ত্বকে ধরণ বুঝে সাজগোজ

 

মেকআপ মানেই একভাবে নিজেকে সাজিয়ে নিলাম তা কিন্তু নয়।প্রথমেই চিন্তা করতে হবে আপনার ত্বকের ধরণ। আর তার উপর ভিত্তি করেই আপনাকে মেকআপ নিতে হবে।আমাদের ত্বকের ধরণ তিন রকম। প্রথমেই আপনাকে ত্বকের ধরণ বের করতে হবে তারপর কিভাবে এবং কি প্রসাধন আপনি ব্যবহার করবেন সেটা নির্বাচন করতে হবে।এখানে ত্বকের ধরণ অনুযায়ী মেকআপের বিভিন্ন বিষয় আলোচনা করা হলো।

তৈলাক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে:sajghor_dec5-1

* প্রথমে ত্বক পরিস্কার করে নিতে হবে। তারপর অ্যাস্ট্রিনজেন্ট লোশন লাগাতে হবে।।

* ১০ মিনিট পর কম্প্যাক্ট পাউডার লাগান। ফাউন্ডেশন লাগাবেন না।তবে ফাউন্ডেশন লাগাতে চাইলে ওয়াটার বেসড ফাউন্ডেশন লাগান। কম্প্যাক্ট লাগালে ত্বকে অতিরিক্ত চকচকে ভাবটা থাকবে না।

*  কম্প্যাক্ট  ত্বকে লাগানোর আগে একফোঁটা জল মেশান। না হলে কেক ফাউন্ডেশন বা প্যানস্টিক ব্যবহার করতে পারেন। তবে লাগানোর আগে অল্প জল মিশিয়ে নেবেন।

* ফাউন্ডেশন লাগানোর পর পাউডার লাগান।তাতে মুখে ফাউন্ডেশন ভালোভাবে মেশানো যাবে।

* পাউডার ব্লাশার ও আইশ্যাড ব্যবহার করুন।

রুক্ষ ও পরিণত ত্বকের ক্ষেত্রে :

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ত্বকে বলিরেখা, ভাঁজ পড়তে থাকে। ত্বক অনুজ্জ্বল লাগে। ত্বক শুস্ক হয়ে পড়ে। ত্বকের যত্ন ও মেক-আপের প্রতি উৎসাহ কমে গেলে ট্রাই করুন সহজ কয়েকটি নিয়ম।

* সানস্কিন ও অ্যান্টিএজিং ময়শ্চারাইজার সম্পন্ন উপাদানসমুহ ব্যবহার করুন।

* ভারী ফাউন্ডেশনে ত্বকের বলিরেখা আরও স্পস্ট হয়ে ওঠে। তাই লিকু্ইড ও পাউডার ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন। লিকু্ইড ফাউন্ডেশন লাগালে ত্বকের অনুজ্জ্বল ভাব ঢাকা পড়ে। পাউডার ফাউন্ডেশন লাগালে আলাদা করে কম্প্যাক্ট লাগানোর দরকার পরবে না।

* থ্রি ইন ওয়ান আইশ্যাডো-লিপ কালার-চিক কালার স্টিক কিনে নিন। আইশ্যাডো, চিকবোনে লাগানোর পর ব্রাশ দিয়ে লিপ কালার হালকা করে লাগান।

* চোখে আইলানার লাগান। কালোর বদলে গ্রে, ব্রাউন, ল্যাভেন্ডার কালার ট্রাই করতে পারেন। কাজল পেনসিলের বদলে আইলানার পেন ব্যবহার করতে পারেন।

* শেষে মাসকারার টাচ দিন। চোখ বড় ও সুন্দর দেখাবে।

sajghor_dec5-2 কিভাবে মেক-আপ তুলতে হবে:

সেজেগুজে তো নিজেকে সুন্দর করে তোলা হলো। এরপরের করণীয়টা কি সবসময় মনে থাকলেও পার্টি থেকে ফিরে আলসেমিতে অনেক সময় মেকআপটা তোলা হয়না। সেই নিয়েই ঘুম। তার ফলে ত্বকে ব্রণ, দাগসহ নানা সমস্যার সৃস্টি।

  • তৈলাক্ত ত্বক হলে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে পুরো মুখে লোশন মেখে কিছুক্ষণ রাখুন। পরে তুলা দিয়ে মেকআপ তুলে ফেলুন।
  • শুষ্ক ত্বক হলে তুলাতে পানি আর তেল মিশিয়ে তা দিয়ে মুখটা পরিষ্কার করা যেতে পারে।
  • হালকা মেকআপ করলে তুলায় ক্লিনজার মেখে মুখটা পরিষ্কার করা যেতে পারে।
  • কম ক্ষারযুক্ত ফেসওয়াস দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে।
  • মুখ পরিষ্কার শেষে মুখে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • ভারি মেকঅঅপ করা হলে এর পর টানা কয়েক দিন মুখে প্যাক ব্যবহার করা ভালো।
  • ত্বক তৈলাক্ত হলে পাকা পেঁপে বা পাকা কলা চটকে প্যাক তৈরি করে মুখে মাখতে হবে।
  • চালের গুঁড়া, টকদই, শশা, গাজরের রস, মুলতানি মাটি দিয়ে প্যাক তৈরি করে চাইলে ফ্রিজে রেখেও ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • শুষ্ক ত্বক হলে ময়দা, দুধ, মধু, মুলতানি মাটি দিয়ে পেস্ট করে মুখে ব্যবহার করা যেতে পারে।

চুল নিয়েও হেলাফেলা করা উচিত নয়। চুলের বিশেষ যত্নের কথাও বলেন তিনি।

  • হেয়ার সেপ্র, আয়রন মেশিন বা বিভিন্ন রকমের হেয়ার ক্রিম ব্যবহারে চুল জট পাকিয়ে যায়। তাই তেল দিয়ে আগে জট ছাড়াতে হবে।
  • তেল মাখা চুল শ্যাম্পু করে ফেলতে হবে।
  • ঘুমাতে যাওয়ার আগে ফ্যানের বাতাসে চুল শুকিয়ে নিন। হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করবেন না।
  • নিয়মিত তেলের সঙ্গে মেথি, আমলকী মিশিয়ে মাথায় ম্যাসাজ করা যেতে পারে।
  • চুলে নিয়মিত মেহেদি দেওয়া ভালো।
  • চুলের গোড়ায় লেবুর রস দিয়ে ম্যাসেজ করা যেতে পারে। তবে বেশি সময় ধরে না করাই ভালো।

এসব যত্নআত্তির পাশাপাশি পার্টিতে খাবারের দিকেও লক্ষ্য রাখতে বলেন তিনি। তেল-মসলাযুক্ত খাবার খাওয়ার ব্যাপারে নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে। অন্যদিকে ভারী খাবারের সঙ্গে সালাদ আর তরল খাবার বেশি খেতে পরামর্শ দেন তিনি। পাশাপাশি প্রচুর ফলমূল, সবজি খেতে হবে এমনটাই মনে করেন তিনি। কেননা সুস্থ, সুন্দর ও সজীব ত্বক সবারই কাম্য।