একপাহাড় থেকে সুর ছড়িয়ে পড়ে আর এক পাহাড়ে

জয়দীপ রায়

ফেইসবুক।সবার কাছেই জনপ্রিয় এই শব্দটি। তাই প্রাণের বাংলায় আমরা সংযুক্ত করলাম ফেইসবুক কথা বিভাগটি।এখানে ফেইসবুকের আলোচিত এবং জনপ্রিয় লেখাগুলোই  আমরা পোস্ট করবো।আপনার ফেইসবুকে তেমনি কোন লেখা আপনার চোখে পড়লে আপনিও পাঠিয়ে দিতে পারেন আমাদের ই-মেইলে।

অনেক বছর আগে যখন একবার বাসে করে মিরিক দিয়ে শিলিগুড়ি নামছিলাম, টুপুমামা বললো, বাঁদিকে পাহাড়ের মাথায় শহরটা দেখেছিস! কি বলতো। আমি দেখলাম বাসের জানলা দিয়েই। দূরে পাহাড়ের মাথায় শহরই তো দেখা যাচ্ছে। ছোট ছোট খোপের মত রঙিন বাড়িঘরদোর। কার্শিয়াং। নেপালিরা বলে, খোর্শাং। পাহাড়ের মাথায় এক শহর। আর একটা শহর থেকে দেখতে পাওয়া আড়াই ঘন্টা দূরের কোনও শহর। কই আমি তো কখনও বনগাঁ থেকে হাবরা দেখিনি। হাবরায় গিয়েই দেখেছি। তুমিও কখনও কৃষ্ণনগর থেকে বহরমপুর দেখতে পাওনি।
কিন্তু পাহাড়ে সব দিনের আলোর মত পরিষ্কার। কোন শহর বড় আর কার ক্ষমতা বেশী, যেকোনও পাহাড়ের মাথায় উঠে দেখলেই দেখা যায়। হ্যাঁ, পাহাড়ের নীচে থেকে দেখলে কিছুই বোঝা যাবে না।
এবার রাতের আলোতেও কার্সিয়াং দেখলাম। মিরিক থেকে পিছলে নীচে চা বাগানের মধ্যে দিয়ে কাক্ষিত হোমস্টের দিকে যেতে গিয়ে গাড়ি দাঁড়িয়ে পড়লো। সামনে সোজা পাহাড়টা আলোয় আলোয় ঝকমক করছে। অন্ধকারের মধ্যে হীরে হয়ে জ্বলে রয়েছে গোটা কার্শিয়াং। বিন্দু বিন্দু হয়ে কাঁপতে কাঁপতে এসেও অন্ধকারে দর্শকের চোখে আলো নিয়ে আসে দূরের শহর। আমি ভাবি কই আমি তো রাতে ছাদে উঠে বাংলাদেশের আকাশে এরকম বিন্দু বিন্দু আলো দেখিনি। দেখা যায়নি তো যশোরের টিভি টাওয়ার।
ছোটবেলায় যখন ভারত বাংলাদেশ বর্ডার হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা ইছামতির পাড়ে মামার বাড়ি যেতাম ছুটিতে, কোনও কোনও দিন রাজামামা টর্চ জ্বালিয়ে তিনতলার ছাদে নিয়ে যেতো। ঘন কৃষ্ণপক্ষের সন্ধ্যেরাতে বলতো, চ, একবার বনগাঁর লাইটটা দেখে আসি। উত্তর পশ্চিম কোণে অনেক দূর আকাশের একটু অংশ কেমন যেন বেশী আলো রয়েছে। পলিউশনমুক্ত পরিবেশে কুড়ি কিলোমিটার দূর শহরের আলো আকাশকে আলো করেছে। ডিফিউজড্ লাইট। কোনও সোর্স নেই।
আমার আজ কার্শিয়াংয়ের আলো দেখে মনে হলো, পাহাড়ের মতো কোথাও নেই। এক শহর থেকে আর এক শহর দেখা যায়। এক পাহাড় থেকে সুর ছড়িয়ে পড়ে আর এক পাহাড়ে। এক পাহাড় আলোও মুগ্ধ করে দেয় আলো না জ্বলা আর এক পাহাড়কে। তারপর ক্রমশ যখন রাত আরও গভীর হয়, বৃষ্টির শব্দ হয় আরও ঝমঝমে, একে একে সমস্ত গৃহস্তরা বাড়ির শেষ আলোটাও নিভিয়ে দেয়। তখন দূর থেকে দেখা যায় অন্ধকার শহুরে পাহাড়ে একটা গাড়ি চলছে বৃষ্টিরাতে। দূর থেকে শুধু হেডলাইটটা বোঝা যাচ্ছে। পাহাড়ের গা বেয়ে পাক খেতে খেতে কখনও নামছে, কখনও উঠছে। কখনও উঠছে, কখনও নামছে।

ছবি:গুগল