জার্মানীর পতন

শামসুল আলম মঞ্জু
আমেরিকা প্রবাসী

একদা বাংলাদেশের ফুটবলের সোনালী সময়ের খ্যাতিমান ফুটবলার শামসুল আলম মঞ্জু। বিশ্বকাপ ফুটবলের ম্যাচ দেখে প্রাণের বাংলার পাঠকদের জন্য প্রবাসী এই কৃতী ফুটবলার মন্তব্য প্রতিবেদন পাঠাচ্ছেন সুদূর আমেরিকা থেকে।

রাশিয়ার মাটিতে জার্মানদের পতন মনে হয় বাঁধা আছে ঐতিহানিক ভাবে। হিটলারের পরাক্রমশালী বাহিনী এখানেই মুখ থুবড়ে পড়েছিলো। ফুটবল যুদ্ধে জার্মান শক্তি, গতবারের চ্যাম্পিয়ন সেই রাশিয়ার মাটিতেই পরাস্ত হয়ে বিশ্বকাপকেই বিদায় জানালো। এক ধরণের অঘটনই। তবে আমার এবারের বিশ্বকাপের খেলা দেখে মনে হয়েছে, এই অঘটনকে ঘটনায় রূপান্তরিত করছে ফুটবলের ছোট শক্তিগুলো।তারা তাদের খেলার কৌশল পাল্টেছে। পাল্টে গেছে খেলোয়াড়দের ফিটনেসও। ফলে বড় দলের সঙ্গে পাল্লা দিতে গিয়ে তারা রক্ষণাত্নক খেলায় মনযোগী হয়ে আটকে দিচ্ছে তাদের। এশিয়ার দল জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, ইরান সেই খবরই জানিান দিলো।

দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে ২-০ গোলে হেরে বিদায় নিলো জার্মানী। জ্বলে উঠেই আবার নিভে গেলো দলটা। কোরিয়া চমৎকার ফুটবল খেলেছে। আর উল্টোদিকে কপাল মন্দ ছিলো জার্মানীর। দ্বিতীয় আর্ধে কোরিয়ার গোলমুখে হেড থেকে তিনটি প্রায় নিশ্চিত গোল জাল স্পর্শ করেনি। দক্ষিণ কোরিয়ার রক্ষণভাগ নিশ্চিদ্র দেয়াল তৈরী করে আটকে দিয়েছে জার্মানীর আক্রমণ। কয়েকবার জার্মানরে শট কোরিয়ার খেলোয়াড়দের গায়ে লেগে ফিরে এসেছে। ডি-বক্সের ভেতরে এতো হেভি ট্রাফিক তৈরী করে রাখার কৌশলটাও কাজে দিয়েছে কোরিয়ানদের।

দ্বিতীয়ার্ধেও ৮৫ মিনিট পর্যন্ত চিত্রটা একইরকম ছিল। কিন্তু চকিতে জার্মান ডিফেন্সের ভুলে কোরিয়ার গোল। যা নিয়ে বিতর্ক হয়। অফসাইডের আবেদন করে জার্মানি। কিন্তু ভিএআর-এর সৌজন্যে গোল দিয়ে দেন রেফারি। তখনই স্টেডিয়াম জুড়ে জার্মান ফ্যানদের মধ্যে হাহাকার শুরু হয়ে গিয়েছে। অন্য ম্যাচে সুইডেন তখন মেক্সিকোর বিরুদ্ধে ৩-০ ফলে জিতছে। জার্মানির তখন জেতার সব সুযোগ শেষ সেই মুহূর্তে আবার গোল কোরিয়ার। ন্যুয়ার উপরে উঠে এসেছিলেন দলকে সাহায্য করতে। সেই সুযোগে লং বল নিয়ে দৌড়ে ফাঁকা জার্মান গোলে বল জড়িয়ে দিতে ভুল করেননি কোরিয়ার সন। জার্মানদের মধ্যে তখন শ্মশানের নীরবতা। বিশ্বচ্যাম্পিয়ন দলের বিদায়। এমন অঘটন ফুটবল বিশেষজ্ঞরাও অনুমান করেননি হয়তো। সবাইকে অবাক করে মুলারদের প্রস্থান বিশ্বকাপের মজা অনেকটাই ম্লান করে দিল বলাবাহুল্য। অন্যদিকে, জার্মানদের হারিয়ে এশিয়াকে গর্বিত করল কোরিয়া।

সার্বিয়াকে ২-০ গোলে পরাস্ত করে ব্রাজিল অন্যদিকে নক আউট পর্বে উঠে গেলো। বেশ অনেকটাই নিজেদের ছন্দে ফুটবল খেলে জয় তুলে নিয়েছে তারা। সার্বিয়াকে ব্রাজিলের সামনে তেমন বড় বাধা বলে মনে হয়নি। নেইমার গোল না পেলেও তার খেলায় গোল করার আকাঙ্খাটা দর্শকদের বেশ কয়েকটি ভালো মুভ উপহার দিয়েছে। আক্রমণাত্নক ব্রাজিল দল সার্বিয়াকে একেবারেই কোনঠাসা করে রেখেছিলো। আর তাতেই বিজয় এসেছে সহজে।

ছবিঃ ফক্স নিউজ