অফিস যাত্রীর ডায়েরী… দুই

ওবায়দুল ফাত্তাহ তানভীর

উঠাও দিবস আজকে আমার উঠাও দিবস। আমার গাড়ি চালক ছুটিতে গেছে, তাই আজকে বিকল্প ব্যবস্থায় অফিস যাত্রা। আধুনিক ঢাকাবাসী হিসাবে আমার ফোনে উবার এবং পাঠাও অ্যাপ নামানো আছে। আজকে তাদের কেউ আমাকে উঠাও (উবার/পাঠাও=উঠাও) এর মহান কাজটি করবেন বলে আশা করছি। সকালটা শুরু করলাম উবার দিয়ে- আফটার অল ব্র্যান্ড বলে কথা। উবার এক্স চাইলাম, একটু পরে স্মার্টলি একজন ফোন করলেন, জানতে চাইলেন কোথায় যাবো – আমি বল্লাম ম্যাপ দেখেন। জবাব এলো- ‘ম্যাপ দেখার সময় নাই মুখে বলেন’। আমার মনে হলো আসলেই উনারা আমাদের মত নাদানদের সার্ভিস দিতে ভীষন ব্যস্ত, তাই স্ক্রিনে ম্যাপ দেখার সময় কোথায়। জানালাম অফিসের ঠিকানা, ও প্রান্ত থেকে আচ্ছা বলে রেখে দিলেন। আমি তীর্থের কাক হয়ে উবার ভাইয়ের আশায় মোবাইল স্ক্রিনে তাকিয়ে বসে থাকলাম। ৫-৭ মিনিট পর স্ক্রিনে দেখি উবার ভাই উল্টা পথে যাত্রা করেছেন। ভাবলাম একটু ঘোরা পথে আসবেন। কিন্তু দেখি চলছেন তো চলছেনই- থামার বা আমার দিকে আসবার কোন লক্ষনই নেই। আমি মাথার মধ্যে আমাদের পুরো আলাপটা রিওয়াইন্ড করে বোঝার চেষ্টা করলাম – আমার বেয়াদবীটা কি ছিলো যার ফলে উবার ভাই মনকষ্টে ঢাকান্তরী হতে চলেছেন। উহঃবারের আশা ছেড়ে পাঠাও এর পাঠা হতে চাইলাম এবার- চাকরী বাচানো বলে কথা। পাঠাও আমাকে পুরো পাঠা বানিয়ে অ্যাপে ঢুকতেই দিলো না। দেরি হয়ে যাচ্ছে – তাই শেষ চিকিৎসার খোঁজে আবার উবারে হানা দিলাম- বুদ্ধি করে এবার মোটো চাইলাম। এবারে কোন ঝামেলা ছাড়াই এক ভাই মোটর বাইকে হাজির হলেন। জানতে চাইলেন কোথায় যাবো- শুনে একটা প্লাস্টিকের ঠোঙ্গা টাইপের জিনিস হাতে ধরিয়ে দিলেন। তাকিয়ে আছি দেখে জানালেন মাথায় পড়তে হবে- পুলিশের নির্দেশ যাত্রীর হেলমেট পড়া বাধ্যতামুলক। আমিও বাধ্যগত ছেলের মত ঠোঙ্গা মাথায় বাইকে উঠে বসলাম। একটু পরেই বাতাসে ঠোঙ্গা উড়ে যেতে চাইলো বলে একহাতে ঠোঙ্গার দড়ি টেনে ধরে মাথার সঙ্গে আটকে রাখলাম, আরেক হাতে আমার উড়ে যাওয়া ঠেকাতে বাইকের পেছনে একটা হাতল মতো খামচে ধরে বসে রইলাম। জীবনে ফাইটার প্লেনে চড়ার খুব শখ ছিলো, সে সুযোগ যে আজকেই চলে আসবে ভাবিনি। দিনের সবচেয়ে ব্যস্ততম সময়ে, ১৫ মিনিটে আমি অফিস পৌছে গেলাম, কাঁপতে কাঁপতে। পথে খুব একটা কিছু ঘটেনি – শুধু একটা পাঁচটনি ট্রাক আমার কাধে হালকা ডলা আর একটা রিক্সা ভ্যান হাটুতে তাল ঠুকে ওস্তাদি গান করেছিলো। তারপরো আপনারা চাইলে আমি আমার মাটিতে বিমান ভ্রমনের গল্প বলতে পারি- কিন্তু তারজন্য কয়েকটা দিন অপেক্ষা করতে হবে। আমার কাঁপাকাঁপি বন্ধ হতে দিন কয়েক লাগবে….

ছবি: লেখক