মাইক্রোসফট সারফেস স্টুডিও

microsoft-surface-studioপার্সোনাল কম্পিউটারের গল্পটা বহুদিনের আর এর পেছনের অনন্য অবদান মাইক্রোসফটের। প্রথমবারের মতো অল-ইন-ওয়ান পিসি নিয়ে এসেছে  টেক জায়ান্ট মাইক্রোসফট। ‘মাইক্রোসফট সারফেস স্টুডিও’ নামে এই পিসিকে একই সঙ্গে নানন্দিক এবং শক্তিশালী করে নির্মাণ করেছে মাইক্রোসফট। প্রফেশনাল ক্রিয়েটিভ ডিজাইনার, ইঞ্জিনিয়ারদের কথা ভেবে বানানো হয়েছে ‘সারফেস স্টুডিও’।  নিজের টেবিলে সবাই পেতে চাইবেন এই নান্দনিক ডিজাইন এবং চমৎকার কনফিগারেশনের ‘সারফেস স্টুডিও’। বলা যেতে পারে এটিই ইতিহাসে এখন পর্যন্ত তৈরি সবচেয়ে চমৎকার কম্পিউটার হার্ডওয়্যার। এই অল-ইন-ওয়ান কম্পিউটারটিতে আছে সবচেয়ে সরু এলসিডি টাচ স্ক্রীন। স্ক্রীনটি ২৮ ইঞ্চি চওড়া বিশাল পর্দার অ্যালুমিনিয়ামের তৈরি, ৩:২ এসপেক্ট রেশিও সমেত ৪৫০০ x ৩০০০ পিক্সেল রেজোলুশন সমৃদ্ধ। মাইক্রোসফটের ভাষ্যমতে ডিসপ্লেতে আছে ‘জিরো গ্র্যাভিটি হিঞ্জ’। এই অসাধারণ ম্যাকানিজমটি ব্যবহার করে আপনি আঙুলের একটি টিপের সাহায্যেই স্টুডিওটি ব্যক্তিগত পছন্দ অনুযায়ী সুবিধামত স্থাপন করতে পারবেন যখন তখন। লেখা বা ছবি আঁকার ক্ষেত্রেও এটি আপনার সুবিধার্থে অ্যাঙ্গেল অনুসারে নিখুঁত ভাবে নড়বে। সারফেস স্টুডিওর পর্দা স্পর্শকাতর। ষষ্ঠ প্রজন্মের ইন্টেল কোর আই৫ ও কোর আই৭ প্রসেসরের সঙ্গে ৪ গিগাবাইট গ্রাফিকস কার্ড হিসেবে থাকছে এনভিডিয়ার জিফোর্স ৯৮০এম। ২ দশমিক ১ স্টেরিও ডলবি অডিও স্পিকার থাকছে এখানে। সর্বোচ্চ ৩২ গিগাবাইট র‍্যামের সঙ্গে ২ টেরাবাইট পর্যন্ত হার্ডড্রাইভ থাকছে সারফেস স্টুডিওতে।অন্যদিকে, একটি মাইক্রোফোনও যুক্ত আছে স্টুডিওতে কর্টানা ব্যবহারে সুবিধার জন্য। তা ছাড়া রয়েছে এইচডি ওয়েবক্যাম। কম্পিউটারটি দাঁড় করিয়ে রাখতে একটি স্ট্যান্ড ব্যবহার করা হয়েছে, যা দিয়ে কম্পিউটারটি ব্যবহারকারীর সুবিধা অনুযায়ী বিভিন্ন কৌণিক অবস্থানে রাখা যাবে। সাড়ে ৯ কেজি ওজনের সারফেস স্টুডিওর দাম শুরু হয়েছে ২ হাজার ৯৯৯ ডলার থেকে। সারফেস স্টুডিও কম্পিউটারের সাথে মাইক্রোসফট দিচ্ছে একটি সারফেস পেন, সারফেস কী-বোর্ড এবং একটি সারফেস মাউজ। দুর্ভাগ্যক্রমে আপনি যদি সারফেস ডায়াল কিনতে চান তবে আপনাকে গুনতে হবে আরও ১০০ ডলার। সারফেস ডায়াল একটি অভিনব নতুন ধরণের প্রয়োজনীয় উপকরণ যা আপনার স্ক্রীনের কন্টেন্টের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত হয়ে কাজের ক্ষেত্রে দেবে বিভিন্ন রকমের সুবিধা। এটি দিয়ে সারফেস বুক এবং সারফেস প্রো ৪-এর কাজও করা যাবে। সারফেস স্টুডিও পার্সোনাল কম্পিউটারের ব্যবহারিক দৃষ্টিকোণ থেকে একেবারেই নতুন এবং প্রগতিশীল। মাইক্রোসফট এটাই প্রমাণ করল যে, পার্সোনাল কম্পিউটারের বাজারে নতুনত্ব আনার যথেষ্ট সুযোগ এখনও রয়েছে। মাইক্রোসফট বর্তমানে অনলাইনে সারফেস স্টুডিওর আগাম অর্ডার নিচ্ছে। এ বছরের ১৫ ডিসেম্বর থেকে বাজারে পাওয়া যাবে সারফেস স্টুডিও।

জুলফিকার সুমন, ছবি ও তথ্যঃ ইন্টারনেট।