দল নিয়ে হতাশ ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক

আহসান শামীম

ওয়েষ্ট উইন্ডিজের অধিনায়ক ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট, কিছুতেই বাংলাদেশের বিপক্ষে টেষ্ট সিরিজে হোওয়াটওয়াশটা মেনে নিতে পারছেন না।উইকেট নয়, এমন লজ্জাজনক পরাজয়ের কারন হিসাবে তিনি তাঁর দলের ব্যাটিং ব্যার্থতাকেই দায়ী করলেন।সিরিজের প্রথম টেস্টেও ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে পরাজিত হয়েছিল ক্যারিবিয়ানরা। চট্টগ্রাম টেস্টে প্রথম ইনিংসে ৩৫ রানের করতেই চার উইকেট হারিয়েছিল সফরকারীরা, এরপর ইনিংস থামে ১২৫ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসেও একই অবস্থা, প্রথম পাঁচ ব্যাটসম্যান আউট হন দলীয় পঞ্চাশ রান না হওয়ার আগেই।ইনিংস শেষ হয় ১৩৯ রানে, বাংলাদেশ জয় পায় ৬৪ রানে।

ঢাকা টেস্টের অবস্থা ছিলো আরও করুণ, প্রথম ইনিংসে ২১ রানেই পাঁচ উইকেট হারিয়েছিল তাঁরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ২৯ রানে চার উইকেট নেই তাঁদের। টপ অর্ডার এবং মিডেল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের এমন বাজে পারফর্মেন্স হতাশ করেছে দলের অধিনায়ক ব্র্যাথওয়েটের।ব্যাটসম্যানদের এমন পারফর্মেন্সে উইকেটের কোন দোষ ছিল না বলে জানিয়েছেন ব্র্যাথওয়েট। তাঁর মতে শট নির্বাচনেই ভুল ছিল তাঁর দলের ব্যাটসম্যানদের।

দলের ব্যাটসম্যানরা একা নয়, নিজেকে দোষারোপ করতে কার্পণ্য করেননি তিনি। ভারতের মাটিতে ব্যাট হাতে ব্যর্থ ব্র্যাথওয়েট বাংলাদেশের বিপক্ষে এসে ভালো পারফর্ম করতে চেয়েছিলেন। ব্যাট হাতে দলকে দিতে চেয়েছিলেন নেতৃত্ব। নিজের পারফর্মেন্সেও হতাশ ব্র্যাথওয়েট।দুই টেস্টের চার ইনিংসে মাত্র ২২ রান করেতে সক্ষম হয়েছেন উইন্ডিজ ওপেনার ব্র্যাথওয়েট।

অন্যদিকে, বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়েষ্ট উইন্ডিজের টেষ্ট ক্রিকেটে এমন অসহায় আত্মসমর্পণ দেখে , বিশ্ব ক্রিকেটের বাকি দলগুলোকে সতর্কবার্তা দিয়েছেন ভারত সাবেক ক্রিকেটার ও বর্তমান ক্রিকেট বিশ্লেষক সঞ্জয় মাঞ্জরেকার। স্পিন ভালো খেলতে না পারলে বাংলাদেশে আসতে বারণ করেছেন তিনি।নিজের টুইটারের পাতায় মাঞ্জরেকার লিখেছেন, ‘তুমি যদি স্পিন ভালো খেলতে না পারো, তাহলে ভালো হয় যে বাংলাদেশেই যেও না। তাঁরা এখন চারজন দুর্দান্ত স্পিনার নিয়ে খেলে।’ বাংলাদেশে আসার আগে সব দলকে স্পিনে পারদর্শী হয়ে আসার পরামর্শ দিয়েছেন মাঞ্জরেকার।

মাঠে ব্যাটিং, বোলিংয়ের সাথে দুর্দান্ত ফিল্ডিংয়ে বিশ্ব ক্রিকেটের সবার নজরে টাইগার ক্রিকেটার মেহেদি হাসান মিরাজ। তাঁর ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ভারতীয় সাবেক ক্রিকেটার ও বর্তমান ক্রিকেট বিশ্লেষক সঞ্জয় মাঞ্জরেকার।

ছবিঃ ইএসপিএন