উড়ে গেলো আফগান ব্যারিকেড

আহসান শামীম

রেকর্ড গড়া আর ভাঙ্গাটা সাকিবের জন্য নতুন কিছু না।বিশ্বকাপের ইতিহাসে ১০ ওভারে ২৯ রানে ৫ উইকেট নিয়ে নতুন রেকর্ড গড়লেন তিনি। একইসঙ্গে এতোদিন ভারতের যুবরাজের ২০১১ সালে ৫০-এর বেশি রান ও ৫ উইকেটের একক রেকর্ডের পাশে সাকিবের নাম লেখা হলো। সাকিবের এমন রেকর্ড গড়ার দিনে ১৮ বল হাতে রেখেই ৬২ রানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়লো বাংলাদেশ।ম্যাচ সেরা সাকিবই বাংলাদেশের একমাত্র খেলোয়াড় যিনি বিশ্বকাপের মঞ্চ ১০০০ রানক্লাবের সদস্য হলেন।

অফগানদের সাথে সেমির লড়াইয়ে টিকে থাকার জন্য জয়ের বিকল্প ছিল না বাংলাদেশের। টস জিতে ভুল সিদ্ধান্তটা নিয়েই ফেলে আফগান অধিনায়ক।এমন উইকেট সুযোগ পেয়েও বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় আফগান অধিনায়ক।আফগানদের এই ভুলের খেসারত থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য সাহায্যে নেমে পড়েন পাকিস্তানের আম্পায়ার আলিম দার।তিন তিনটা বিতর্কিত সিদ্ধান্তে বড় রানের পুঁজি গড়তে বাঁধা হয়ে দাড়ান তিনি।রিভিউ নিয়ে সাকিব বেঁচে গেলেও সাজঘরে ফিরতে হয় ওপেন করতে আসা।

লিটন দাশ আর সৌম্য সরকারকে।তারপরও বাংলাদেশের জয় আটকানো সম্ভব হয়নি। ৭ খেলায় ৭ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকায় পঞ্চম স্থানটা পুনরুদ্ধার করলো টাইগাররা। সেমিফাইনালে উঠতে বাংলাদেশের সামনে এখন ভারত, পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়ের কোন বিকল্প নাই।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালোই করেছিল বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো ওপেনিংয়ে নামা লিটন দাস। কিন্তু ইনিংসের পঞ্চম ওভারে চতুর্থ বলে আম্পায়ারের বিতর্কিত সিদ্ধান্ত আউট হয়ে যেতে হয় তাকে।রিপ্লেতে স্পষ্টই দেখা যাচ্ছিল যে বল মাটিতে স্পর্শ করে তারপর ফিল্ডারের হাতে গিয়েছে। এক্ষেত্রে সচরাচর বেনিফিট অফ ডাউট ব্যাটসম্যানের পক্ষে যায়। অথচ থার্ড আম্পায়ার আলিম দার খুবই অবিশ্বাস্যভাবে এটা ক্যাচ হিসেবে রায় দিয়েছেন, আউট না হয়েও আউট হতে হয়েছে লিটন দাসকে।

লিটন দাসের পর আবারো ভুল সিদ্ধান্তের শিকার হয় বাংলাদেশ। ইনিংসের ১৮তম ওভারে বোলিংয়ে আসেন আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খান। কার করা প্রথম বলেই সাকিবের পায়ে লাগে বল। রশিদ খান আবেদন করলে আউট দিয়ে দেন আম্পায়ার রিচার্প কেটেলবার্গ। সঙ্গে সঙ্গে রিভিউয়ের আবেদন করেন সাকিব। রিভিউতে দেখা যায়, বল পিচিং এবং ইম্প্যাক্ট লাইনে থাকলেও উইকেট মিস করছে। রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান সাকিব।

আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরতে হয় ওপেনার লিটন দাশ আর সৌম্য সরকারকে।সাকিবের বিদায়ের পর ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের ৩২তম ওভারের শেষ বলে মুজিবের ঘুর্নিতে এল বি ডব্লিউর এর ফাঁদে পড়েন সৌম্য।আফগানদের চিৎকারে সৌম্যকে বির্তকিত আউট দিলে সৌম্য রিভিউর আবেদন করেন। আল্ট্রা এজ না দেখেই বল ট্র্যাকিং দেখেন আম্পায়ার আলিম দার। রিপ্লেতে দেখা যায় বল পিচিং আউট সাইড অফ, ইম্প্যাক্ট লাইন থাকলেও উইকেট হিটিং ছিল আম্পায়রস কল। আইসিসির করা নতুন আইনে সৌম্যকে বাঁচানোর উপায় ছিলো না।আম্পায়ার আউট দেওয়ার কারণে বল সামান্য স্টাম্পে লাগলেও সাজঘরে ফিরে যেতে হয় সৌম্যকে।

মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসানের দুটি পঞ্চাশ ও শেষদিকে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে বড় সংগ্রহ পেয়েছে বাংলাদেশ। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে ২৬২ রান করে বাংলাদেশ । সাউদাম্পটনে চলতি বিশ্বকাপে ২৬২ সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। উইকেট কিছুটা মন্থর হওয়ায় এই রান তোলা বেশ কঠিন হয় আফগানদের জন্য।

ছবিঃ গুগল