আন্দোলনের গুগলিতে বাংলাদেশের ক্রিকেট

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান শামীম

হঠাৎ করে সাকিব-তামিমের নেতৃত্বে ১১ দফা দাবী নিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটে উদ্ভুত সংকট নিরাসনে আজ দুপুর ১২ টায় জরুরী বৈঠকে বসেছিলেন বিসিসিবি পরিচালকমন্ডলী। সংকট নিয়ে বিসিসিবির বসের কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। ক্রিকেটারদের বেতন বৃদ্ধি , খেলোয়াড়দের জন্য  অবকাঠামো গত সুযোগ-সুবিধা সহ মেয়াদ উর্ত্তীণ খেলোয়াড়দের সংগঠনের নির্বাচন সহ মোট ১১ দফা দাবিতে হঠাৎ করেই আন্দোলনে যান বাংলাদেশের ক্রিকেট খেলোয়াড়রা।

ভেরিফাইড ফেসবুকে বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক  মাশরাফি লিখেছেন, ‘অনেকেই আমাকে প্রশ্ন করছেন যে, দেশের ক্রিকেটের এমন একটা দিনে আমি কেন উপস্থিত ছিলাম না। আমার মনে হয়, প্রশ্নটা আমাকে না করে, ওদেরকে করাই শ্রেয়। এই উদ্যোগ সম্পর্কে আমি একদমই অবগত ছিলাম না। নিশ্চয়ই বেশ কিছু দিন ধরেই এটা নিয়ে ওদের আলোচনা ছিল, প্রক্রিয়া চলছিলো। এ সম্পর্কে আমার কোনো ধারণাই ছিল না। সংবাদ সম্মেলন দেখে আমি ওদের পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে পেরেছি।ক্রিকেটারদের নানা দাবির সাথে আমি আগেও একাত্ম ছিলাম, এখনও আছি। আজকের পদক্ষেপ সম্পর্কে আগে থেকে জানতে পারলে অবশ্যই আমি থাকতাম। আমার ঊপস্থিত থাকা কিংবা না থাকার চেয়ে, ১১ দফা দাবি বাস্তবায়িত হওয়াই বড় কথা। সবকটি দাবিই ন্যায্য, ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের মঙ্গলের জন্য জরুরী। আমি মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, ১১ দফা দাবির পক্ষে আছি, থাকব।’

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সাথে কোন রকম আলোচনা না করেই ক্রিকেটারদের হার্ডলাইনে যাওয়া উচিত হয়নি, এতে ক্রিকেট দুনিয়ায় দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে মনে করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল।

প্রতিমন্ত্রী মনে করেন, ‘ক্রিকেটাররা ধর্মঘটের ডাক দেওয়ার আগে পুরো বিষয়টি বিসিবিকে জানাতে পারতেন। আমাকেও জানাতে পারতেন। শুরুতে হার্ডলাইনে যাওয়ায় ক্রিকেট দুনিয়ায় দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে।’ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান বলেন, ‘এমন তো নয় যে বিসিবির অর্থনৈতিক সমস্যা আছে। তাই সমাধানও তারা সহজেই করতে পারবে।বোর্ডের সাথে আমি কথা বলেছি, আলাপ-আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নিতে বলেছি।’

নভেম্বরের শুরুতেই তিন টি-টোয়েন্টি ও দুই টেস্ট খেলতে ভারত সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশ দলের।বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ধর্মঘটের কারণে এই সিরিজও রয়েছে শঙ্কায়।অবশ্য সাকিবদের ধর্মঘট নিয়ে চিন্তিত নয় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। বোর্ডের নতুন প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলির মতে, ‘এই আন্দোলনের প্রভাব ভারত-বাংলাদেশ সিরিজে পড়বে না।তিনি আরও বলেন,’ এটা তাদের অভ্যন্তরীণ ইস্যু। তাঁরাই  এর সমাধান করবে । সৌরভ  বলেন, ‘আমি বিসিবির সথে কথা বলেছি। এ নিয়ে আমার কিছু বলা ঠিক হবে না।’

ছবি : গুগল

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]