অভিযুক্ত হিচকক

আলফ্রেড হিচককের ‘বার্ড’ ছবিতে হঠাৎ এক সকালে ক্ষেপে ওঠা পাখিদের আক্রমণের শিকার হওয়া সেই ভয়ার্ত নারী চরিত্রের কথা সিনেমার দর্শকদের ভোলার কোনো কারণ নেই। ৫৮ বছর বয়সী ‘দ্য বার্ড’ সিনেমাটিও দর্শকদের কাছে আজও এক বিষ্ময় হয়েই বেঁচে আছে। ‘হিচককের ‘সাইকো’ ছবির পর ‘দ্য বার্ড’ হরর ফিল্মের তালিকায় এখনও একেবারে মাথার দিকে নিজের অবস্থান ধরে রেখেছে। কিন্তু এই ছবির মূখ্য চরিত্রের সেই অভিনেত্রী টিপি হেডের্ন যখন বেশ কয়েক বছর আগে প্রকাশিত আত্মজীবনীতে অবলীলায় লিখে দেন, হিচকক তাকে জোর করে চুমু খেতে চেয়েছিলেন তখন নড়েচড়ে বসে হিচকককে নিয়ে চর্চাকারীরা।

টিপি হেডের্নে‘র অভিযোগ ছিলো, হিচকক একদিন শুটিং শেষে তাকে কটেজে নামিয়ে দেয়ার সময় প্রায় জোর করেই চুমু খেতে চেয়েছিলেন এবং সে আকাঙ্ক্ষায় সাড়া না-দেয়ায় তার ওপর ক্ষিপ্ত হয়েছিলেন। আর সেই রাগের প্রকাশ হিচকক ঘটিয়েছিলেন টিপির টেলিফোন বুথে আটকে পড়ার দৃশ্যে আসল পাখি ব্যবহার করে। সেই পাখিদের হিংস্র আক্রমণের দৃশ্যে বুথের কাচ ভেঙে অভিনেত্রীর গাল কেটে রক্তারক্তি কাণ্ড। টিপি গোটা বিষয়টাকে নিজের বইতে নৃসংশ আর কদর্য বলে উল্লেখ করেছেন।

কিন্তু টিপি হাডের্ন-ই যে সত্যি অভিযোগ তুলেছেন তারই বা প্রমাণ কী? হিচকক এবং তাঁর জীবন নিয়ে যারা গবেষণা করেন তাদের কিন্তু উল্টো বক্তব্য আছে এই অভিযোগের জবাবে। জন রাসেল টেইলার ‘হিচঃ দ্য লাইফ অ্যান্ড টাইমস অফ আলফ্রেড হিচকক’ বইতে স্পষ্টই লিখেছেন, ১৯৬৩ সালে দ্য বার্ড মুক্তি পাওয়ার পরের বছরই হিচকক টিপিকে তার ‘মার্নি’ ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব দেন। টিপি সেই প্রস্তাব গ্রহণও করেন।হিচকক তাকে অপমানজনক প্রস্তাব দিয়ে থাকলে পরের ছবিতে টিপি হেডের্ন অভিনয় করলেন কেন সেই প্রশ্নটা অভিযোগের বিপরীতে অবশ্যই একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হয়ে দাঁড়ায়।

হিচককের জীবন এবং সিনেমা নিয়ে আরেক গবেষক টনি লী মোরালও অভিনেত্রীর অভিযোগ নিয়ে গবেষণা চালান। তিনি দ্য বার্ড সিনেমার কলাকুশলীদের কারো কারো সঙ্গে কথাও বলেন। তার অনুসন্ধানে বের হয়ে আসে টিপি যে সময়ের কথা বইতে উল্লেখ করেছেন সেই সময়টাতে ছবির শুটিং হচ্ছিলো ইনডোরে। আর তখন টিপি নিজেও শুটিংয়ের সময় ছাড়া বেশিরভাগই নিজের কটেজেই থাকতেন। তাই হিচকক তাকে গাড়িতে করে কটেজে নামাতে গিয়েছিলেন এ তথ্যও ধোপে টেকে না।

লুইস ল্যাথাম ‘মার্নি’ ছবিতে মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। অনুসন্ধান চালাতে টমি তার কাছেও হাজির হয়েছিলেন। লুইস টমিকে স্পষ্ট ভাষায় বলেন, ‘টিপি খুব সুন্দরী অভিনেত্রী। হিচককের বিরুদ্ধে তার এরকম অভিযোগ তোলা অনুচিত হয়েছে।’

খোদ হিচকক অবশ্য এই অভিযোগের বিরুদ্ধে অবহেলা ভরে নিজের কাঁধটাও নাড়েননি তখন।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক
তথ্যসূত্রঃ দ্য গার্ডিয়ান, ইন্টারনেট
ছবিঃ গুগল


প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না, তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]


https://www.facebook.com/aquagadget
Facebook Comments Box