আজ কী হবে

আহসান শামীমঃ বাকি তিন দল  পয়েন্ট টেবিলের এক-দুইয়ে থাকা স্পেন, পর্তুগালের দ্বিতীয় রাউন্ড অনেকে নিশ্চিত ধরে নিলেও মারপ্যাঁচের অঙ্কে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেতে পারে ইরানও।রাশিয়া বিশ্বকাপে ‘বি’ গ্রুপের পয়েন্ট টেবিলে আপাতত গ্রুপের শীর্ষে স্পেন।স্পেনের ঠিক পরের স্থান পর্তুগালের। দুই ম্যাচেই হেরে এরই মধ্যে সব সম্ভাবনা শেষ মরক্কোর, আর দুই ম্যাচে এক জয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে এখনও শেষ ষোলোর সম্ভাবনা জিইয়ে রেখেছে ইরান।স্পেন, পর্তুগাল আর ইরানের মাঝে ত্রিমুখী যুদ্ধ।

মোক্ষম প্রতিশোধের জন্য প্রস্তুত অনন্য এক মঞ্চ। এক যুগ আগে  বিশ্বকাপের  গ্রুপ পর্বের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ডেকো-ফিগোর পর্তুগালের কাছে ২-০ ব্যবধানে হেরে, বিশ্বকাপ স্বপ্নের সমাধী হয়েছিলো ইরানের। এবারো টিকে থাকার মিশনে লায়োন অফ পার্সিয়ানদের বাধার নাম, সেলেকাও।

আজ গ্রুপ বি এর বাঁচা মরার লড়াইয়ে রোনালদোর পর্তুগালের মুখোমুখি হবে এশিয়ার প্রতিনিধি ইরান। বিশ্বকাপে টিকে থাকতে এই ম্যাচে জয় চাই ইরানের। ড্র হলে ভাগ্য ঝুলে থাকবে নানান সব সমীকরণে। অন্যদিকে পুরো পর্তুগাল দলকে একাই টেনে নিচ্ছেন বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার ক্রিশ্চিয়ানো রোলানদো। মরদোভিয়া অ্যারেনায় দু’দলের মহারণ শুরু হবে আজ সোমবার দিবাগত ১২টায়।

ইরানের কাছে হেরে গেলেও পর্তুগালের সম্ভাবনা থাকবে, কাজটা বেশ কঠিন হলেও স্পেন মরক্কোর কাছে হারলে তাদের পয়েন্টও থাকবে পর্তুগালের সমান চার। সেক্ষেত্রে যারা কম ব্যবধানে হারবে তারাই ইরানের গ্রুপসঙ্গী। তখন গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরের রাউন্ডে উঠবে ইরান।

পর্তুগালের বিপক্ষে জিতলে তো ইরান দ্বিতীয় পর্বে উঠবেই, ড্র করলেও তাদের  সম্ভাবনা থেকে যাবে।তখন মেলাতে হবে দুই সমীরকণ। এক, যদি মরক্কোর কাছে দুই গোলের বড় ব্যবধানে স্পেন হারলেই খুলবে দুয়ার। আর দুই, পর্তুগালের সাথে ড্র করলেও স্কোরলাইন থাকতে হবে বড়। যেমন মরক্কো যদি স্পেনকে ১-০ গোলে হারায় আর পর্তুগাল ইরান ৪-৪ গোলে ড্র করে তবেই পর্তুগালের পেছনে থেকে পরের রাউন্ডে যাবে ইরান। এছাড়াও স্পেন পর্তুগাল দুই দল একই ব্যবধানে জিতলেও উদ্ভট পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। তখন গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন নির্ধারণের জন্য ফেয়ার প্লে পয়েন্টের দ্বারস্থ হতে হবে। জমজমাট এই গ্রুপের শেষ দুই ম্যাচের প্রতি তাই বাড়তি মনোযোগই থাকবে ফুটবলপ্রেমীদের।

এই পর্যন্ত দু’দলে দুই বারের দেখায় শতভাগ জয় পর্তুগালের। বিশ্বকাপে ২০০২ সালের পর এশিয়ার কোন প্রতিনিধিদের বিপক্ষে হারতে হয়নি ক্রিস্টিয়ানোর দলের। ২০১০ বিশ্বকাপ থেকে এক মরক্কো ছাড়া গ্রুপ পর্বের প্রতি ম্যাচেই গোল হজম করার রেকর্ড, দূশ্চিন্তার ভাঁজ ফেলতে পারে পর্তুগিজ কোচ সান্তোসের কপালে।

এবারের বিশ্বকাপে যেভাবে ছোটদলগুলোর বিপক্ষে নাকানিচুবানি খাচ্ছে জায়ান্ট দলগুলো তাতে আজকের ম্যাচেও লেখা হতে পারে ভিন্ন কোন গল্প।অবশ্য সে জন্য অপেক্ষাটা শেষ বাঁশি বাজা  পর্যন্ত।

ছবিঃ ফক্স নিউজ