শেষ হলো বিপিএল প্রথম রাউন্ড

আহসান শামীমঃ চার ছক্কার হৈ হৈ বল গড়াইয়া গেল কৈ…টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের ক্রিকেট খেলায় চার ছক্কা না হলে খেলার আনন্দ অনেকটাই ফিকে হয়ে যায়। বিপিএলের শুরুতেই বৃষ্টির জন্য হোঁচট খেতে হলেও পরে ভালো ভাবেই ঢাকায় শেষ হলো চতুর্থ বিপিএলের প্রথম পর্ব । প্রথম দিকে চার আর ছক্কার বৃষ্টি কম হলেও পরে সেটা পুষিয়ে গেছে দরশকদের। দ্বিতীয় পর্বের খেলার জন্য ইতিমধ্যেই বিপিএল-এর দলগুলো এখন চট্টগ্রামে পৌঁছে গেছে ।
দুই দিন বিরতির পর আগামীকাল বৃহস্পতিবার ১৭ নভেম্বর থেকে চট্টগ্রামের মাটিতে শুরু হবে বিপিএলের দ্বিতীয় পর্ব। খেলা শুরু হবে দুপুর একটা থেকে । সেখানে টানা ২২ নভেম্বর পর্যন্ত ম্যাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার পর আগামী ২৫ নভেম্বর আবার মিরপুরে ফিরবে বিপিএল।bpl_all

ঢাকার প্রথম পর্ব শেষে ব্যাটিংয়ে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন বরিশাল বুলসের শাহরিয়ার নাফীস।দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় দলের বাইরে থেকে শাহরিয়ারের ব্যাটিং যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসীর ছাপ দেখা গেছে ।বোলিংয়ে সবার শীর্ষে রয়েছেন খুলনা টাইটান্সের শফিউল ইসলাম। ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর থেকেই ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ঘরের মাটিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ হারলেও এর আগে জিতে নেয় টানা ছয়টা সিরিজ। এর প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে এবারের চলতি বিপিএলেও। সাঙ্গাকারা, স্যামুয়েলস, পেরেরা, ডুয়েন স্মিথদের মত বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদের পেছনে ফেলে ঢাকার প্রথম পর্ব শেষে রান সংগ্রহের তালিকায় শীর্ষ পাঁচ ব্যাটসম্যানই বাংলাদেশের। যদিও ঢাকার স্লো পিচের কারণেই মিরপুরে রান পেতে সংগ্রাম করতে হয়েছে ব্যাটসম্যানদের।
অবশ্য মাঝেও উজ্জল টাইগার ব্যাটসম্যান শাহরিয়ার নাফীস। ৪ ম্যাচে বরিশাল বুলসের এই ব্যাটসম্যানের সংগ্রহ ১৮৪ রান। এর মাঝে রয়েছে ৩ টা হাফসেঞ্চুরি। সর্বোচ্চ ইনিংস ৬৫ রানের। সেরা ৫ ব্যাটসম্যানের তালিকায় নাফীসের পরে যথাক্রমে বরিশাল বুলসের অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম ১৭৪ রান, ঢাকা ডায়নামাইটসের মেহেদী মারুফ ১৭০ রান, রাজশাহী কিংসের সাব্বির রহমান ১৫৭ রান আর চিটাগাং ভাইকিংসের অধিনায়ক তামিম ইকবাল ১৪৩ রান ।এককথায় ব্যাটিংয়ে অসাধারণ পারফরম্যান্সের সব খেলোয়াড়েরা  বাংলাদেশের ।
অন্যদিকে পিচের কন্ডিশন খারাপ হয়ে যাওয়ায় সুবিধা পেয়েছেন বোলাররা। ৪ ম্যাচে সর্বোচ্চ ৮ উইকেট খুলনা টাইটান্সের টাইগার বোলার শফিউল ইসলামের। সমান ৮ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে ঢাকা ডায়নামাইটসের মোহাম্মদ শহীদ। ব্যাটিংয়ে শীর্ষ পাঁচে বিদেশি কেউ না থাকলেও বোলিংয়ে আছেন তিনজন। তৃতীয় অবস্থানে আছে রংপুরের হয়ে খেলা পাকিস্তানের তারকা অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি ৭, পরের অবস্থানে আরেক বিদেশি আফগান তারকা মোহাম্মদ নবী ৭। আর তালিকার পঞ্চম অবস্থানেও রয়েছেন পাকিস্তানের আরেক তারকা পেসার জুনায়েদ খান ৭ উইকেট নিয়ে।এবারের বিপিএলে একমাত্র শতরানের মালিক সাব্বির ।এবারের বিপিএলে টাইগারদের টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম হাজার রানের রেকর্ড স্পর্শ করেছেন । নবীন প্রজন্মের খেলোয়াড় মারুফের ব্যাটিংয়ে  মুগ্ধ বিপিএল দর্শকরা। জাতীয় দলে ডাক-না-পাওয়া আরাফাত সানির টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে বোলিংয়ে  বিশ্ব রেকর্ড গড়েছেন ।

চট্টগ্রামের দ্বিতীয় পর্বে  আরো বেশি রেকর্ডের তালিকায় বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের নাম থাকবে বলে আশা করা যায় । গেল বারের বিপিএলের শিরোপা জয় করা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স একটা  খেলাও জিততে পারেনি প্রথম পর্বে।চট্টগ্রাম ভাইকিংসের জয় মাত্র ১ টা ।