কাফকা ও তার গোপন

ফ্রাঞ্জ কাফকারও পর্নোগ্রাফিতে আগ্রহ ছিলো? তিনিও তরুণ বয়েসের স্বাভাবিক প্রবণতায় উল্টেপাল্টে দেখতেন এক্স রেটেড পত্রিকার পাতা? ফ্রাঞ্জ কাফকার নামের সঙ্গে জড়িয়ে থাকে পরাবাস্তববাদ, অশরীরী ভয়ের অনুভূতি, দুঃস্বপ্ন,  সমাজের বিকৃতি ইত্যাদি শব্দগুলো। কিন্তু পর্নোগ্রাফি আর ফ্রাঞ্জ কাফকা তো দুই ভিন্ন মেরুতে অবস্থান করার কথা। কাফকা বিষয়ে গবেষক, প্রাবন্ধিক জেমস হাওয়েসের লেখা ‘এক্সক্যাভেটিং কাফকা’ নামে বইটি এমন তথ্যই পাঠকদের সামনে প্রকাশ করেছে। গবেষক বলছেন কাফকা কয়েকটি পর্নোগ্রাফী ধরণের প্রত্রিকার নিয়মিত গ্রাহক ছিলেন। সে সব পত্রিকার কোনো একটি সংখ্যা অনিয়মিত হলে কাফকা আক্ষেপ করতেন। জেমস হাওয়েস গবেষণা বলছে পত্রিকাগুলোর চরিত্র পর্নোগ্রাফীর দলেই। বিংশ শতাব্দীর এই অন্যতম কথা সাহিত্যিককে হাওয়েসর বই আবারও ভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করবে তাতে সন্দেহ নেই।

কাফকার পর্নোগ্রাফীতে আগ্রহ বিষয়ে যে তথ্যের উল্লেখ জেমস হাওয়েসের বই যথেষ্ট সোরগোল তুলেছে। বিষয়টা নিয়ে অনেকেই ভিন্ন মত পোষণ করেন। তাঁর ভক্তরা তো নিঃসন্দেহেই। কিন্তু জেমস হাওয়েস মনে করেন, কাফকার এই বিষয়ে আগ্রহ ছিলো এমন তথ্যের উপস্থিতি হাতের কাছে থাকার পরেও অনেক গবেষক বিষয়টাকে সম্ভবত ইচ্ছে করেই এড়িয়ে গেছেন। হয়তো তারা কাফকার অনন্য ভাবমূর্তিকে কালিমা লিপ্ত করতে চাননি।কিন্তু হাওয়েস গবেষকদের দিকে তার সমালোচনার আঙুলও তুলেছেন বইতে। এই গবেষক মনে করেন, পর্নোগ্রাফী পত্রিকায় কাফকার যদি আগ্রহ থেকেই থাকে তাহলে তা কাফকার ভাবমূর্তিকে ভেঙে গুড়িয়ে দেয়? নিশ্চয়ই না। বরং কাফকার চিন্তা এবং লেখার বহু অনাবিষ্কৃত এলাকার ওপর তাঁর এই গোপন আগ্রহের জায়গাটা নতুন করে আলোও ফেলতে পারে।

এ ধরণের পত্রিকার মধ্যে কাফকার প্রিয় ছিলো ‘ওপালস’ নামে একটি পত্রিকা। এই পত্রিকার প্রকাশক ছিলো আবার কাফকারই এক বন্ধু ফ্রান্স বেইলি। এই পত্রিকার নিয়মিত গ্রাহক ছিলেন তিনি। একবার একটি সংখ্যা সময়মতো তাঁর হাতে না-পৌঁছানোয় কাফকা ক্ষিপ্ত হয়েছিলেন। হাওয়েসের গবেষণা জানাচ্ছে, এই বিশেষ পত্রিকাগুলোর মধ্যে কয়েকটি ছিলো সমকামীদের জন্য।

কাফকার পর্নোগ্রাফীতে আগ্রহের বিষয়টা পাঠক, ভক্ত আর গবেষকদের মনে আলোড়ন তুলেছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। অনেকে হাওয়েসের সমালোচনা করে প্রশ্নের আঙুল তুলেছেন এই গবেষকের প্রবণতার দিকেও। অনেকে খোলাখুলি ভাবেই বলেছেন, হাওয়েস কাফকাকে বিতর্কিত করতে চান। কিন্তু কাফকার সৃষ্টি নিয়ে যারা গবেষণা করেন তাদের কাছে রহস্যময় আর ভিন্ন চিন্তাপ্রবাহের এই সাহিত্যিক চিরকাল এক পৃথক স্থান দখল করে থাকবেন তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক
তথ্যসূত্রঃ দ্য গার্ডিয়ান
ছবিঃ গুগল


প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না, তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]


https://www.facebook.com/aquagadget
Facebook Comments Box