অসাধারণ ব্লু সামুরাই

শামসুল আলম মঞ্জু
আমেরিকা প্রবাসী

একদা বাংলাদেশের ফুটবলের সোনালী সময়ের খ্যাতিমান ফুটবলার শামসুল আলম মঞ্জু। বিশ্বকাপ ফুটবলের ম্যাচ দেখে প্রাণের বাংলার পাঠকদের জন্য প্রবাসী এই কৃতী ফুটবলার মন্তব্য প্রতিবেদন পাঠাচ্ছেন সুদূর আমেরিকা থেকে।

একেই বলে লড়াই। রাশিয়ার মাটিতে এশিয়ার ব্লু সামুরাই বাহিনীর এই সংগ্রামের কথা বহুকাল মনে রাখবে ফুটবল বিশ্ব। নিজস্ব সূর্যদয়ের জন্য জাপান বাহিনীর অসাধারণ কুশলী খেলা পৃথিবীকে জানান দিলো উঠে আসছে ফুটবলের নতুন শক্তি।

বিশ্বকাপের প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে বেলজিয়ামের মতো দুর্দান্ত দলের বিরুদ্ধে ২-০ এগিয়ে গিয়েও শেষমেশ ৩-২ হার! সোমবার মাঝরাতে এডেন অ্যাজারদের বিরুদ্ধে তাকাশি ইনুইদের হারের পরে বিশ্বজুড়ে প্রশংসা পেয়েছে জাপানীদের ফুটবল খেলা। বেলজিয়াম এই মুহূর্তে বিশ্ব ফুটবলের একটা সাড়া জাগানো শক্তি। এই বিশ্বকাপের অন্যতম সেরা দল কোচ রবের্তো মার্তিনেজ-এর হাতে। কিন্তু সেই ফুটবল শক্তিকে প্রায় বিদায় দিয়েই ফেলেছিলো জাপান। দুর্দান্ত দুই গোলে এগিয়েও গিয়েছিল তারা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত স্নায়ুর চাপ সামলে বেলজিয়ামকে ম্যাচে ফিরিয়ে আনলেন ভার্থেনঘন, ফেলাইনি, চাদনিরা।রুবের্তো মার্তিনেজ প্রমাণ করে দিলেন ফেলাইনিকে নামিয়ে তিনি ভুল করেননি। খেলার মোড়ও ঘুরে যায় সেখান থেকেই।

তবে বড় ম্যাচের চাপ আর বেলজিয়ামের মতো নতুন ফুটবল শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করে এশিয়াকে নতুন স্বপ্ন দেখিয়েছে জাপান। কিন্তু ফুটবল তো সবশেষে গোলের খেলা। শক্তিশালী রেড ডেভিলদের বিরদ্ধে মরণ-পণ লড়াইয়েও শেষরক্ষা করতে পারলেন না নাগাতোমো, হন্ডা, ওকাঝাকিরা। লুকাকুরা জিতল ৩-২ গোলের ব্যবধানে।

অন্যদিকে ব্রাজিল ফিরেছে তাদের স্বাভাবিক ছন্দে। বলা যায় শত্রুর মুখে ছাই উড়িয়ে তারা থামিয়ে দিয়েছে মেক্সিকান ওয়েভ। অনেকেই ভাবতে শুরু করেছিলেন জার্মানী, আর্জেন্টিনা আর পর্তুগালের পর এবার ছিটকে যেতে পারে নেইমাররাও। কিন্তু সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে মেক্সিকোকে দুই গোলে হারিয়ে ব্রাজিল কোয়ার্টার ফাইনালে। এবারের বিশ্বকাপে নেইমার প্রথমবারের মতো জ্বলে উঠলেন বলে আমার মনে হয়েছে। অসাধারণ একটি গোলের সুযোগ তৈরী করে নিজেই গোল করেছেন, আবার সতীর্থকে গোল তৈরী করেও দিয়েছেন।ব্রাজিল দলের সব ডিপার্টমেন্ট চমৎকার ফুটবল খেলেছে। মেক্সিকোর খেলায় অবশ্য সেই প্রাণ খুঁজে পাওয়া যায়নি।

মেক্সিকোর সঙ্গে ৫০ বারের সাক্ষাতে ২৩ বারই জয়ী ব্রাজিল৷ সেই আত্মবিশ্বাস তো ছিলই৷ সঙ্গে ছিল অঘটন রুখে দেওয়ার তাগিদ৷ দুয়ে মিলেই এসেছে প্রত্যাশিত জয়৷ তবে ব্রাজিলকে দেখে মনে হলো, ঝুলিতে আরও কিছু স্কিল ও স্ট্র্যাটেজি লুকিয়েই রাখলেন তিতে৷ যা শেষ আটে বেলজিয়াম কিংবা জাপানের বিরুদ্ধে বের করবেন৷

ছবিঃ ফুটবল টুইট