকটি হস্তান্তর করেছেন  তিনি। নাদিয়া জানান, কয়েক সপ্তাহ আগেই তাকে এ কেক বানাতে বলা হয়েছিল।

cake pack

রানীকে পাঠানো কেকের বক্স

 কিন্তু  গত ১৫ এপ্রিলই তিনি সংবাদ মাধ্যমকে খবরটি জানিয়েছ। কেকটা বানাতে গিয়ে খানিকটা ‘নার্ভাস’ হওেয়ছেন বলেও জানান নাদিয়া।

গত বছর আক্টোবরে ‘গ্রেট বৃটিশ বেক অফ’ প্রতিযোগীতায় শিরোপা জয় করে নাদিয়ার ব্যাস্ততা অনেক বেড়ে গেছে। এখন আইটিভির ‘ লুস উমেন’অনুস্ঠানে নাদিয়া  প্রায় নিয়মিত অতিথি।দুটি জনপ্রিয় পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লিখছেন।খুব তাড়াতাড়িবের হচ্ছে তার প্রথম রান্নার বই নাদিয়া’স কিচেন ও শিশুদের জন্য রচিত বেক মি অ্যা স্টোরি।এছাড়াও করছেন বিভিন্ন টিভি শো।

3366B1DA00000578-0-image-a-49_1461249095923

নিমো ব্লু  (সূত্র ইন্টারনেট)