মুড বুঝে গান শোনাবে গুগল প্লে মিউজিক

google-play-musicনতুন নতুন চমক দিতে পারদর্শী টেক জায়ান্ট গুগল। নিত্য নতুন ফিচার সংযোগ করে গুগল প্রযুক্তিকে নিয়ে গিছে এক অনন্য অবস্থানে। এখন এমন বলা হয়, আপনাকে গুগল-এর থেকে বেশি আর কেউ জানে না। গুগল-এর সেই জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে গুগল এবার আপনার কখন কোন গান পছন্দ তা বুঝতে চেষ্টা করবে। আপনি চাইলে পছন্দমতো বাজিয়ে শোনাবে সে গান। এ সুবিধা পাওয়া যাবে গুগল প্লে মিউজিকে। কখন আপনার মন ভালো রয়েছে আর কখন মন খারাপ এসব তথ্যগুলো যদি গুগল গান বাজানোর জন্য ব্যবহার করে তাহলে কেমন হয়? আপনি কোথায় রয়েছেন, কী করছেন, কী চিন্তা করছেন, কী দেখছেন, অনলাইনে কী খুঁজছেন ইত্যাদি সব তথ্যই রয়েছে গুগলের কাছে। আর এসব বিষয় ব্যবহার করে গুগল আপনার মনের অবস্থা অনেকাংশ জেনে নিচ্ছে। এ তথ্য ইউজ করে সহজেই গুগল বুঝতে পারে আপনার এই মুহূর্তে কোন গানটি শোনা উচিত। আর এ সুবিধাটি ব্যবহারের চেষ্টা করছে গুগল মিউজিকে। গুগল তাদের নতুন পরিসেবায় তাই এ বিষয়গুলো অ্যাড করেছে। আপনি চাইলেই প্লে বাটনে ক্লিক করে সেই গান শুনতে পারবেন, যা আপনি চাইছেন। তবে এ জন্য আপনাকে গান পছন্দ করে দিতে হবে না। প্যানডোরা, স্পটিফাইয়ের মতো অনলাইন সব মিউজিক সার্ভিসের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে গিয়েই নতুন আপডেটে এই ফিচারটি যুক্ত করেছে গুগল। মূলত সপ্তাহের একেক দিনের একেক সময়ে ঠিক কী ধরনের কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকতে হয়, তার ওপর ভিত্তি করেই এই সার্ভিসে গানের পরামর্শ প্রদান করা হবে।

এ ক্ষেত্রে গুগলই তাদের কাছে থাকা নানা তথ্য ব্যবহার করে আপনার গানটি পছন্দ করে দেবে। লাইভ স্ট্রিমিং সার্ভিস ব্যবহার করলে মিউজিক পার্সোনালাইজেশন পরিসেবায় আপনি নিজের পছন্দের এ গানগুলো পাবেন। এ ধরনের সার্ভিস দেওয়ার চেষ্টা করছে স্পটিফাইসহ বিভিন্ন মিউজিক স্ট্রিমিং সার্ভিস। কিন্তু তাদের ক্ষেত্রে আপনার পছন্দের গানগুলো নির্দিষ্ট করে দিতে হবে। গুগল এ ক্ষেত্রে একধাপ এগিয়ে। তারা জানে আপনার পছন্দের বিষয়গুলো। এ ছাড়া আপনার আরও বহু তথ্যও জানে গুগল। ফলে তাদের পক্ষে এ ধরনের সেবা দেওয়া অন্য প্রতিযোগীদের তুলনায় সহজ। ‘প্লে মিউজিক’ ব্যবহারকারীরা বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারলেও এর খরচটা যোগাবে মূলত বিভিন্ন বিজ্ঞাপনদাতা প্রতিষ্ঠান। এতে সংগীত অনুরাগীদেরই উপকার হবে না, একই সাথে উপকৃত হবেন শিল্পীরাও।

জুলফিকার সুমন, ছবি ও তথ্যঃ ইন্টারনেট।