অবশেষে চিটাগাং টেস্টে বল ট্যাম্পারিং নিয়ে তদন্ত

আহসান শামীমঃ আইসিসি সম্প্রতি হোবার্ট টেস্টে দক্ষিন আফ্রিকারে অধিনায়ক ফাফ দু প্লিসিসের বল টেম্পারিং ইস্যু নিয়ে তদন্ত সম্পন্ন করেছে। প্রথমে বাংলাদেশের অভিযোগ আমলে না নিলেও শেষ পর্যন্ত এই বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে আইসিসি।
চট্টগ্রামে প্রথম টেস্ট ২২ রানে ইংলিশদের কাছে চট্টগ্রাম টেস্টে হারের পর, ব্রিটিশ ক্রীড়ালেখক জোনাথন লিউ তার কলমে প্রতিবাদ স্বরূপ লিখেছিলেন বাংলাদেশ সেদিন জিতলে ক্রিকেটের  জয় হতো। ইংলিশদের পক্ষে বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের কড়া সমালোচনা ছিল তার লেখনীতে । চট্টগ্রাম টেস্টে  বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক  মুশফিকুর রহীমও ব্যাটিংয়ের সময় আম্পায়ারের কাছে ইংলিশদের বল টেম্পারিং করার  অভিযোগ করেছিলেন বলে জানা যায়। যদিও তখন  ম্যাচ অফিসিয়ালরা তখন কর্ণপাত করেনি। অবশ্য বিসিবি সভাপতি  নাজমুল হাসানের জানিয়েছিলেন  আমরা অবশ্যই এই ইস্যুতে প্রয়োজনীয় পন্থা অনুসরণ করবো।’
বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজের উইকেটে পেসারদের জন্য কিছুই ছিল না। চট্রগ্রাম ও ঢাকা টেস্টের উইকেট এক কথায় স্পিনারদের স্বর্গ ছিল। দুই দলের স্পিনাররাই উইকেটের সুবিধা নিয়ে ব্যাটসম্যানদের চাপের মুখে রেখেছে।ইংলিশরা রিভার্স সুইং কাজে লাগিয়ে বাড়তি সুবিধা নিয়েছিল। বিশেষ করে চট্রগ্রাম টেস্টে বেন স্টোকস পুরনো বলে দারুন বোলিং করেছেন।আরেক অভিজ্ঞ পেসার ব্রডও বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের ভালোই ভুগিয়েছেন। কিন্তু রিভার্স সুইং পাওয়ার জন্য ইংলিশ ব্যাটসম্যান জো রুট নিয়ম বহির্ভূত কিছু করেছেন কিনা এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল বাংলাদেশ ক্যাম্প।