নায়কের প্রস্থান

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নায়কই ছিলেন তিনি। প্রস্থানেও নায়কের মতোই তিনি। বাংলাদেশের মানুষের স্বপ্নকে একতারে বেঁধেছিলেন। আহত, খানিকটা দূর্বল কিন্ত ভয়হীন এক মানুষ। লড়েছেন, জিতেছেন, জয় করেছেন কোটি মানুষের হৃদয়। স্বদেশকে বসিয়েছেন সম্মানের আসনে। ক্রিকেটে বল হাতে তার অভ্যুত্থান, ২২ গজের এক অনন্য পারফর্মার। এসেছিলেন ক্রিকেটার হতে, কিন্তু অনায়াসে হয়ে উঠলেন এক বাঁশি; যে বাঁশির সুর একটি দল, একটি দেশ আর দেশের মানুষকে জানালো ‘সম্ভব’।

বাংলাদেশের ক্রিকেটে এমন নেতা আর আসেনি আগে। তার পরিমিত অথচ প্রবল উপস্থিতি ১১ জন যোদ্ধাকে সংগঠিত করেছিলো।মনের গভীরে গেঁথে দিয়েছিলো জয় করার নেশা।ঝড় বয়ে গেছে অনেক, ঝড় বয়ে গেছে তার শরীরের ওপর দিয়েও। কিন্তু আহত পা নিয়ে দিনের পর দিন অদম্য এই মানুষটি মুখোমুখি হয়েছেন চ্যালেঞ্জের। কখনো পতন ঘটেছে, পরাজয় এগিয়ে এসে ঢেকে দিয়েছে আশার সঞ্চয়। কিন্তু উঠে দাঁড়িয়েছেন তিনি। নিরাশা তার পাথরের মতো সংকল্পকে টলাতে পারেনি। তাই তো বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক হিসেবে শেষ দিনটিতেও মাথা উঁচু করেই ফিরলেন তিনি। আনন্দে ঝলমল করে উঠলো বাংলাদেশের কোটি মানুষের হৃদয়। জেগে উঠলেন সিলেট স্টেডিয়াম ভর্তি দর্শক। তারা এসেছিলেন তাদের নায়ককে দেখতে। দিনমান ধরে বহু মানুষ টিকেটের লাইনে। বহু মানুষের দৃষ্টি নিবদ্ধ ছিলো টিভির পর্দায়। একজন দীর্ঘদেহী মানুষ ঘুরে বেড়াচ্ছেন মাঠে। যেন বিশাল এক বৃক্ষ তার ডালপালা বিস্তার করে ঢেকে ফেলেছে পুরো দলটিকে সব আঘাত থেকে। শেষের দিনটিতে তার দলও তাকে দিলো দু’হাত ভরে। উজ্জ্বল শতরান, মারমুখো বোলিং আর চমৎকার ফিল্ডিংয়ে তারাও মনে রাখবার মতো করে দিলেন দিনটিকে।

নেতা স্বপ্ন দেখায়, নেতা ঝড়ের মুখে অবিচল থেকে তরণী ভাসায়, সংক্ষুব্ধ সংকটের সমুদ্র পার করে পৌঁছে দেয় সহযোদ্ধাদের লক্ষ্যে। তিনি সেই নেতা। শুধু একটি ক্রিকেট দল নয় একটি দেশের মানুষকে ভিন্ন মাত্রায় পৌঁছে দিয়ে বাড়ি ফিরছেন তিনি। তিনি মাশরাফি বিন মর্তুজা। যার বিদায়ের দিনে ম্যাচ শেষে দলের খেলোয়াড়রা পরিধান করেছিলেন একটিই জার্সি, যার বুকে লেখা ছিলো ‘থ্যাংক ইউ ক্যাপ্টেন’। ধন্যবাদ জানিয়ে এই ক্যাপ্টেনের ঋণ শোধ করা যায় না। তিনি শিখিয়েছেন ভালোবাসা কাকে বলে, কাকে বলে দেশপ্রেম।

আপনি আমাদের কোটি মানুষের হৃদয়ে বেঁচে থাকুন বহুকাল মাশরাফি। প্রাণের বাংলার পক্ষ থেকে রইলো আপনার জন্য নিরন্তর ভালোবাসা।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

ছবিঃ গুগল  

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]