আমরা অলরেডি মানুষ…

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কনকচাঁপা

অনেক বছর আগের এক আটই মার্চের কথা।তখন কেবল দিবস পালনের রেয়াজ এসেছে,বাড়াবাড়ি শুরু হয়নি।একটা টিভি চ্যানেল থেকে ফোন এলো, টিভিতে গোলাপী শাড়ি পরে যেতে হবে।আমার আলমারি তে যে কয়টা গোলাপী শাড়ি আছে সবকটি লণ্ড্রী তে, ড্রাই ওয়াশের জন্য।শেষতক একটা গোলাপী শাড়ি কিনে তারপর গেলাম।কিন্তু আমি একটু বিরক্ত যে নারীদিবসই কি, আর গোলাপী শাড়িই কে? যথারীতি অনুষ্ঠানে মতামত জানালাম যে নারীদের সম অধিকার আদায়ের জন্য সারাবছরই কাজ করতে হবে,একটি দিবস দিয়ে কি হবে!!! উপস্থাপক আমার কথায় বিব্রত হলেন বলাই বাহুল্য।পরের বছর গোলাপী বাদ দিয়ে রঙের কোড এলো হাল্কা বেগুনী! এভাবে রঙ বদলের আহ্লাদ শুরু হল।আমি এগুলো অনুষ্ঠানে যাওয়াই বাদ দিলাম।

আমার বক্তব্য হচ্ছে যেখানে মধ্যবিত্ত উচ্চবিত্ত নিম্নবিত্তের মহিলা কিশোরী কেউই এই ডেস্ক্রিমিনেশন থেকে রক্ষা পাচ্ছেনা সেখানে এই রঙ এর কোড কেন! সত্যিকার অর্থে আমাদের আর এই সম অধিকারের নামে বিশেষ কোটা, বাসের বিশেষ সিট এগুলো দরকার নেই।দরকার আগে নারীদের দের মানুষ হিসেবে মর্যাদা দেয়া।নারী পুরুষ আলাদা করার কি কিছু দরকার আছে? এই পৃথিবীতে নারী পুরুষ উভয়ের অবদান সমান।আর নারী তো কোন উপভোগের সাবজেক্ট নয়! তাদের অপদস্থ করার ও দরকার নেই আবার আলগা সম্মান ও দরকার নেই। দরকার শুধু মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার।আর নারী অবলা, অসহায়, মমতাময়ী এই বস্তাপচা উপাধি মুছে ফেলা দরকার। নারী যেমন মমতাময়ী তেমনি প্রাণসংহারী ও বটে।গর্ভের সন্তান পেটে আসলে মা যদি গাছগাছালি বা অষুধ খেয়ে সন্তান মেরে ফেলেন তাহলে দুনিয়ার মুখ কি আর দেখা যায়।?

আমি নিজে নারী না পুরুষ একথা কখনওই ভাবিনা, এবং অবলা শব্দকে ঘৃনা করি।আমি জানি আমার কত শক্তি,তাকে রোজ ঝালাই করি।মারামারি করিনা বটে কিন্তু আমি জানি একজন পুরুষ এর মতই আমার পেশী শক্তিও আছে।এ বিশ্বাস থেকেই আমার মাসল আরো শক্তিমান হয়। আমি আমার পেশী শক্তি যেভাবে ব্যবহার করি আমার ধারণা অধিকাংশ পুরুষই গোটা জীবনে তা থাকা সত্বেও ব্যবহার করেন না। সবচেয়ে বড় কথা আমার একটা জঠর আছে এবং সেই জঠরে সন্তান উৎপাদন হয়।আমিই সবচেয়ে শক্তিমান মানুষ। আলহামদুলিল্লাহ

আমরা দিবস চাই না,বাসের সিট চাইনা, চাকরীর কোটা চাইনা, চাইনা আলগা দরদ,মানুষ হিসেবে স্বীকৃতি ও চাইনা কারণ আমরা অলরেডি মানুষ।

ছবি: লেখকের ফেইসবুক থেকে

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]