কাল মুখোমুখি হচ্ছে ফ্রান্স আর উরুগুয়ে

আহসান শামীম

আগামীকাল বাংলাদেশ সময় রাত ৮ টায় ফ্রান্স আর উরুগুয়ের ম্যাচ দিয়েই শুরু হচ্ছে কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াই। পরিসংখ্যানের হিসাবে এই ম্যাচে লাতিন দেশ উরুগুয়ের জয়ের পাল্লাটা ফ্রান্সের চেয়ে একটু বেশি।অবশ্য ইন্জুরীর সমস্যাটাই উরুগুয়ের চিন্তার কারণ। ফ্রান্স -উরুগুয়ে এর আগে মোট ৮ বার মুখোমুখি হয়েছিল। ফ্রান্স জয় পেয়েছে ১বার, উরুগুয়ের ৩, ড্র হয়েছে ৪ ফ্রান্স বিশ্বকাপের শেষ ৯ ম্যাচে লাতিনদের সঙ্গে কোন ম্যাচ জিততে পারেনি।লাতিনদের বিপক্ষে ফ্রান্সের হার ৫ আর ৪ ম্যাচ ড্র। রাশিয়া বিশ্বকাপে ফ্রান্সের বড় শক্তি দলটির তারুণ্য আর উদ্দম। এ দুটি উপাদানই মূলত আশা জাগাচ্ছে ফ্রান্সকে। এমবাপ্পে, জিরুড আর গ্রিজম্যানদের আক্রমণ আর পগবা, ভারানে, উমতিতিদের সমন্বয় ফেভারিট এর তকমা দিয়েছে ফ্রান্সকে। তবে উরুগুয়ের বড় শক্তি, বার্সেলোনা শিবিরের অতন্দ্র প্রহরী সুয়ারেজ আর পিএসজি সুপারস্টার কাভানি। সাথে আছে বিশ্বমানের রক্ষণ ভাগ। বিশ্বকাপের আরেক ফেভারিট পর্তুগালকে হারিয়ে উরুগুয়ে এবার কোয়ার্টার ফাইনালে। সেই ম্যাচই দলকে দুই গোলে জয় করিয়ে ইন্জুরির কারনে দল থেকে ছিটকে পড়েছেন ফরোয়ার্ড কাভানি। কোয়ার্টার ফাইনালের আগেই আক্রমন ভাগের আরেক শক্তিশালী খেলোয়াড় ইন্জুরির তালিকায় যুক্ত হলেন সুয়ারেজ। দলের হয়ে শেষ পর্যন্ত সুয়েজের মাঠে নামা না নামার বিষয়টা পরিস্কার হতে পারছে না টিম উরুগুয়ে। কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্সের বিপক্ষে নামার আগে উরুগুয়ে দল এখন নিঝনি নভগোরদে নিয়মিত অনুশীলন করে যাচ্ছে।

কোয়ার্টারের পথে গ্রুপ এ তে চ্যাম্পিয়ন হয়ে রাউন্ড অফ সিক্সটিনে পৌঁছেছে উরুগুয়ে । গ্রুপ পর্বের ৩ ম্যাচের ৩ টা জয় নিয়ে ৯ পয়েন্ট অর্জন করে উরুগুয়ে।এই পর্বে প্রতিপক্ষরা কোন গোলই উরুগুয়ের জালে দিতে পারেনি।

অন্যদিকে  গ্রুপ পর্বে অস্ট্রেলিয়া এবং পেরুর সাথে জয়লাভ করলেও গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ডেনমার্ক এর সাথে গোলশূন্য ড্র করে গ্রুপ সি চ্যাম্পিয়ন হয় ফ্রান্স। রাউন্ড অফ সিক্সটিনে মেসির আর্জেন্টিনা কে ৪-৩ গোলে বিধ্বস্ত করে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ফ্রান্স।

১৯৩০ প্রথম বিশ্বকাপ আর এর ঠিক ২০ বছর পর ১৯৫০ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে।এরপর তেমন কোন বড় সাফল্য দেখাতে পারেনি তারা। ৬ জুলাই কোয়ার্টার ফাইনালে কোয়ার্টার ফাইনালে উরুগুয়ের সামনে কঠিন মিশন।

ফ্রান্সের বর্তমান দলটার অন্যতম ভরসার নাম কিলিয়ান এমবাপ্পে। মাত্র ১৯ বছর বয়সী এই খেলোয়াড় পেয়েছেন তারকাখ্যাতি। দ্বিতীয় রাউন্ডে এক এমবাপ্পের কাছেই তো হেরেছে আর্জেন্টিনা। পেলের পর সবচেয়ে কম বয়সী তারকা হিসেবে করেছেন বিশ্বকাপ নকআউট পর্বে জোড়া গোল।

এই এমবাপ্পেই ১৯৯৮ এর বিশ্বকাপ জয় করা ফ্রান্সকে রাশিয়া বিশ্বকাপ জয়েরও স্বপ্ন দেখাচ্ছেন।রাশিয়া বিশ্বকাপের তাঁর আয়ের সবটাই একটা দাতব্য সংস্থাকে দান করার ঘোষনা দিয়েছেন তিনি।

ছবিঃ ফুটবল টুইট