কবিতা পাঁচ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পোস্টবক্স। ফেইসবুকের একটি জনপ্রিয় গ্রুপ। এবার প্রাণের বাংলার সঙ্গে তারা গাঁটছড়া বাঁধলেন। প্রাণের বাংলার নিয়মিত বিভাগের সঙ্গে এখন থাকছে পোস্টবক্স-এর রকমারী বিভাগ। আপনারা লেখা পাঠান পোস্টবক্স-এ। ওখান থেকেই বাছাইকৃত লেখা নিয়েই হচ্ছে আমাদের এই আয়োজন। আপনারা আমাদের সঙ্গে আছেন। থাকুন পোস্টবক্স-এর সঙ্গেও।

আবুল হাসনাৎ মিল্টন

কোন এক দিন

সামান্য মেঘ ছুঁয়ে দেখবো বলে
কোন একদিন হয়তো যাবো
কোন একদিন হয়তো খুব ইচ্ছে হবে
লোভী হয়ে উঠি

কোন একদিন স্বপ্নভঙ্গের বেদনায়
মানবজন্মকে হয়তো অভিশাপ মনে হবে
কোন একদিন তোর হাঁটুতে মাথা রেখে
ছেলেমানুষের মত কেঁদে উঠবো

কোন একদিন আমি তোর কাছে
হয়তো ভিখেরীর বেশে যাব
কোন একদিন হয়তো ডাকাত হয়ে
তছনছ করে লুটে নেবো তোর সিন্দুক

অথবা কোন একদিন বলে আসলে
কোন একটা দিন আর আলাদা হয়ে আসবে না!

 

 অন্তর্গত রঙ

ফারহানা নীলা

মন নেচেছিল

আমি তাকে প্রজাপতির গল্প শুনিয়েছিলাম।

একটা ঘাস ফড়িং

নেচে নেচে সবুজ গালিচায় মিশে গিয়েছিল।

অনেক খুঁজেও আর সেই প্রজাপতি আর ঘাস ফড়িং  এর সাথে আর কখনো দেখা হয়নি আমার!

আজো আমি নুপূর পায়ে খুঁজছি….  ছন্দিত আবেগে!

ছন্দের দুলুনি আমায় চমকে দেয়; আমি তখন একটা প্রজাপতি কিম্বা সবুজ ঘাস ফড়িং!

ভেসে আসে দূর থেকে হারানো কোনো সুর….

আমি মগ্ন চৈতন্যে আঁকি কিশোরীর হারিয়ে যাওয়া কোনো এক স্বপ্নালু স্বর্নালী দিন!

দিনের ছায়া এসে পড়ে ক্ষয়িষ্ণু অবয়বে; ক্ষীয়মাণ জীবনের চোখে আবছা কুয়াশার ঘের!

হাতড়ে খুঁজি ধোঁয়া ধোঁয়া কুয়াশার অন্তর্গত বেদনার গাঢ় রঙ!

মৃত নগর

রোকসানা শাহ্‌নাজ

ময়ূরাক্ষী মেঘের মত

হাসিতে হাহাকার নিয়ে

আমি আর ফিরবনা,

ফিরবনা এই মৃত নগরে। ­­

 

এখানে ময়ূরাক্ষী মেঘ,

এখানে আদিগন্ত জলপিপাসা ;

এখানে প্রতি নিশ্বাসে হলুদ হয় সবুজ উপত্যকা।

এখানে রুদ্রপলাশ দেখেনা আকাশ,

এখানে জারুল জানেনা জাহ্নবী তীর—-

এখানে স্বচ্ছ সরোবরের জলে মৃত মাছের উৎসুক ভিড়!

 

এখানে জীবনের নাম মুখোশ,

এখানে মৃত্যুর নাম মুখ;

কিছু কী হারালে?

মুখোশের আড়ালে–

মৃত্যু নাকি জীবন?

কিংবা জীবনের মত দেনা?

 

বারবার অন্তর্বাসে ঢাকি লজ্জা,

প্রতিবার লাল, নীল, বেগুনী,কমলা,

সবুজ, হলুদ  মুখোশে ঢাকি মুখ!

তবুও, যায় কী গো চেনা—

জীবন অথবা মৃত্যু?

কিংবা জীবনের মত দেনা?

 দুপুরগুলো

মনিরুল ইসলাম

দুপুরগুলো কাকের কণ্ঠস্বরে ঘুরে ঘুরে

উড়ে উড়ে যায়,

দুপুরগুলো সেরিব্রালে কামনা-চাতালে

বাতাসে মিলায়;

 

চুপসানো সন্ধ্যামালতি জানায় প্রণতি

সায়াহ্নের প্রতীক্ষায়,

ছড়ানো মাধবিলতা ভুলে গিয়ে মৌনতা

হিসেবের সমীক্ষায়;

 

লাল ও হলুদে সুতীব্র রোদে ফুটনোন্মুখ

রাধাচূড়া মন,

পুড়ে পুড়ে যায় অধর তৃষায় তপ্ত চুলায়

অলীক আবরণ;

 

এইবেলা আসবে না ভালোও বাসবে না

দুর্লভ প্রণয়

যাকিছু ছিল প্রিয়ে তার সব গেছো নিয়ে

প্রকাশি প্রলয়;

 

দিয়ে গেছো ফাঁকি তবুওতো বেঁচে থাকি

অভিযোগ নেই কোনো,

যেখানেই যাও, সুখের আকর খুঁজে পাও

কান পেতে শুধু শোনো;

 

আজও দুপুরে রোদের নূপুরে বেজে যায়

মোৎসার্টের জাদুর বাঁশি,

আমার এই বুকে অনাদির শোকে যে রয়

সে কোন সর্বনাশী!

 লাল রঙ কবিতা

নূর হোসেন আল কাদেরী

    

আর একটা কবিতা শুধু চাই।

যদি মরে যাই

আলিঙ্গন করবো মৃত্যুকে আমি।

ধরনীতলের কম্পমান ছন্দের রাজত্বে

তুমি যদি জাগাও প্রেমের মতো

নিত্যনতুন কাব্যের দ্বন্দ্ব,

আমি ও আমরা

আজীবন বন্দী রবো, লাল রঙ কবিতায়।

জেনে রেখো তুমি তবু, প্রেমিকা আমার

তোমার ঠোঁটের লালে

আমি খুঁজে পাই পৃথ্বী, হৃদয়ে তোমার।

অলংকরণ: শামীম জাহিদ

 

 

 

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]