পার্টির নির্দেশ অমান্য করে জন্ম হয়েছিলো শাবানা আজমির

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

তখন সদ্য স্বাধীন হয়েছে ভারতবর্ষ।জওহরলাল নেহেরুর শাসনে তখন কমিউনিস্টরা ফেরারী। পার্টি নিষিদ্ধ হওয়ার পাশাপাশি বহু সামনের সারির নেতাই কারাগারে। পুলিশের অত্যাচার এবং গ্রেফতার এড়াতে বহু নেতাকর্মী চলে গেছেন আন্ডারগ্রাউণ্ডে। তখন সেই গোপন জায়গাকে তারা বলতেন ‘কমিউন’। আত্মগোপনে থাকা কমিউনিস্টদের জীবন বয়ে চলছিলো দুর্ভোগের মধ্যে দিয়ে। ৪০’দশকের শেষ দিকে শওকত ও কাইফি আজমি সংসার বেঁধেছিলেন কোনো একটি কমিউনে।তখন ওই কমিউনেই বহু কমিউনিস্ট নেতাকর্মীর রীতিমত বিয়ে হতো। তারা ওখানেই সংসার জীবন যাপন করতেন। তখনই সন্তান সম্ভবা হলেন শওকত। বাইরে পরিস্থিতি ভীষণ জটিল। গ্রেফতার এড়াতে কাইফি আজমি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। শওকতের সন্তান ধারণের খবরটা ছড়িয়ে পড়তেই পার্টির উচ্চপর্যায় থেকে নির্দেশ আসে গর্ভপাত করিয়ে ফেলার জন্য। ‍পার্টির নেতাদের যুক্তি ছিলো যেখানে আজমি নিজেই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন অন্যদিকে শওকত নিজের কোনো আয় নেই। তাহলে কে নেবে নবজাতকের দায়িত্ব? সে বড়ই বা হবে কীভাবে? নেতৃবৃন্দের আরেকটি আশংকা ছিলো, শওকতের সন্তান লাভের খবর ছড়িয়ে পড়লে পার্টির বিভিন্ন পর্যায়ে কর্মরত নারী সদস্যরা অতি আনন্দে নিজেদের দায়িত্ব থেকে বিচ্যুত হবেন।

সেদিন কিন্তু দলের এই বিধান মেনে নেন নি শওকত। সব নির্দেশ অমান্য করে তিনি বের হয়ে আসেন গোপন আস্তানা থেকে। তার সামনে তখন একটাই লক্ষ্য, বাঁচাতে হবে অনাগত সন্তানকে।এর আগে তিনি এভাবে হারিয়েছেন প্রথম সন্তান খৈয়ামকে।শওকত তখন নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, ‘এই সন্তান আমার। কারো কথায় একে আমি ত্যাগ করবো না। প্রয়োজন হলে ওকে আমি একা মানুষ করবো।’ বের তো হয়ে এলেন, কিন্তু পুলিশের চোখ এড়িয়ে কোথায় পালাবেন তিনি? অনেক ভেবে ঠিক করলেন সোজা গিয়ে উঠবেন হায়েদ্রাবাদে বাবার বাড়িতে। সেখানেই ১৯৫০ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর জন্ম হয়েছিলো আজকের প্রখ্যাত অভিনেত্রী শাবানা আজমির।

বাবা কাইফি আজমির গোপন জীবন থেকে ফিরে আসার পর ছোট্ট শাবানাকে বাবা মায়ের হাত ধরে আবার ফিরে যেতে হয়েছিলো সেই কমিউনে। নয় বছর বয়স পর্যন্ত শাবানা এ ঘরের টিনের চাল দেয়া বাড়িতে থাকতেন। সেখানে ৭ টি পরিবারের ব্যবহারের জন্য ছিলো একটি বাথরুম।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

তথ্যসূত্র, ছবিঃ কলকাতা ২৪, গুগল  

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]