পিঙ্ক বলে উত্তেজনার ক্রিকেট কলকাতায়

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান শামীম

আগামী ২২ নভেম্বর,কলকাতার ইডেন গার্ডেনে বসে গোলাপী বলের টেস্ট ম্যাচ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও থাকবেন সেখানে। ২০০০ সালে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টের একাদশের ক্রিকেটাররা ছাড়াও থাকবেন ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচিন তেন্ডুলকার, সুনিল গাভাস্কার, অনিল কুম্বলে, রাহুল দ্রাবিড়দের মতো তারকারা।

দিবা রাত্রির এই টেষ্ট খেলা হবে গোলাপি বলে, তাই পুরো স্টেডিয়ামই সাজানো হচ্ছে গোলাপি রঙে।ভারতীয় সেনাবাহিনীর একটি দল  বিমান থেকে নিচে নেমে আসবে। তারা বল তুলে দেবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, ও কলকাতার মুখ্যমন্ত্রী ও অধিনায়কদের হাতে।ইডেনে ঘন্টা বাজিয়ে ক্রিকেট টেষ্টের উদ্বোধন করবেন শেখ হাসিনা। লাঞ্চের সময়ে শচিন, গাভাস্কার, কপিল, রাহুল, অনিল সবার উপস্থিতিতে একটি টক শো অনুষ্ঠিত হবে। চা-বিরতির সময় গলফ কার্টে করে সাবেক অধিনায়করা মাঠ প্রদক্ষিণ করবেন। মিউজিক পারফরম্যান্স এ দুই দেশের শিল্পীরা পরিবেশ করবেন গান।প্রথম দিন শেষে সবার জন্য থাকবে সংবর্ধনা।

দুই দল, সাবেক অধিনায়করা, প্রধানমন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রী, রুনা লায়লার পারফরম্যান্স, জিৎ গাঙ্গুলীর পারফরম্যান্স, সৌমেন্দ্র, সৌরজিতের পারফরম্যান্স ছাড়াও আরো অনেক আয়োজন থাকছে এই ম্যাচের প্রথম দিনে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ব্যাক্তিগতভাবে দাওয়াত করেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান সৌরভ গাঙ্গুলি।সৌরভের সেই দাওয়াত গ্রহণ করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। পরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও রাষ্ট্রীয় ভাবে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান। অনুষ্ঠানে মোদীর উপস্থিতির কথা থাকলেও তিনি উপস্থিত থাকবেন কিনা সেটা নিয়ে অনুষ্ঠানিক কোন ঘোষণা আসেনি।অবশ্য বিজেপির সাধারন সম্পাদক ও ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও, শেষ মূহুর্তে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেছেন।২২ নভেম্বর উপস্থিত না থাকলেও ২৩ নভেম্বর তিনি ইডেনে উপস্থিত থাকবেন।বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী  সফর সঙ্গী হিসাবে সঙ্গে নিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশর ওয়ান ডে অধিনায়ক মাশরাফিকে।

আয়োজনের কথা ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে কলকাতার শহরময়। গোলাপি বলের টেস্ট দেখতে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে মানুষ। খেলা চারদিনে গড়াবে কিনা নিশ্চিত না হলেও বিক্রি হয়ে গেছে প্রথম চারদিনের টিকেট। আজ মাঠ পরিদর্শন শেষে গণমাধ্যমের কাছে সৌরভ গাঙ্গুলি বলেন ‘আমি রোমাঞ্চিত। চার দিনের সব টিকেট বিক্রি হযে গেছে। আমরা কবে শেষ দেখেছি, কোনো টেস্টে চার দিনের সব টিকেট বিক্রি হয়ে গেছে সেটা মনে নেই। টিকিট পাওয়ার উম্মাদনায় কলকাতার মানুষ কিন্তু টিকেট নেই। ৫০ টাকার দৈনিক টিকিট ৬০০ টাকায়ও মিলছে না। কলকাতার এমন উত্তেজনায় মুগ্ধ ও বিস্ময় প্রকাশ করে বাংলাদেশের স্পিন বোলিং কোচ ড্যানিয়াল ভিটোরি জানান, ‘এমন উম্মাদনা আমি কোন টেষ্ট ম্যাচকে ঘিরে দেখিনি।’

ছবিঃ গুগল

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]