ইউনির্ভালসেল মিউজিক জগতে বাংলাদেশের শ্রাবণ

বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত কানাডিয়ান ছেলে শ্রাবণ।২০ বছর বয়সেই গায়ক হিসাবে জায়গা করে নিলো আমেরিকার লস এঞ্জেলেসের ইউনির্ভালসেল মিউজিক জগতে।শ্রাবণের জন্ম আরব আমিরাতের দুবাই শহরে। তার বাবা পেশায় একজন প্রকৌশলী। ২ বছর বয়সে ইমিগ্রান্ট হয়ে শ্রাবণরা সপরিবারে  চলে যায় কানাডার মনট্রিয়াল সিটিতে। সেখানে ৬ বছর বয়সে তার বাংলা গান শেখা শুরু বাবু বিকাশ দের কাছে। ৯ বছর বয়সে বাবার চাকুরীসূত্রে তারা আবার সপরিবারে চলে আসে যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের ডালাস শহরে।এবার শুরু হয় জোর কদমে বাংলা গান ও ক্ল্যাসিকেলের তালিম নেয়া। শিক্ষক এবার ডালাসের সুপরিচিত শাহীন আহম্মেদ।

বিভিন্ন বাংলা গানের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করে শ্রাবন অনেক পুরস্কারও পেয়েছে।তবে হঠাৎ করেই আবার ধারাবদল। এবার শ্রাবণ নিজেকে নিয়ে আসে ইংরেজী গানের জগতে। ১৫ বছর বয়স থেকেই ইংরেজী গানের সঙ্গে শুরু তার সখ্য।সেইসঙ্গে শুরু হয় তার গান লেখাও। এবার সেই গানে নিজেই সুর করে গাইতে শুরু করে।তারপর নিজের বাড়ীতেই তৈরী করে তার স্বপ্নের মিউজিক ষ্টুডিও। ইতিমধ্যে নিজের লেখা ও সুর করা গানের দিয়ে নিজেকে পরিচিত করে তুলেছে ওখানকার সঙ্গীত জগতে। গান তার মনপ্রাণে মিশে গেছে।তাই শ্রাবণ বলে, গান আমার জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। গানের জগতে নিজেকে আরও প্রতিষ্ঠিত করার জন্য সম্প্রতি সে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে বিখ্যাত ব্রিটিশ প্রডিউসার আলেক্স দ্যা কিড এর সঙ্গে।৪টা অ্যালবামে গায়ক হিসেবে কাজ করবে শ্রাবণ। ২০১৯ সালে প্রথম অ্যালবামের কাজ শেষ হবে এবং গান গাওয়ার পাশাপাশি তার গান লেখা এবং সুর করার কাজও চলবে । শ্রাবণের বাবা-মা সবার কাছে ছেলের জন্য আশীর্বাদ ও দোয়া কামনা করেন।