চলে গেলেন টেলি সামাদ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আজ শনিবার, ৬ এপ্রিল বেলা ১টা ৩০ মিনিটে ঢাকাই সিনেমার কিংবদন্তি অভিনেতা টেলি সামাদ রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তার মেয়ে সোহেলা সামাদ কাকলী তাঁর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন ।

দীর্ঘদিন ধরেই নানা অসুখে ভুগছিলেন এই অভিনেতা। ৫ এপিল শুক্রবার রাতে শরীর বেশি খারাপ হলে ১টার দিকে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ তার মৃত্যু হয়েছে।এর আগে ২০১৭ সালে   যুক্তরাষ্ট্রে অভিনেতা টেলি সামাদর বাইপাস সার্জারি হয়। গত বছরের অক্টোবর মাসে তার বাঁ পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলিতেও জরুরি অস্ত্রোপচার করা হয়েছিলো।

গত বছর ডিসেম্বরে টেলি সামাদ খাদ্যনালীতে সমস্যা  বুকে ইনফেকশন এবং ডায়াবেটিস নিয়ে অসুস্থ হয়ে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। তখন রক্তের প্লাটিলেটও কমে যাচ্ছিলো বলে জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা।পরে সেখানে ১৬ দিন চিকিৎসা নেওয়ার পর বাসায় ফিরে আবার অসুস্থ হয়ে পড়েন। সেজন্য ওই সময়েই তাকে আবার  রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিইউতে ভর্তি করা হয় এবং তিনি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরেন।

কয়েক দিন আগে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েন টেলি সামাদ এবং অবস্থার অবনতি হলে গতকাল তাকে স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।ব্যক্তিজীবনে এক মেয়ে ও এক ছেলের বাবা টেলি সামাদ।

১৯৪৫ সালের ৮ জানুয়ারি ঢাকার বিক্রমপুরে জন্মগ্রহণ করেন টেলি সামাদ। টিভি, চলচ্চিত্র ও মঞ্চে অভিনয়ের পাশাপাশি প্রযোজনা এবং ‘মনা পাগলা’ নামের একটি ছবির সংগীত পরিচালনা এবং গানও করেছেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার ছাত্র ছিলেন টেলি সামাদ। অভিনয় ছিলো তার নেশা।১৯৭৩ সালে ‘কার বউ’ সিনেমায় অভিনয়ের মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে পা রাখেন তিনি। পাঁচ শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন এই অভিনেতা।

২০১৫ সালে তার অভিনীত সর্বশেষ ছবি ‘জিরো ডিগ্রি’ মুক্তি পায় ।তারপর চলচ্চিত্র থেকে দূরেই ছিলেন তিনি। সারাদিন বাসায়ই থাকতেন। টিভি দেখতেন, ছবি আঁকতেন।

বিনোদন ডেস্ক

ছবি: গুগল

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]