আস্থা,ক্ষোভ ডিআরএস সিস্টেম

আহসান শামীমঃ প্রোটিয়াদের বিপক্ষে  টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার ভরাডুবি দেখে আর চুপ থাকতে পারলেন না সাবেক অজি লেগ স্পিনার শেন ওয়ার্ন। খোঁচাটা মেরেই দিলেন বর্তমান অধিনায়ক স্টিভ স্মিথকে।বাজে অধিনায়ক হিসেবেই চিহ্নিত  দিয়েছেন তাকে।কারণ অবশ্য প্রথম সেশনে ব্যাট করছিলেন জেপি ডুমিনি ও ডিন এলগার। ওই সময় অফ স্পিনার নাথান লায়নকে ব্যবহারই করেননি স্মিথ। আর ওই সেশনেই কর্তৃত্ব নিয়ে নেন ওই দুই ব্যাটসম্যান। এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে ওয়ার্ন বলেছেন, ‘আমার কাছে বিষয়টা কেমন যেনো ঠেকেছে। কারণ ওই সময় নাথানকে এক ওভারও বোলিং করানো হয়নি। তাপমাত্রা বাড়তি থাকার পরও ওকে তৃতীয় দিন ১২ ওভার মাত্র বোলিং করিয়েছে। আমার কাছে এটা বাজে অধিনায়কত্বই মনে হয়েছে।’
drs_246029অন্যদিকে ডিআরএস নিয়ে  বিতর্ক অব্যাহত আছে অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজেও। বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড সিরিজের মধ্যে অন্যতম আলোচিত বিষয় ছিল ডিআরএস আর কুমার ধর্মসেনার আম্পায়ারিং। পার্থ টেস্টে ডিআরএস পদ্ধতিতে মিচেল মার্শের আউটের পর এই প্রযুক্তি নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন সাবেক অনেক অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার। সাবেক অস্ট্রেলিয়ান পেসার মিচেল জনসন তো ডিআরএসকে পুরো ব্যর্থ একটা প্রযুক্তিও বলেছেন।ঘটনাটা আজ অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করার সময়। কাগিসো রাবাদার একটি বলে মিচেল মার্শের বিপক্ষে এলবিডব্লিউর আবেদন হয়েছিল। যে আবেদনে সাড়া দেননি মাঠের আম্পায়ার আলিম দার। রিভিউ নেন দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি।বল-ট্র্যাকিং প্রযুক্তিতে দেখা যায় রাবাদার বলটা মার্শের লেগ স্টাম্পের বাইরের অংশ ছুঁয়ে যেত। ফলে সিদ্ধান্ত পাল্টে আউট দেওয়া হয় মার্শকে। তার বলটা যেভাবে সুইং করছিল, তাতে সাদা চোখে দেখে মনে হচ্ছিল সেটা লেগ স্টাম্প মিস করবে। আর তাই রিভিউ দেখে বিস্মিত হয়েছেন অনেকেই। সবচেয়ে বেশি বিস্মিত হয়েছেন বোধ হয় অস্ট্রেলিয়ান খেলোয়াড়েরা।এই আউটের পরপরই  মিচেল জনসন টুইট করেছেন, ‘এইমাত্র মার্শের এলবিডব্লুটা দেখলাম। কি ঠুনকো ব্যাপার । ডিআরএস পুরোপুরি ব্যর্থ।’
এদিকে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিম্বাবুয়ের টেস্টে আম্পায়ারদের ভুল সিদ্ধান্তের খেসারত দিতে হয়েছিল । দ্বিতীয় টেস্টে  আম্পায়ারিংয়ের ভুল  থেকে বাঁচার জন্য জিম্বাবুয়ের ভরসা ডিআরএস সিস্টেম । শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চলমান টেস্টে সাউথ আফ্রিকার কাছ থেকে জোগাড় করা হয়েছে ডিআরএস সিস্টেমের যন্ত্রপাতি । প্রথম টেস্ট থেকে ডিআরএস সিস্টেমের জন্য আইসিসির কাছে আবেদন জানানো হয়েছিল । জোগাড় করতে সময় লাগায় দ্বিতীয় টেস্ট থেকে এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হচ্ছে ।
অবশ্য ডিআরএস সিস্টেম ব্যবহার করা হলেও, ইংলিশদের বিপক্ষে টাইগারদের সম্প্রতি শেষ হয়ে যাওয়া টেস্টে আম্পায়ারিংয়ের ভুলের রেকর্ড নিয়ে ক্রিকেট বিশ্বে চলছে সমালোচনা ।