সৌম্য হেরে গেলেন ইমরুলের কাছে

আহসান শামীমঃ বাংলাদেশের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে ফতুল্লায় শেষ হলো আজ মঙ্গলবার । ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে দারুণ সূচনা করেও বিসিবি একাদশ হেরেছে ৫ উইকেটে । টসে জিতে ইংল্যান্ডকে ৩১০ রানের চ্যালেঞ্জিং এক টার্গেট দিয়েছিল টাইগাররা।কিন্ত বাধ সাধলো বোলিং দূর্বলতা। সহজেই ইংল্যান্ড ৪৫.১ ওভারের সহজ জয়টা পেয়ে গেলো। অবশ্য বিসিবি একাদশে মূল একাদশের কোন বোলারদের রাখা হয়নি ।
প্রস্তুতি ম্যাচে ইংল্যান্ডের উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশের আবহাওয়া নিজেদের মানিয়া নেওয়া ।আর টাইগার টিম ম্যানেজমেন্টের উদ্দেশ্য ছিল চূড়ান্ত একাদশে অফ ফর্মে থাকা খেলোয়াড়দের যাচাই করে দেখা । ওপেনিং জুটিতে ইমরুল কায়েস এর সাথে সৌম্য সরকার । মূল একাদশে তামিম ইকবালের সাথে সৌম্য না ইমরুল কায়েস কে খেলবেন একটা অলিখিত পরীক্ষায় জিতে গেলেন ইমরুল ।bangladesh
ওপেনিংয়ে ব্যাট করতে নেমে দারুন এক সেঞ্চুরিতে নিজের জাত চিনিয়েছেন ইমরুল কায়েস। ৯১ বল মোকাবেলায় ১১ চার ও ৬ ছক্কায় ১২১ রান করে ডেভি উইলির দারুণ এক বলে বোল্ড হন ইমরুল। আফগানদের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে তিন নম্বরে ব্যাটিং করতে নেমে ৩৪ রান করেও মাঠের বাইরেই বাকী দুই ওয়ানডেতে বসে থাকতে হয় ইমরুল কায়েসকে।
অন্যদিকে আজও ব্যর্থ হয়েছেন ওপেনার সৌম্য সরকার। দলীয় ৩৫ রানের মাথায় মাত্র ৭ রান করে ওকসের বলে বাটলারের হাতে সহজ ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার সৌম্য। ব্যাট হাতে ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ হয়ে চলেছেন বাংলাদেশের বাঁহাতি ওপেনার সৌম্য সরকার। আফগানিস্তান সিরিজের পর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচেও নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি সৌম্য।তারপরও আফগানদের বিপক্ষে পুরো সিরিজে তাকে খেলানো হয়। এই নিয়ে কম বিতর্কিত হননি বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্ট । ব্যর্থতার বৃত্তে আটকে আছেন সৌম্য সরকার। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে ভয়-ডরহীন ক্রিকেট খেলে নাম কুড়ানো সৌম্য গত এক বছর ধরে নিজেকে খেলার মাঠে আর মেলে ধরতে পারেননি। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট দিয়েই শুরু হয় সৌম্যর ব্যর্থতার মিশন। অধিনায়ক মাশরাফির পাশাপাশি টিম ম্যানেজমেন্টের একের পর এক সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয়েই যাচ্ছেন সৌম্য সরকার । যেখানে আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে পুরোপুরি ব্যর্থ ছিলেন। তিন ম্যাচে তার রান ০, ২০, ২১। সৌম্যর ১৯ ম্যাচে মোট রান ২৯৯; যেটা সৌম্যর সঙ্গে বেমানান।
আফগানদের বিপক্ষে হঠাৎ করেই মুশফিকুর রহিম নায়ক থেকে খলনায়ক হয়ে যান।একে তো ব্যাট হাতে ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ ।পাশাপাশি উইকেটের পেছনে খুব একটা ভালো করতে পারচ্ছেন না । আফগানদের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে হারের জন্য মুশফিকুর রহিমের দিকে অনেকেই আঙুল তুলেছেন ।পরবর্তীতে বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এর নির্দেশে সিরিজের শেষ ম্যাচের আগে মুশফিক কে নিয়ে টিম ম্যানেজমেন্ট উইকেটের পেছনে কাজ শুরু করেন। আজকের প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের পক্ষে মুশফিকুর রহিমের নাম ছিল না । গতরাতে তাঁকেও প্রস্তুতি ম্যাচে খেলার জন্য বলা হয়।হঠাৎই করে মুশফিকুর রহিমের নাম প্রস্তুতি ম্যাচে দেখে বিষ্মিত হন অনেকেই । বিসিবি একাদশের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫১ রান করেন মুশফিকুর রহিম।
এছাড়া একাদশের অধিনায়ক আল রাউন্ডার নাসির হোসেন ৪৬ রান করেন।তিনিও দীর্ঘদিন বাংলাদেশ ক্রিকেটের মুল একাদশে থাকতে পারেননি ।
খেলায় হেরে গেলও সম্ভবত মূল একাদশে তামিম ইকবালের সাথে ইমরুল কায়েসের জায়গাটা পোক্ত হওয়ার কথা।সেক্ষেত্রে দীর্ঘদিন অফফর্মে থাকা সৌম্য সরকার মুল একাদশ থেকে বাদ পরার সসম্ভাবনা প্রকট হয়েছে।