জিতে লজ্জা এড়ালো বাংলাদেশ

আহসান শামীম

মিরপুরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বিশাল ব্যবধানে জিতে, লজ্জা এড়ালো বাংলাদেশ।দলের পক্ষে দ্বিতীয় ইনিংসে মিরাজ শিকার করেছেন ৫ উইকেট। বোলারদের মধ্যে পুরো সিরিজে সবচেয়ে সফল বোলার তাইজুল ইসলাম। বাঁহাতি এই স্পিনার শিকার করেছেন  ১৮ উইকেট।সিরিজে সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি দ্বিতীয় টেস্টে মুশফিকের ডাবল সেঞ্চুরি মমিনুল-মাহমুদুল্লাহ’র সেঞ্চুরি, পাশাপাশি বল হতে তাইজুল ,মিরাজের উইকেট পাওয়া।২২ নভেম্বর থেকে ওয়েস্ট উইন্ডিজ সিরিজের আগে দুশ্চিন্তার কারণ চলতি সিরিজে টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা।যদিও ওয়েষ্ট উইন্ডিজের বিপক্ষে দলে ফিরবেন ইন্জুরী থেকে ফেরত আসা তামিম- সাকিব।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টের ভাগ্য নির্ধারিত হয়েছে ম্যাচের শেষ দিন দ্বিতীয় সেশনে। জিম্বাবুয়ের পক্ষে দুই ইনিংসে একাই লড়েছেন ব্রেন্ডন টেইলর। জোড়া সেঞ্চুরি হাঁকানোর পর দলকে সিরিজ জেতাতে পারেন নি এই ব্যাটসম্যান। এক সেশন হাতে রেখে ২১৮ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে বাংলাদেশ। এই জয়ে  সিরিজ সমতায় শেষ করতে সার্থক হয়েছে বাংলাদেশ।

ঢাকা টেষ্টের উল্লেখযোগ্য উপহার মিরপুর উইকেট। বহুদিন স্পোর্টিং উইকেটের কথা বলা হলেও কখন এবারের মত স্পোর্টিং উইকেটের সন্ধান মেলেনি। টেষ্টের প্রথম পাঁচ দিনই উইকেট একই রকম আচরন করায় শেষ দিনেও ব্যাট হাতে টেইলার শতরান করে অপরাজিত থাকেন। জিম্বাবুয়ে দলে পেসারা আর বাংলাদেশ দলে স্পিনাররা মাঠে দাপট দেখান। ঢাকা টেষ্টে তাইজুল ও মিরাজ আটটা করে উইকেট শিকার করেন।ম্যাচ সেরা মুশফিক,আর সিরিজ সেরা হন তাইজুল ১৮ উইকেট দখল করে।

রানের দিক থেকে আজ বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২১৮ রানের জয়। এর আগে ২০০৫ সালে ঢাকার মাঠে একই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ২২৬ রানের জয় পেয়েছিল টাইগাররা।

ছবিঃ ইএসপিএন