প্রাণের সংযুক্তি

নান্দনিক

সাহিত্য

pb-ads

নির্বাচিত

সর্বজয়া

pb-ads

খেলার জগৎ

প্রাণের কথা

দেখতে দেখতে বাংলা ক্যালেন্ডারে আরেকটি নতুন বছর যোগ হলো। প্রকৃতি বদলে গেলো। কিন্তু দুঃসংবাদগুলোর কোনো পরিবর্তন নেই। কাল ফেইসবুকে পড়ছিলাম মীরপুর থেকে সায়েদাবাদ যাবার পথে বাসে দুটি মেয়েকে ধর্ষণ করার চেষ্টা হয়েছে। কিছুদিন আগে আরেকজন নারী ফেইসবুকে লিখে জানিয়েছেন মায়ের সঙ্গে বাসে বাড়ি ফেরার পথে তার ওপরেও আক্রমণ চলেছে। দুই ক্ষেত্রেই আক্রান্তরাই পাল্টা প্রতিরোধ করে নিজেদের রক্ষা করেছে। সমাজে মেয়েদের এভাবে অনিরাপদ হয়ে ওঠার পেছনে আসলে কোন বিষয়টা দায়ী? আমাদের শিক্ষাদান প্রক্রিয়ার ব্যর্থতা? মানবিক শিক্ষার অভাব? বাঙালীর সাংস্কৃতিক বুনিয়াদ ক্রমশ দূর্বল হয়ে পড়া? নাকি অন্যকিছু?
পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় এই দানবীয়, বিকৃতশক্তির উত্থান কি তাহলে আমাদের নিয়তি হয়ে উঠছে? কোন পথে হাঁটছে সমাজ! যে দুটো ঘটনার উল্লেখ করলাম সেখানে এই আক্রান্ত মেয়েদের বাঁচানোর জন্য বাসের ভেতরে অন্য যাত্রীরা এগিয়ে আসেনি। মীরপুরে কাপড়ের দোকানের মালিকের অশ্লীল কটূক্তির স্বীকার হয়েছেন আরেকজন নারী। প্রতিবাদ করতে গেলে আশপাশের দোকানদার আর পথচারীরা মেয়েটিকে পাল্টা নাজেহাল করেছে। শেষে পুলিশের উচ্চপদস্থ অফিসারের সহায়তা নিয়ে ন্যায় বিচার পেয়েছে সেই অপমানিত মেয়েটি।কিন্তু এভাবে কতদিন? সেই মেয়েটির সংযোগসূত্র ছিলো বলে বিচার পাওয়া গেছে। কিন্তু পথে প্রতিদিন এমন হাজার কন্য, বোন অপমানিত হচ্ছেন। তাদের পরিত্রাণের পথ কোথায়? আমরা কি এই সমাজে আলোর সম্ভাবনা আর রাখতে চাচ্ছি না? নিজেদের হাতেই নিজেদের সর্বনাশ ডেকে আনছি? একবারও ভাবছি না ওই অপমানিত নারীদের মতো একদিন আমাদের বাড়ির মেয়েটিও আক্রান্ত হতে পারে?
আমাদের এই প্রবৃত্তির সঙ্গে পশুদের তুলনা করে তাদের অপমান করতে চাই না। আমরা নিজেরাই মনের ভেতরে জমে ওঠা এই ক্লেদ আর অন্ধকারের জনক। আমরাই সবকিছু ঢেকে দিতে চাইছি অন্ধকারে।আত্নহননের এই পথের শেষ কোথায়?

sign

শেষ সংযুক্তি

bankasia-bd
popcorn-offer3

এই সংখ্যায় যা থাকছে

pb7
pb-6

ক্যামেরার চোখে

সময় কোথাও আটকে থাকে না। তার বড় গুন সে কেটে যায়। শুকনো গাছের ডালে পত্রপল্লবে জেগে ওঠে জীবনের নতুন গল্প আবারো। এক হাতে পাতা ঝরিয়ে শূণ্য হয়ে যায় আবার অন্য হাতে ভরে ওঠে শূণ্য ডালপালা। এমনই সুন্দর সময়ের জন্য প্রার্থনা রইলো আমাদের। ছবিঃ আনসার উদ্দিন খান পাঠান।
সময় কোথাও আটকে থাকে না। তার বড় গুন সে কেটে যায়। শুকনো গাছের ডালে পত্রপল্লবে জেগে ওঠে জীবনের নতুন গল্প আবারো। এক হাতে পাতা ঝরিয়ে শূণ্য হয়ে যায় আবার অন্য হাতে ভরে ওঠে শূণ্য ডালপালা। এমনই সুন্দর সময়ের জন্য প্রার্থনা রইলো আমাদের। ছবিঃ আনসার উদ্দিন খান পাঠান।