অফিস যাত্রীর ডায়েরি… ১৪

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ওবায়দুল ফাত্তাহ তানভীর

রোডফিস

আজকের সকালটা শুরুই হলো অন্ধকারে। ঘরের জানালা থেকে আকাশের যে টুকরোটা দেখা যায়, সেটা আজ মেঘে ঢাকা। আকাশের আজ মন ভার। অফিসের পথে বের হবার সঙ্গে সঙ্গেই অঝোর ধারা শুরু হলো। পরিচিত বসন্তকাল বদলে শহর ফিরে গেল বর্ষায়। ঢাকার পরিচিত রাস্তাগুলো জলে ডুবে হয়ে গেল নদী আর সে নদীতে আমরা হয়ে গেলাম সব ফিস- রোডফিস। আচমকা বৃষ্টির তোড়ে রাস্তায় থাকা ট্রাফিক পুলিশেরা আশ্রয় নিয়েছে কোন ছাদের তলায়, আর তাতেই রাস্তায় থাকা গাড়ির চালকেরা ভুলে গেল রাস্তায় চলবার সব নিয়ম কানুন। সবাই নিজের মত চলতে গিয়ে মুহুর্তে মোড়গুলো অচল করে দিলো। আমার আর কিছু করবার নেই দেখে বিষন্ন এই বৃষ্টিতে বসে খুঁজে ফিরি আমাদের ভুলোমনের ঠিকুজী। হুমায়ুন আহমেদের কোন লেখায় সম্ভবত পড়েছিলাম গোল্ডফিস নাকি এমনি ভুলোমনা যে সে অ্যাকুরিয়ামের এ মাথা থেকে ও মাথায় যাবার জন্য রওনা দিয়ে কিছুটা পথ যাবার পর ভুলে যায় কোথায় যাচ্ছিলো। আমরা, জাতিগত ভাবে যে গোল্ডফিসেরও বাড়া, তাতে কোন সন্দেহ নেই। চারপাশে এত উদাহরন, যে কোনটা রেখে কোনটার কথা ভাববো সেটা নির্দিষ্ট করাই দূরহ (আমিও যে এই গোল্ডফিস প্রজাতিরই একজন)। প্রথমেই মনে এলো বিশাল অর্জন মুক্তিযুদ্ধের কথা। মাত্র ৪৮ বছরেই আমরা সংশয়ান্বিত এর শুরু কি করে তা নিয়ে, সেই সঙ্গে আমরা ভুলেই গেছি রাজাকার কোন প্রকারের শ্বাপদ সেটা, মাঝে অনেকদিন বিশ্মৃত ছিলাম আমাদের স্বাধীনতার লড়াইটায় কে ছিলো আমাদের শত্রু কে ছিলো মিত্র । ৪৯ বছর যদি বেশি দুরের ঘটনা মনে হয়, তাহলে আর একটু এগিয়ে এসে নব্বইয়ের দশকের কথাই ভাবি। কত্তোগুলো লোক মরবার পর যাকে আমরা আস্তাকুঁড়ে ছুড়ে ফেলেছিলাম, তাকেই কিছুদিনের ভেতর সেই আমরা আবার কোলে তুলে নিয়ে জামাই আদরে পুষছি। এই যখন আমাদের অতীত, তো সেই আমরা যে প্রতিদিন বাড়ি থেকে বেরিয়ে রাস্তায় চলবার সাধারন নিয়মগুলো ভুলে যাবো সেটাইতো স্বাভাবিক। আমরাতো ভুলবোই, রাস্তা যানবাহনের জন্য, পথচারীর জন্য ফুটপাত। সেজন্যই আমরা সব সময় ফুটপাথ ছেড়ে রাস্তায় হাটি আর গাড়িগুলো গুছিয়ে রাখি ফুটপাথে। আমরা ভুলে যাই, পায়ে চলাচলকারী সবার জন্য রাস্তার এপার থেকে ওপারে যাবার পথ হলো জেব্রার চামড়ার ওপর দিয়ে, তা না করে তাই আমরা সব সময় জেব্রার চামড়া ছাড়া বাকি সবদিক দিয়ে রাস্তা পার হই। আমার ভুলে যাই, রাস্তায় যানবাহনের চলাচল নিয়ন্ত্রন করা ট্রাফিক পুলিশের কাজ, কিন্তু সময় অসময়ে নিজেরাই ট্রাফিক হয়ে রাস্তায় হাত তুলে গাড়ি থামিয়ে দৌড়াই। আমাদের অতীত এমন ভুলো বলেই প্রায়শ রাস্তাকে নিজের জমিদারী ভেবে সেটার মাঝ দিয়ে হাটাচলা করি আর কোন বাস বা গাড়ি এ কারনে আমাদের চাপা দিতে চাইলে, তাদের প্রজা জ্ঞানে শাসন করি। আমরা কখনোই মনে করতে পারি না লাইন ধরে চলা বলে কোন বস্তু মানব জীবনে আছে কিনা। তাই মনের ভুলে স্টপেজে বাস দেখা মাত্রই আমরা মিষ্টির উপর হামলে পরা মাছির মত এক সাথে ঝাঁপিয়ে পড়ি। একই কারনে রাস্তায় গাড়ি চালাবার সময় ইচ্ছামতো কখনো ডাইনে কখনো বায়ে যাই আর কারো তোয়াক্কা না করেই। এমনি শত সহস্র উদাহরন দেয়া সম্ভব আমাদের মনের ভুলে কৃত কাজের। কিন্তু তাতে লাভ কি? এ লেখাটা আর একটু এগুলেইতো ওপরের কথাগুলোও ভুলে যাবো। আমাদের মত এত স্মৃতিভ্রংশ জাতি বোধ হয় পৃথিবীতে আর একটাও নেই। তাতে কি? আমাদের সেটাও তো আসলে মনে থাকে না বা থাকবে না। কি হবে আর তাই এসব ভেবে, বরং এই অঝোর বৃষ্টি দেখি আর জ্যাম ছুটলে অফিস, অফিস থেকে বাসা, পরদিন আবার বাসা-অফিস এই করে নিশ্চিন্তে যাপন করে চলি আমাদের ভুলে ভরা জীবন….

ছবি: লেখক

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]