নো ম্যান, ডে ইজ ওভার…

ফেইসবুক এর গরম  আড্ডা চালাতে পারেন প্রাণের বাংলার পাতায়। আমারা তো চাই আপনারা সকাল সন্ধ্যা তুমুল তর্কে ভরিয়ে তুলুন আমাদের ফেইসবুক বিভাগ । আমারা এই বিভাগে ফেইসবুক এ প্রকাশিত বিভিন্ন আলোচিত পোস্ট শেয়ার করবো । আপানারাও সরাসরি লিখতে পারেন এই বিভাগে । প্রকাশ করতে পারেন আপনাদের তীব্র প্রতীকক্রিয়া।

 দুলাল খান

দুলাল খান

এই কাজটা একটা সময় পাইলট টুক টাক করতো। এরপর উত্তরাধিকার সুত্রে সাকিব তার অনমনীয় এটিটিউড দেখিয়ে গেছে বিপক্ষ খেলোড়ায়দের। স্লেজিং করবা আর উল্টা স্লেজিং আশা করবা না তা কেমনে হয়? এখন মাশআল্লাহ আর ৫/৬ খান আইটেম খাড়ায়া গেছে। নাসির, তামিম, মাহমুদুল্লাহ, মোসাদ্দেক, সৌম‍, সাব্বির, রুবেল এবং মাশরাফি। এরা কেউই আর কাউকে ছেড়ে কথা বলতে রাজি না। গতকাল খেলার সময় বাটলারের ভয়াবহ স্লেজিং এর স্বীকার হয়েছে বাংলাদেশের খেলোড়ায়রা। তামিম, সাব্বির, মাহমুদুল্লাহ, মোসাদ্দেকে চুড়ান্ত স্লেজিং করা হয়েছে কালকে। তামিমকে বলে কি রান cricke_worldকরতে পারতেছো না? বড় শট মারো। সাব্বিরকে বলেছে ১৮ বলে মাত্র ২ রান? মোসাদ্দেক কে স্লেজ করে বলেছে তোর হায়েষ্ট স্কোর কত? বিটিভি অনেকেই দেখেন না। বিটিভিতে স্ট্যাম্প এর মাইক এর সাউন্ড অনেক বেশি থাকে যার কারনে উইকেট কিপারের অনেক কথাই স্পষ্ট শোনা যায়। খেলার ভিডিওটা আবার একবার দেখলেই নিশ্চিত হতে পারবেন যে ওরা উইকেটের পিছনে কি মাত্রায় স্লেজিং করেছে।

এরপরও ইংলিশ খেলোয়াড় আর মিডিয়া কি আশা করে? ১৫ বছর আগে যেভাবে আমাদের ছেলেরা মাথা নিচু করে মাঠ ছেড়েছে সেভাবেই মাঠ ছাড়বে? নো ম্যান, ডে ইজ ওভার। এখন এরা চোখে চোখ রেখে খেলে। আঙ্গুলের সামনে আঙ্গুল তুলে খেলে, সে তুমি যেই হও না কেনো? এই যোগ্যতা আমাদের ছেলেড়া অর্জন করেছে, ধার করে আনেনি। ইংল্যান্ড, অষ্ট্রেলিয়া আর ভারত, নো মেটার। রুবেল আর কোহলির বাক বিতন্ডা মনে আছে? আউট হবার পর তাকে প্যাভিলিয়নের রাস্তা দেখায়া দিছিলো, ব্যাস কেল্লা ফতে। কোহলি আর বাটলাররা আশা করে না যে আমরা চোখে চোখ রেখে কথা বলি। এতটা নমনীয়তা আশা করাও অনুচিত, তাই না? অষ্ট্রেলিয়ার এন্ডু সায়মন্ড বলছিলো যে আমার স্লেজিং করতে করতেই মাঠে বড় হই, এবং সেটা মাঠেই রেখে আসি। কৃষ্ণ করলে নীলা খেলা আর আমরা করলে ফষ্টি নষ্টি? আর এরা পারেও পান থেকে চুন খসলেই ঠাস করে টুইটারে টুইট মারে। বাচ্চা পোলাপান মারামারি করার পর গিয়ে মার কাছে যেমন বিচার দেয় সেই রকম। চাইল্ডিস বিহেবিয়ার। ওয়েষ্ট ইন্ডিজের বাসে একটা ঢিল পরেছিলো। সাথে সাথে গেইলের টুইট। আরে বেটা যে দেশে নিরাপত্তা শব্দটার কোন বালাই নাই সেই দেশের মানুষ হয়ে কিনা আমাদের নিরাপত্তা নিয়ে কথা বলিস? এমনই হয়! কথায় আছে না, গরীবের বউ সবার ভাবী লাগে। এরা এখনও অর্থনীতির স্কেল দিয়ে আমাদের ক্রিকেটের মাত্রা নির্ধারন করতে চায়। সব কিছু গানিতিক নিয়মে চলে না দাদা। কখনও কখনও ব্যাতয় ঘটে। লাল সবুজের দেশে ব্যাতয় ঘটে। কারন এটা কেবল জনপদ নয়, এটি একটি বাঘের আস্তানাও বটে।

এত লাফালাফি ভালো না ম্যান   । ধনি মুস্তাফিজকে এক ধাক্কা দিয়া ১৫ মিনিটের জন্য মাঠের বাহিরে পাঠিয়ে দিয়েছিলো। ১৫ মিনিট পরে ফিরে এসে পুরা ইন্ডিয়াকেই সে সিরিজের বাইরে পাঠায়া দিছিলো। সুতরাং বাটলার আর ষ্ট্রোক তামিমদের গায়ে হাত দেবার দুঃসাহস দেখিয়ো না। ধ্বংস হয়ে যাবে… এগুলা গরু, ছাগল, ভেড়া না, এগুলা টাইগার, রয়েল বেঙ্গল টাইগার…