এমনও শ্রাবণ দিনে মনে পড়ে তোমাকে

হাসান মোস্তাফিজ

ফেইসবুক এর গরম আড্ডা চালাতে পারেন প্রাণের বাংলার পাতায়। আমারা তো চাই আপনারা সকাল সন্ধ্যা তুমুল তর্কে ভরিয়ে তুলুন আমাদের ফেইসবুক বিভাগ । আমারা এই বিভাগে ফেইসবুক এ প্রকাশিত বিভিন্ন আলোচিত পোস্ট শেয়ার করবো । আপানারাও সরাসরি লিখতে পারেন এই বিভাগে। প্রকাশ করতে পারেন আপনাদের তীব্র প্রতিক্রিয়া।

উপহার সম্পাদনা করি তখন। সারাদেশ থেকে অসংখ্য লেখা আসে প্রতিদিন। লেখাটা শহরের না গ্রামের সেটা দেখি না। দেখি ছাপার উপযুক্ত কিনা। সম্পাদনা করে হলেও ছাপা যায় কিনা। ঢাকার এক মেয়ের লেখা ছেপেছি কয়েকটা। একদিন সেই মেয়ে এসে হাজির অফিসে। নাম শুনে চিনতে পারলাম। টেবিলের উল্টোদিকে বসে ছিল। বলল, ‘ আপনিই বিস ( বিভাগীয় সম্পাদক )? আমি আপনার ফ্যান।‘ এভাবে টুকটাক কথাবার্তার পর কথা শেষ! বারবার আড়চোখে দেখছিল আমাকে। তেমন একটা জড়তা নেই। ওদিকে আমি ঘেমে নেয়ে অস্থির। জ্বলজ্যান্ত এক তরুণী বসে আছে সামনে। না ঘেমে উপায় কী! চা খাওয়ালাম। আরও কিছুক্ষণ বসে থেকে চলে গেল। যাওয়ার আগেও বারবার তাকাচ্ছিল আমার দিকে। আমি গাধা তখনও কিছুই বুঝতে পারিনি।
কয়েকদিন পর মেয়েটার একটা লেখা পেলাম। ছাদে বৃষ্টিতে ভিজছে একটা মেয়ে। ভালবাসার মানুষটাকে নিয়ে তার মনস্তাত্ত্বিক জগত। বিষয়বস্তু মোটামুটি এরকম। লেখা পড়ে আমি থ না, একেবারে চন্দ্রবিন্দু! এই মেয়ে এমন অসাধারণ লেখা লিখল কী করে? এর লেখা তো আগেও ছেপেছি। আমাদের আর্টিস্ট প্রিয় বেনু ভাইকে দিয়ে একটা স্কেচ করালাম। সুপার ডুপার স্কেচ। অসাধারণ লেখার সঙ্গে অসাধারণ স্কেচ। সোনায় না, একেবারে হীরায় সোহাগা! লেখা ছাপা হয়ে গেল। আমি গাধা তখনও কিছু বু্ঝি না!
এর কিছুদিন পর মেয়েটার একটা চিঠি। আমাকে তার ভাল লাগে ইত্যাদি। ঠিকানা দেয়া। আমি যেন উত্তর দিই। তবদা মেরে বসে ছিলাম চিঠি পড়ে। জগতে গাধার চেয়েও বোকা কোনও প্রাণী থেকে থাকলে সেরকম মনে হচ্ছিল নিজেকে।
এ ঘটনার বেশ কিছুদিন পর একদিন অফিসের সিঁড়িতে এক সহকর্মীর সঙ্গে দেখা। যিনি বর্তমানে আমেরিকা থাকেন। তো তিনি মৃদু হেসে বললেন, `আপনার সঙ্গে একটু কথা আছে। অমুককে চেনেন?‘
নামটা শুনে ততক্ষণে ভেতরে ভেতরে নিউজ হয়ে গেছে আমার।
বললাম, ‘চিনি। আমার লেখিকা। খুব ভাল লেখে।‘
‘ভাই, মেয়েটা আমার ইয়ে হয়। খুব ভাল মেয়ে। ও আপনাকে খুব পছন্দ করে। আপনার জন্য পাগল। আপনাকে জানাতে বলেছে তাই জানালাম।‘
শ্রাবণের এই অঝোর ধারায় মেয়েটার কথা কেন যেন মনে পড়ে গেল। যেখানেই থাকো খুব ভাল থেকো খুব ভাল মেয়ে।

ছবি: গুগল