ছোট শোবার-ঘরের সজ্জা

বাড়ির অন্য ঘরগুলোর সঙ্গে শোবার ঘরের জিনিসপত্র আর সাজসজ্জার যথেষ্ট অমিল থাকে।কেনbfd1না শোবার ঘর হচ্ছে একটা সম্পূর্ণই নিজস্ব জায়গা যেখানে সবাই বিশ্রাম নেয়, ঘুমায় এবং অবশ্যই নানা উপভোগের। এই ঘরটিতে বহিঃপ্রকাশ ঘটে ব্যক্তির রুচি, পছন্দ-অপছন্দের। তাই একটি বড় শোবার ঘর সাজানোর চেয়ে একটি ছোট শোবার ঘর সুন্দর করে সাজানো বেশি সুবিধাজনক।নিজের পছন্দ আর সৃজনশীলতাকে বেশি করে কাজে লাগানো যায়।

ছোট ঘরে একটা অন্তরঙ্গ পরিবেশ থাকে। কিছু মৌলিক নিয়ম মেনে ছোট্ট ঘরটিকে মনের মত সাজানো যায় যাতে দেখতে খোলামেলা ও প্রশস্ত মনে হয়। কিছু নিয়ম এখানে আলোচনা করা হল:

কমটাই বেশি

এই নিয়মটি আপনি আপনার জীবনে বহুবার শুনেছেন আমি নিশ্চিত। সবচেয়ে বেশিবার শুনেছেন মায়ের মুখে। হুম, ঘর এলোমেলো না করা আর জিনিসপত্র জামাকাপড় গুছিয়ে রাখা।একদম সত্যি। ঘর যদি পরিচ্ছন্ন আর গোছানো থাকে ঘরকে খোলা আর প্রশস্ত মনে হয় আর তা হয়ে অঠে আকর্ষণীয়। কাজেই জিনিসপত্র গুছিয়ে রাখুন আর পরিমানে কম রাখুন। অকারণে টেবিলের উপর একগাদা জিনিসপত্র রাখবেন না। যা সচরাচর ব্যবহৃত হয় না তাকে গুছিয়ে তুলে রাখুন। মনে রাখবেন কম জিনিসই আপনাকে আরাম দিবে বেশি।

contemporary-ikea-bedroomচোখের আরাম

ঘরে ঢুকতেই চোখে পড়ল একগাদা রঙের আতিশয্য।চোখে ধাক্কা লাগে রঙের অতি ব্যবহার আর এতে ঘরকেও অপ্রশস্ত মনে হয়। বরং রঙের পরিমিত ব্যবহার আর সামঞ্জস্যতা মনে এনে দিবে প্রশান্তি। ছোট ঘরের  জন্য রঙের ব্যবহার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।সহজ করে বললে, একটি ঘরে তিনটির বেশি রঙের স্পর্শ না থাকাটা জরুরী। উপরের দেয়ালে হালকা রঙ আর দেয়ালে কিছু কিছু জায়গায় তার চেয়ে একটু গাঢ় শেড দারুণ আকর্ষণীয়।দেয়ালে হালকা ধূসর রঙের সঙ্গে উজ্জ্বল রঙের বালিশ দারুন মানানসই। ঘরে নানা রঙের কারসাজি না করে স্নিগ্ধ সাদা, ধুসর রঙের ব্যবহার চোখকে আরাম দিবে আর ঘরকেও প্রশস্ত দেখাবে।

ইভা আফরোজ খান