তারকোভস্কির যতোকাণ্ড

চলচ্চিত্র পরিচালক আন্দ্রেই তারকোভস্কি আদি ভৌতিক বিষয় বিশ্বাস করতেন।স্তfলিন পরবর্তী রুশ চলচ্চিত্রে ‘নিউ ওয়েভ’ আন্দোলনের প্রধান পুরুষ তারকোভস্কির সঙ্গে আত্মা বা ভূতের বিষয়টা ঠিক মানানসই নয়। কিন্তু কিশোর বয়স থেকেই তাঁর মনের ভিতরে এই বিশ্বাসটা তৈরি হয়েছিলো। ওই সময়ে তারকোভস্কি একদল পাজি ছেলের দলে মিশতে শুরু করেছিলেন। তাঁর মা বিষয়টা টের পেয়ে ছেলেকে বেশ দূরে একটা জায়গায় ভ্রমণে পাঠিয়ে দিলেন। তারকোভস্কিকে সেই জঙ্গল ঘেরা জায়গাটাতে প্রায় বছরখানেক সময় বসবাস করতে হয়েছিলো। কোনো এক শীতের রাতে তারকোভস্কি একটা ছোট্ট কুটিরে ঘুমিয়ে ছিলেন। হঠাৎ তাঁর মনে হলো, খুব কাছে অস্ফুট কন্ঠস্বর শুনতে পেলেন। ওই রহস্যময় কন্ঠস্বর তাকে বললো, এখনই ঘর থেকে বাইরে চলে যেতে। অনেকটা ঘুমের ঘোরে তারকোভস্কি কোনোরকমে ঘরটা থেকে বের হয়ে আসতেই একটা বয়সী পাইন গাছ হুড়মুড় করে ওই ঘরের উপর ভেঙে পড়ে এবং ছোট্ট ঘরটা তছনছ হয়ে যায়। ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে কিশোর তারকোভস্কি সেই রাতে ভয়ে থরথর করে কেঁপে উঠেছিলেন।

আত্মা বা কোনো অলৌকিক বস্তুর উপস্থিতির বিষয়টা তখন থেকেই তারকোভস্কির মনে জায়গা করে নেয়। পরবর্তী সময়ে তার নির্মিত সিনেমায়ও এ ধরণের ট্রিটমেন্টের দেখা মিলেছে।

তারকোভস্কি সম্পর্কে কাছের মানুষদের ধারণা হলো, তিনি খুব ঠোঁটকাটা ধরণের মানুষ ছিলেন। রুশ দেশে বা দেশের বাইরে চলচ্চিত্র পরিচালকদের সিনেমা দেখে তীব্র সব সমালোচনা তিনি লিখে রাখতেন একটি ডায়েরিতে। অনেক সময় তাদের নির্মাণ দিয়ে অনেক অপমানজনক কথাও লিখতেন। তারকোভস্কির সেই ডায়েরিটা ছিলো খুব বিখ্যাত।অনেকেই সেটার অস্তিত্বের কথা জানতেন। তারা তারকোভস্কির বিরূপ মন্তব্যগুলো সম্পর্কেও অবহিত ছিলেন। প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক স্ট্যানলি কুবরিক আর উডি অ্যালেনের কাজ সম্পর্কেও তারকোভস্কি সেই বিখ্যাত ডায়েরিতে বহু নেতিবাচক কথা লিখে রেখেছিলেন। তবে তারকোভস্কি ভীষণ শ্রদ্ধা করতেন আরেক প্রখ্যাত পরিচালক ইঙ্গমার বার্গম্যানকে।বার্গম্যানের কাজ পছন্দ করতেন তারকোভস্কি। বার্গম্যান এই অসাধারণ রুশ চলচ্চিত্রকার সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছিলেন, ‘সিনেমায় সর্বকালের শ্রেষ্ঠ পরিচালক।’ মজার বিষয় হচ্ছে, তারকোভস্কি আর বার্গম্যানের কখনোই সরাসরি দেখা হয়নি। তারা একে-অপরের মুখোমুখি হননি কখনোই। স্টকহোমে একবার একটি অনুষ্ঠানে দু‘জনেই উপস্থিত হয়েছিলেন। কিন্তু সামান্যের জন্য সেবারও তাদের দেখা হয়নি।

রুশ দেশে সিনেমা তৈরি করতে গিয়ে তারকোভস্কিকে অনেক ঝক্কি পোহাতে হয়েছিলো। বহুবার শাসকদের রক্তচক্ষু আটকে দিয়েছে তার সিনেমার মুক্তি। কাটাছেঁড়া চলেছে তার পাণ্ডুলিপি।তারকোভস্কি চলচ্চিত্রকার হিসেবে ২০ বছরের ক্যারিয়ারে নির্মাণ করেছেন মাত্র ৬টি সিনেমা। ‘ইভানভ চাইল্ডহুড’ তাঁর একটি আলোচিত সিনেমা। তারকোভস্কি প্যারিসে চলেগিয়েছিলেন। সেখানেই ফুসফুসে ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে ১৯৮৬ সালের ২৯ ডিসেম্বর এই প্রতিভাবান চলচ্চিত্রকার মৃত্যুবরণ করেন। তার বয়স হয়েছিলো ৫৪ বছর।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

তথ্যসূত্রঃ রাশিয়া বিয়ন্ড

ছবিঃ গুগল


প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না, তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]


https://www.facebook.com/aquagadget
Facebook Comments Box