পর্যটন শিল্পে সফল ক্যারিয়ার গড়ুন

পর্যটন শিল্প এমন একটি শিল্প যার কল্যাণে কোন দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা পুরপুরি বদলে দেয়া সম্ভব। দৃষ্টান্ত  স্বরূপ বলা যায় আরব-আমিরাত, থাইল্যান্ড, মালদ্বীপ, সিঙ্গাপুরে, ভুটান, নেপাল ও মালয়েশিয়া কথা। আমাদের বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের রয়েছে অপার সম্ভবনা। পর্যটন শিল্প বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে দেশের বিভিন্ন জায়গায় গড়ে উঠছে হোটেল, মোটেল, রেস্টুরেন্ট, পিকনিক স্পট, টুর অপারেটর। এ শিল্পে প্রচুর দক্ষ জনবলের প্রয়োজন। পর্যটন বিষয়ে ডিগ্রীধারীদের প্রচুর কাজের সুযোগ রয়েছে এখানে। এই শিল্প খাতে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার জন্যে প্রয়োজন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা।  আর এ লক্ষ্যে দেশে বিদেশে বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বিভিন্ন মেয়াদী শর্ট  কোর্স  পাশাপাশি দেশি-বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপ্লোমা থেকে পোস্ট গ্রাজুয়েশন ডিপ্লোমা। যেখান থেকে তৈরি হচ্ছে হোটেল ও পর্যটন শিল্প সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের দক্ষ মানব সম্পদ।

PS-3_ZS

প্রথম ২০০৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিষয়ে পাঠদান শুরু হওয়ার পর অনেক সরকারি ও বেসরকারিসহ একাধিক ট্রেনিং সেন্টারে এ বিষয়ে পড়াশোনা ও প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। চারবছর মেয়াদি অনার্স কোর্সের জন্য সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ঢাকা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় অন্যতম। আর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে আছে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি – বাংলাদেশ (এআইইউবি) , এছাড়াও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি, দ্য পিপলস ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ,  ইবাইস ইউনিভার্সিটি, ইউরোপিয়ান ইউনিভার্সিটি, ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, রয়েল ইউনিভার্সিটি অব ঢাকা ও ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজিসহ বেশ কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে পড়ার সুযোগ রয়েছে। এছাড়া ডিপ্লোমা কোর্সের জন্য রিজেনসি হসপিটালিটি ট্রেনিং ইন্সটিটিউট, নিকুঞ্জ , ঢাকা।  হোটেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ট্রেনিং ইন্সটিটিউট, বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন, মহাখালী। বাংলাদেশ হোটেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ট্রেনিং ইন্সস্টিটিউট, গ্রিনরোড, ঢাকা। পূর্বাণী ইন্টারন্যাশনাল হোটেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্ট, দিলকুশা, মতিঝিল। হোটেল রাজমনি ঈশা খাঁ, কাকরাইলসহ আরও অনেক জায়গায় ট্যুরিজম অ্যান্ড হোটেল ম্যানেজমেন্টে পড়াশোনা করা ও প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

হোটেল ম্যানেজমেন্ট শুধু একটি বিষয় নয়। এর মধ্যে বেশ কিছু বিষয় রয়েছে। যেমন: ফুড অ্যান্ড বেভারেজ প্রোডাকশন, ট্র্যাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম, হাউসকিপিং, বেকারি অ্যান্ড পেস্ট্রি প্রোডাকশন, ফ্রন্ট অফিস সেক্রেটারিয়াল অপারেশন ইত্যাদি। এসব বিষয়ে ছয় মাসের শর্ট কোর্স এবং এক বছর, দুই বছর কিংবা তিন বছরের ডিপ্লোমা কোর্স রয়েছে। আর স্নাতক কোর্স তো আছেই। চাহিদামতো যেকোনো একটি কোর্স করতে পারেন। দীর্ঘমেয়াদি কোর্সগুলো চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে বেশি গ্রহণযোগ্য। চাকরির ক্ষেত্রে চাহিদা বেশি এমন আটটি বিষয়ের বিস্তারিত তুলে ধরা হলোঃ

» ফুড অ্যান্ড বেভারেজ সার্ভিস: খাবার তৈরি, টেবিল সাজানো, খাদ্য ও পানীয় পরিবেশন, পানীয় ও খাদ্যতালিকা হাইজিন অ্যান্ড স্যানিটেশন ইত্যাদি বিষয় কোর্সের অন্তর্ভুক্ত।

» ফুড অ্যান্ড বেভারেজ প্রোডাকশন : এই কোর্সের অন্তর্ভুক্ত বিষয়গুলো হলো বাংলাদেশি, চায়নিজ, ইউরোপিয়ান, ইন্ডিয়ান খাবার তৈরি প্রণালি, ডেকোরেশন, হাইজিন অ্যান্ড স্যানিটেশন।

» ফ্রন্ট অফিস সেক্রেটারিয়াল অপারেশন: অভ্যর্থনা টেলিফোন ম্যানার্স, চেক ইন, চেক আউট, বিল সংরক্ষণ, হিসাব সংরক্ষণ, রেকর্ড সংরক্ষণ ও কম্পিউটার সংক্রান্ত বিষয়গুলো রয়েছে  এ কোর্সে।

» সার্টিফিকেট কোর্স ইন হাউসকিপিং অ্যান্ড লন্ড্রি: কক্ষসজ্জা, বেড তৈরি, ক্লিনিং, লন্ড্রি সার্ভিস, হাইজিন অ্যান্ড স্যানিটেশন, ফাস্ট এইড ইত্যাদি এ কোর্সের অন্তর্ভুক্ত।

» বেকারি অ্যান্ড পেস্ট্রি প্রোডাকশন:  এই কোর্সে রয়েছে  কেক, পেস্ট্রি, ব্রেড, কুকিজ থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ডেজার্ট আইটেম প্রস্তুত, ডেকোরেশন, হাইজিন অ্যান্ড স্যানিটেশনের মতো বিষয়গুলো।

» ট্রাভেল এজেন্সি অ্যান্ড ট্যুর অপারেশন: এয়ারলাইন্স, ট্রাভেল এজেন্সি ও ট্যুর অপারেটর প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য এখানে রয়েছে  ট্যুর অপারেশন্স অ্যান্ড ট্যুর গাইডিং, ট্রাভেল সার্ভিস, ট্রাভেল ও কালচারাল জিওগ্রাফি বিষয়গুলো।

» এভিয়েশন ম্যানেজমেন্ট:  এয়ারলাইন্স, ক্যাবিন ক্রূ , গ্রাউন্ড স্টাফ , পাবলিক রিলেশন, মার্কেটিং ও ট্যুর অপারেশন্স বিষয়গুলো।

» ইভেন্ট ও ক্লাব ম্যানেজমেন্ট: ক্রীড়া, ইভেন্ট, ক্লাব ম্যানেজমেন্ট, অপারেশন্স, মার্কেটিং ও বাজেট  বিষয়গুলো শেখানো  হয় ।

PS-2_ZS

বিশ্বমানের পর্যটন সেবা নিশ্চিত করতে প্রয়োজন পেশাগতভাবে উপযোগী দক্ষ জনবল গড়ে তোলা। তাই এই বিষয়টি রপ্ত করে গড়তে পারেন সম্ভাবনাময় রোমাঞ্চকর ক্যারিয়ার। এ বিষয়ে পড়াশোনা করে হোটেল, মোটেল, রেস্টুরেন্ট, রিসোর্ট, ক্যাটারিং কোম্পানি, একাডেমিক ইনস্টিটিউশন, বিদেশে দূতাবাস বা ক্লাব, মেইল ফাস্ট ফুড অ্যান্ড রেস্টুরেন্টে চাকরি করার সুযোগ। এই কোর্স শেষে আপনার কাজ করার সুযোগ হবে পাঁচতারা হোটেলের ফুড অ্যান্ড, বেভারেজ, হাউজ কিপিং, পাবলিক রিলেশন, মার্কেটিং, হোটেল ফ্রন্ট অফিসার হিসেবে। বাংলাদেশ থেকে হোটেলের কাজ করার জন্য ও এই বিষয় এ পড়াশোনার জন্য প্রতি বছর প্রচুর ছেলে-মেয়ে বিদেশে যাচ্ছে। আর বিদেশে  স্টুডেন্টদের পছন্দের চাকরি হচ্ছে হোটেলের অথবা রেস্টুরেন্টে চাকরি।  ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, সুইজারল্যান্ড, ভারত, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, পোল্যান্ড, সাইপ্রাস সহ বিভিন্ন দেশে ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমে পড়াশোনাসহ গ্র্যাজুয়েশন করার সুযোগ রয়েছে। পর্যটন শিল্পের ওপর নির্ভর করে এসব দেশে গড়ে উঠেছে প্রচুর হোটেল রেস্টুরেন্ট, রিসোর্ট, ট্যুর কোম্পানি ও ট্রাভেল এজেন্সি। এসব দেশে এখনও দক্ষ পেশাজীবীর প্রচুর চাহিদা। এখনও পড়াশোনা এবং প্রশিক্ষণের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল শিক্ষার পাশাপাশি ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমে কাজ করার অফুরন্ত সুযোগ। তাই এসব দেশে বাংলাদেশ থেকে প্রচুর শিক্ষার্থী যাচ্ছে। আপনিও চাইলে প্রয়োজনীও শর্ত পূরণ করে যেতে পারেন এসব দেশে। আমাদের স্বপ্নের এ বাংলাদেশে ট্যুরিজম অ্যান্ড হোটেল ম্যানেজমেন্টে ক্যারিয়ার দিন দিন বাড়ছে। আমাদের এ শিল্পকে এগিয়ে নিতে আপনিও পারেন অবদান রাখতে।

প্রতিষ্ঠান ও কাজভেদে বেতন কাঠামো ভিন্ন হয়। ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্নকারীরা কাজ শুরু করতে হবে শিক্ষানবিশ হিসেবে। এ সময় তারকা হোটেলগুলো থেকে যাতায়াত ভাড়া বাবদ কিছু টাকা দেওয়া হয়। তবে সব হোটেলে এই রকম নিয়ম নেই। শিক্ষানবিশ শেষে শুরুতে বেতন ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা হয়ে থাকে। অভিজ্ঞদের বেতন ৩৫ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত হয়। এ ছাড়া কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানে লভ্যাংশের একটা অংশও কর্মচারীদের দেওয়া হয়।  এই পেশার আয় সময় উপযুগি ও আকর্ষনীয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সুজলা-সুফলা, শস্য-শ্যামলা, অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা, হাজার বছরের ইতিহাস ও ঐতিহ্যে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ পর্যটন শিল্পের জন্য খুবই সম্ভাবনাময়। একটি নতুন পর্যটন গন্তব্য হিসেবে জনপ্রিয় হয়ে ওঠার প্রয়োজনীয় সব উপাদানই আমাদের রয়েছে। বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশকে নতুন পর্যটন গন্তব্য গড়তে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের বিভাগীয় চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মুজিব উদ্দিন আহমেদ বলেন, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিষয়টি নতুন হলেও সমাজে ও কর্মক্ষেত্রে এর ব্যাপক চাহিদা থাকায় এর প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ দিন দিন বাড়ছে। এখানে যেমন রয়েছে পর্যাপ্ত বেতন ও সুযোগ-সুবিধা। বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, বাংলাদেশ পর্যটন শিল্প এগোচ্ছে। তবে এই শিল্প বিকশিত হতে প্রয়োজন কাঙ্খিত গতি। আরএ জন্যে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, রাজস্ব আয়ের দিক থেকে পোশাক শিল্পের পরেই হবে পর্যটন শিল্প খাত। সম্ভাবনাময় এ খাতকে কাঙ্ক্ষিত মানে পৌঁছাতে আগামী তিন বছরে ভিত্তি নির্মাণ করে দেয়া হবে। সংযোজন করা হবে পর্যটন সব উপকরণ।

পেশার জগতে পর্যটন শিল্পে রোমাঞ্চকর ও আকর্ষণীয়। এই পেশার সাথে আছে জানার দুনিয়ার নিবির সম্পর্ক। যেমন দেশ ভ্রমণ, ভিন্ন ভিন্ন সংস্কৃতির, পেশার ও আদর্শের অনুসারী মানুষকে জানার অপূর্ব সুযোগ ঘটে এই পেশার মাধ্যমে। আপনার সফল ক্যারিয়ার গড়তে অনায়াসেই বেছে নিতে পারেন পর্যটন শিল্পে পেশা। ৯টা থেকে ৫টা একঘেমি ক্যারিয়ার থেকে রোমাঞ্চকর ও জ্ঞাননির্ভর পর্যটন শিল্পে ক্যারিয়ার গড়ুন, এগিয়ে যান।

জুলফিকার সুমন