ওই হারামীদের লিঙ্গ কর্তনের দাবী তুলুন

ফেইসবুক এর গরম আড্ডা চালাতে পারেন প্রাণের বাংলার পাতায়। আমারা তো চাই আপনারা সকাল সন্ধ্যা তুমুল তর্কে ভরিয়ে তুলুন আমাদের ফেইসবুক বিভাগ । আমারা এই বিভাগে ফেইসবুক এ প্রকাশিত বিভিন্ন আলোচিত পোস্ট শেয়ার করবো । আপানারাও সরাসরি লিখতে পারেন এই বিভাগে । প্রকাশ করতে পারেন আপনাদের তীব্র প্রতিক্রিয়া ।

রুকসানা আক্তার

রুকসানা আক্তার

বর্তমানে মনে হয় নারী নির্যাতনের উৎসব চলছে দেশে।গত এক মাস ধরে এবং আজ সকাল পর্যন্ত ধর্ষণ সংক্রান্ত ঘটনা গুলো হিসেব করলে দেখা যায় খুব দ্রুত হারে বাড়ছে এই ক্রাইম। আজ সকালে দেখলাম রংপুরের নার্সিং এর দুই ছাত্রী পাশের ছাত্রাবাসে আরেক ছাত্রের কাছ থেকে নোট আনতে গিয়ে আরো তিন ছাত্র কর্তৃক ধর্ষণ এর শিকার হয়েছেন। আমি প্রচন্ড রাগ এবং ক্ষোভ নিয়ে বলছি ,সুস্থ মাথায় বলছি , খবরদার কেউ এটা বলবেন না যে মেয়ে গুলো কেন ছেলেদের হোস্টেলে গেল । আমি যখন ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে পড়তাম সাল টা ছিল ১৯৯১ ।জিওগ্রাফির ফাইনাল তখন। আমাদের ফিল্ড ওয়ার্ক এর জন্য ডিপার্টমেন্ট থেকে চারটা ছেলে চারটা মেয়ে মিলিয়ে গ্রূপ বানিয়ে দিয়েছিল টিচাররা। ফিল্ড ওয়ার্ক শেষে সেই রিপোর্ট তৈরির জন্য আমরা মেয়ে রা লাইব্রেরিতে জায়গা না পেয়ে সেই সহপাঠী ছেলেদের হল এ পুরো একটা সপ্তাহ সকাল দশটা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত ওদের রুমেpic বসে কাজ করেছি । যে সহপাঠীর রুমে আমরা কাজ করতাম আমার এখনো মনে আছে যে ওর অন্য রুম মেট বা পাশের রুমের ছেলে দের সহায়তার কথা । আপ্যায়নের কথা ।কত মানবিক , বন্ধুসুলভ এবং সিকিউরড ছিল সে পরিবেশ। পাপ মানুষের মনে । পাপের শাস্তি তাই পাওয়া উচিত । প্রতিটি ধর্ষকের চরম শাস্তি তার লিঙ্গ কর্তনের মাধ্যমেই হওয়া উচিত । কারণ এই আলগা মাংস পিন্ডটা সে সামলাতে পারেনা । এটাই হবে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি ।একটা মেয়ে বাচ্চা হউক আর যে বয়সের হউক এই ধরণের নির্যাতনের শিকার হলে তার এবং তার পরিবারের মানসিক অবস্থা টা কি হয় একবার ভাবে দেখুন নিজেকে ওই জায়গাটায় প্রতিস্থাপন করে । মনে হয় আমরা করিনা । যদি করতাম , ভাবতাম তাহলে সে মেয়েটি এবং তার পরিবার ঘটনার পরবর্তী সময়ে লোকলজ্জার ভয়ে মুখ লুকিয়ে চলতেন না বা মানুষের ধিক্কার শুনতে হতো না । অথচ কোনো দোষ না করে ই তারা অন্যের দোষে এক অসহনীয় জিবনমৃত দিনযাপন করেন । চলুন আমরা আমাদের খাসলত গুলা বদলাই সেই সাথে ওই হারাজাদাদের লিঙ্গ কর্তনের মাধ্যমে শাস্তি নিশ্চিত করি। আমরা যে মানুষ তার পরিচয় দেই।